Friday, October 7, 2022
হোম জাতীয়পদ্মাপাড়ে সাজসাজ রব, নিরাপত্তা জোরদার

পদ্মাপাড়ে সাজসাজ রব, নিরাপত্তা জোরদার

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

শেষ বিশ্বকাপের আগে নার্ভাস মেসি

বার্তাকক্ষ বিদায়ের রাগিনী শুনিয়ে দিলেন লিওনেল মেসি। কাতারেই শেষ বিশ্বকাপ খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আর্জেন্টিনা অধিনায়ক।...

মন ভেঙে গেলে শরীরে যা ঘটে

বার্তাকক্ষ হৃদয় তারাই ভাঙে, যারা হৃদয়ের সবচেয়ে কাছে থাকে। কারণ দূর থেকে কোনোকিছু ভাঙা সহজ...

টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

বার্তাকক্ষ গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা...

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করবে যে ৫ পানীয়

বার্তাকক্ষ কোষ্ঠকাঠিন্যে আক্রান্ত ব্যক্তিই এর কষ্ট সম্পর্কে জানেন। প্রথমে গুরুত্ব না দিলে এটি পরবর্তীতে মারাত্মক...

বার্তাকক্ষ।। সমানে ছিল বহু বাঁধা, নানামুখী চ্যালেঞ্জ আর জল্পনা-কল্পনা। তবে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন থেকে দৃশ্যমান, যান চলাচলের উপযোগী স্বপ্নের পদ্মা সেতু রাতের অন্ধকার বেধ করে এখন আলোকিত। উদ্বোধনের অপেক্ষা আর মাত্র কয়েক ঘণ্টা বাকি। রাত পোহালেই উদ্বোধন হবে স্বপ্নের পদ্মা সেতুর। ঘটবে পদ্মা পাড়ি দিতে যুগ-যুগান্তের ভোগান্তির অবসান।
পদ্মা সেতু নির্মাণে অন্যতম সাক্ষী মুন্সিগঞ্জের মাওয়া পদ্মাপাড়। তাই সেতুর উদ্বোধনের আগ মুহূর্তে মাওয়া এলাকায় আনন্দে উদ্ভাসিত পদ্মাপাড়ের মানুষ। সর্বত্র সাজসাজ রব।
সেতুর উদ্বোধনী ফলক উন্মোচন ও সুধী সমাবেশ হবে মুন্সিগঞ্জের মাওয়া পদ্মা পাড়ে। প্রস্তুত ফলক মঞ্চ। সমাবেশে আমন্ত্রণ পাচ্ছেন ৩ হাজার সুধীজন। এ তালিকায় রয়েছেন মন্ত্রিসভার সদস্য, বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ, বাংলাদেশে অবস্থানরত বিদেশি কূটনীতিক, নির্মাণ সহযোগী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি, দেশের খ্যাতনামা বুদ্ধিজীবী ও সাংবাদিকরা।
সরজমিনে দেখা যায়, অনুষ্ঠানস্থল, ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ে সাজসজ্জায় ভরে উঠেছে। এক্সপ্রেসওয়ে সাজানো হয়েছে বিভিন্ন ব্যানার-ফেস্টুন। পদ্মা সেতুর নির্মাণ করায় স্থানীয় নেতাকর্মীরাও টানিয়েছেন ফেস্টুন। সমাবেশস্থলের দৃষ্টিনন্দন মঞ্চ তৈরিসহ সার্বিক ব্যবস্থাপনার কাজ শেষের পথে।
এছাড়া সেতুর নামফলক ও ম্যুরাল স্থাপনের কাজ প্রায় শেষের পর্যায়ে। অনুষ্ঠানস্থলের আশপাশে সৌন্দর্য বর্ধনের কাজও চলছে পুরোদমে।
এরই মধ্যে পুরো মাওয়া এলাকায় জোরদার করা হয়েছে কয়েক স্তরের নিরাপত্তা বলয়। পুলিশ, র‍্যাব, সেনাবাহিনীর পাশাপাশি কাজ করছে বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। হাইওয়ে পুলিশ, ট্রাফিক পুলিশ, জেলা পুলিশ, আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন, নৌ পুলিশ সবাই একযোগে মোতায়েন রয়েছে। বিভিন্ন পেট্রোলিং ছাড়াও আকাশপথে থাকবে র‍্যাবের হেলিকপ্টারের নজরদারি।
স্থানীয়দের সঙ্গে কথা হলে সবাই জানান উচ্ছ্বাসের কথা। মুন্সিগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি রাসেল মাহমুদ জানান, বহু প্রতীক্ষার অবসান ঘটছে। চারদিকে উৎসবের আমেজ। অপেক্ষা শুধু কালকের দিনের জন্য
স্থানীয় মৎস্য ব্যবসায়ীরা জানান, কখনো ভাবেননি এ নদীতে সেতু হবে। কত কষ্ট করে পার হতো মানুষ। আজকের পর আর থাকবে না কোনো কষ্ট। খুব ভালো লাগছে।
২০০১ সালের ৪ জুলাই পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ১০১৪ সালের নভেম্বরে নির্মাণ কাজ শুরু হয়। দুই স্তর বিশিষ্ট স্টিল ও কংক্রিট নির্মিত ট্রাসের এ সেতুর ওপরের স্তরে চার লেনের সড়ক পথ এবং নিচের স্তরে একটি একক রেলপথ রয়েছে।
পদ্মা-ব্রহ্মপুত্র-মেঘনা নদীর অববাহিকায় ৪২টি পিলার ও ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ৪১টি স্প্যানের মাধ্যমে মূল অবকাঠামো তৈরি হয়। সেতুটির দৈর্ঘ্য ৬.১৫ কিলোমিটার এবং প্রস্থ ১৮ মিটার।
পদ্মা সেতু নির্মাণে মোট খরচ হয় ৩০ হাজার ১৯৩ দশমিক ৩৯ কোটি টাকা। এসব খরচের মধ্যে রয়েছে সেতুর অবকাঠামো তৈরি, নদী শাসন, সংযোগ সড়ক, ভূমি অধিগ্রহণ, পুনর্বাসন ও পরিবেশ, বেতন-ভাতা ইত্যাদি।
বাংলাদেশের অর্থ বিভাগের সঙ্গে সেতু বিভাগের চুক্তি অনুযায়ী, সেতু নির্মাণে ২৯ হাজার ৮৯৩ কোটি টাকা ঋণ দেয় সরকার। ১ শতাংশ সুদ হারে ৩৫ বছরের মধ্যে সেটি পরিশোধ করবে সেতু কর্তৃপক্ষ। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার কাঠামো নির্মাণের ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেড।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

বার্তাকক্ষ গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা...

ডেঙ্গুতে একজনের মৃত্যু, হাসপাতালে ২৪০

বার্তাকক্ষ দেশে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলছে। বাড়ছে মৃত্যুও। গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত...

পদ্মা সেতু পার হতে ১৭ গাড়ির টোল দিলেন শেখ রেহানা

বার্তাকক্ষ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাতে গোপালগঞ্জ যাত্রায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার...