Sunday, June 4, 2023
Homeআজকের পত্রিকাসুরমান আলীর দিন যাচ্ছে ধারদেনা করে

সুরমান আলীর দিন যাচ্ছে ধারদেনা করে

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

বাজেটে শুল্ক কমানোর উদ্যোগ ইতিবাচক

বাজারে নিত্যপণ্যের দাম বেড়েই চলেছে। শুধু নিত্যপণ্য নয়, বেড়েছে বিদ্যুতের দাম, প্রাকৃতিক গ্যাস ও...

নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় সরগরম সিলেট নগরী

বার্তাকক্ষ নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা আর মাইকিংয়ে এখন সরগম সিলেট নগরী। কে হচ্ছেন আগামী দিনের নগরপিতা আওয়ামী...

ম্যানইউকে হারিয়ে ‘ডাবল’ চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটি

বার্তাকক্ষ ২৪ বছর পর ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের কোনো ক্লাবের ট্রেবল জয়ের দারুণ এক হাতছানি ম্যানচেস্টার...

৩০০ আসনের সীমানা চূড়ান্ত করে গেজেট প্রকাশ

বার্তাকক্ষ ৩০০ সংসদীয় আসনের সীমানা পুনর্নির্ধারণ করে চূড়ান্ত গেজেট প্রকাশ করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি) ৷...

মাগুরা সংবাদদাতা :
‘প্রতিদিন বাজার করতি গিলি কিছু দেনা হয়ে যাচ্ছে। কম রোজগার, তাই বাজার কুলাতে পারি নে। বাকি খাই, তাই আবার শোধ করতি গিলি পরের দিন বাজারে টান পড়ে। তাই ধার করি মাসের ত্রিশ দিন। কিন্তু মানসে এহন ধারও দিতি চায় না। এরাম করেই কোনো রকমে দিন যাচ্ছে।’
বললেন ডাব বিক্রেতা সুরমান আলী। ভোজ্য ও জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার প্রভাবে বাজারের নিত্যপণ্যসহ প্রতিটি জিনিসের দাম বেড়েছে কয়েক গুণ। ফলে নি¤œ আয়ের মানুষের জীবনযাপনে এসেছে ব্যাপক পরিবর্তন। সুরমান আলীর জীবনে অনেক কিছুই আর আগের মতো নেই।
তিনি জানান, ‘আগে গ্রাম থেকে ডাব কিনতাম প্রতি পিস ২০-৩০ টাকায়। এখন সেই সব গাছি (গাছ মালিক) জানায়, সব জিনিসের দাম বেশি, তাই ডাব আর ওই টাকায় হবে না। কিনতে হচ্ছে ৪০-৫০ টাকায়, যা বিক্রি হয় ১০ টাকা লাভে। এতে ৫০০ টাকা হতি ডাব বিক্রি করা লাগে ৫০টে।
‘সারা দিন রোদে পুড়ে ভ্যানে বিক্রি করি এই ডাব। দিনশেষে ৫০০ টাকায় বাজারে যাই। ৬৫ টাকা কেজি দরে দুই কেজি চাল, ১২০ টাকায় এক পোয়া মাছ, ১০০ থেকে ২০০ টাকায় সবজি ও তেল কিনতে বাকি রাখতে হয়।
‘শর্ত থাকে পরের দিন বাকির টাকা দিয়ে দেব। তাহলে প্রতিদিন আমাকে দেনা শোধ করতে হয়, বাজার করি আসলে ৩০০ টাকার, যা দিয়ে পাঁচজনের পরিবারের লোকের কোনোমতে খাওয়া জোটে।
বেশি বাকি পরি গিলি ধার করি। ধারও যারা দিত তারা দিতি চায় না। বলে তুই বাকি করে খাস তোরে ধার দিলি টাকা শোধ হবে না। তবু অনুনয় বিনয় করে অল্প কিছু ধার নিয়মিত করি। না হলে পরিবার নিয়ে না খেয়ে থাকতি হবি।’
সুরমান আলী বলেন, ‘একটু জমি আছে, ধান লাগিইছি অনেক কষ্টে, কিন্তু সেচ দিতে গিলি ৫০ টাকার থেকে এহন ১২০ টাকা নিচ্ছে শতকে। এত টাকা সেচে দিলি আমার ভিক্ষা করে চলতে হবে। তাই পানির অভাবে ধান হলদে হয়ে গেছে। আবার ধার করব ভাবছি। কিছু টাকা ধার না করলে সার ও ডিজেল কিনে সেচ দিতি পারব না।’
সুরমান জানান, তার ছেলে স্কুলে পড়ে। ছেলে কয়েক দিন ধরে একটা লুঙ্গি চায়। কারণ তার নামাজ পড়ার লুঙ্গি ছিঁড়ে গেছে। এক মাস ধরে ছেলেকে তা কিনে দিতে পারছেন না তিনি। এক আত্মীয়ের কাছে ধার চেয়েছেন ১ হাজার টাকা। কিন্তু ৫০০ টাকার প্রতিশ্রুতি পেয়েছেন। সবাই ধারের মধ্যে আছে।
সুরমান বলেন, ‘যার কাছেই টাকা ধার চাই, সবাই কয় বাজারের পিছনে খরচা বেশি, তাই তারাও ধার করে জীবন চালাচ্ছে। ভাবতেছি, ধার যদি বন্ধ হয়ে যায়, তাহলে তো আমার মতো দিন আনে দিন খায় মানুষগুলো পাগল হয়ে যাবে নে।’

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

নড়াইল পৌরসভায় সাড়ে ৩ কোটি টাকার ‘দুর্নীতি’

নড়াইল সংবাদদাতা : নড়াইল পৌরসভার মেয়র, সচিব, প্রধান সহকারীসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে সাড়ে তিন কোটি টাকা...

মোল্লাহাটে ইদুর মারা ঔষধ খেয়ে শিশু নিহত

বাগেরহাট সংবাদদাতা : বাগেরহাটের মোল্লাহাটে বাগানে ফেলে রাখা ইদুর মারার বিষ মিশ্রিত চালভাজা খেয়ে আসমা...

যশোর এম এম কলেজে অর্থনীতি বিভাগের সেমিনার

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর সরকারি মাইকেল মধুসূদন কলেজের অর্থনীতি বিভাগে বৃহস্পতিবার সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেমিনারের...