Tuesday, September 27, 2022
হোম আজকের পত্রিকাআদালতে হেলালের স্বীকারোক্তি : মামীর সঙ্গে পরকীয়ার বলি একরামুল

আদালতে হেলালের স্বীকারোক্তি : মামীর সঙ্গে পরকীয়ার বলি একরামুল

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

নতুন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা কার্যক্রমে নীতিমালা করছে ইউজিসি

বার্তাকক্ষ দেশে নতুন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের পর শিক্ষা কার্যক্রম শুরুর বিষয়ে নীতিমালা করছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয়...

সামাজিক মাধ্যম ব্যবহারে প্রাথমিক শিক্ষকদের যা অনুসরণ করতে হবে

বার্তাকক্ষ জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা ‘সরকারি প্রতিষ্ঠানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার নির্দেশিকা’ অনুসরণের জন্য...

শিক্ষা কার্যক্রমের জন্য নীতিমালা করছে ইউজিসি

বার্তাকক্ষ দেশে নতুন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের পর অনুমোদন ছাড়া শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করার বিষয়ে একটি...

সামাজিক মাধ্যম ব্যবহারে প্রাথমিক শিক্ষকদের জন্য ৮ নির্দেশনা

বার্তাকক্ষ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারে প্রাথমিকের সব কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং শিক্ষকদের সতর্ক করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই)।...

নিজস্ব প্রতিবেদক

মণিরমাপুরের ভরতপুর গ্রামের একরামুল ইসলাম হত্যা মামলায় হেলাল উদ্দিন আদালতে স্বীকারোক্তি জবানবন্দি দিয়েছে। মামীর সাথে পরোকীয়া করায় মামা কামরুল ও আমিনুর রহমান পরিকল্পিতভাবে এমরামুলকে হত্যা করেছিল। এমরামুলের লাশ গুম করতে সহযোগিতা করেছিল জানিয়েছে হেলাল উদ্দিন। বৃহস্পতিবার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রে পলাশ কুমার দালাল আসামির এ জবানবন্দি গ্রহণ শেষে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন। হেলাল উদ্দিন ষোলখাদা গ্রামের আবু কালাম দফাদারের ছেলে।
হেলাল উদ্দিন জানিয়েছেন, তার মামা কামরুলের স্ত্রীর সাথে একরামুলের পরকীয়া ছিল। একরামুল নিষেধ করলেও বিষয়টি সে কর্ণপাত করে না। চলতি বছরের ২৮ মার্চ রাতে তার মামা আমিনুর রহমান ও কামরুল ইসলাম ফোন করে একরামুলকে হত্যার বিষয়টি তাকে জানায়। এরপর তারা একরামুলের লাশ বস্তায় ভরে মোটরসাইকেলে তার গ্রামের নিয়ে যায়। এরাতে তারা তিনজন মদনপুর শৈলীর মাঠের একটি পুকুর পাড়ে গর্ত করে একরামুলের লাশ মাটি চাপা দিয়ে রেখে ছিল বলে জানিয়েছে।
মামলার অভিযোগ জানা গেছে, চলতি বছরের ২৮ মার্চ রাতে একরামুল নিখোঁজ হয়। এ ব্যাপারে থানায় জিডি করা হলে পিবিআই ৩০ মার্চ কামরুল ও তার ভাই আমিনুর রহমানকে আটক ও তাদের স্বীকারোক্তিতে ইকরামুলের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ব্যাপারে নিহতের চাচা আসাদুজ্জামান আটক দুইজনসহ ৭ জনের নাম উল্লেখসহ অপরিচিত ব্যক্তিদের আসামি করে মণিরামপুর থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআই’র এসআই সৈয়দ রবিউল ইসলাম আটক দুইজনকে আদালতে সোপর্দ করলে হত্যার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেয়। আসামিদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে হেলালকে আটক ও রিমান্ড শেষে বৃহস্পতিবার আদালতে সোপর্দ করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। হেলাল নিহত একরামুলের লাশ গুমের ব্যাপারে দুই মামাকে সহযোগিতা করেছিল বলে জানিয়েছে।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

সাপের কামড়ে যুবকের মৃত্যু

হুমায়ুন কবির, কালীগঞ্জ : ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার কোলা ইউনিয়নে সাপের কামড়ে সুব্রত কুমার (২১) নামে...

অভয়নগরে কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরি আরো ৪৩টি চুল্লি গুঁড়িয়ে দিল প্রশাসন

নিজস্ব প্রতিবেদক, অভয়নগর : অভয়নগরে কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরি ও পরিবেশ দূষণ করায় আরো ৪৩টি...

খানা-খন্দে ভরা যশোর-খুলনা মহাসড়কে রক্তের দাগ শুকাচ্ছেনা হারুন-অর-রশীদ, অভয়নগর : যশোর-খুলনা মহাসড়কের অভয়নগরের ৮ কিলোমিটার অংশের...