Friday, September 30, 2022
হোম আজকের পত্রিকাকঠোর হতে হবে এই সামাজিক অপরাধের বিরুদ্ধে

কঠোর হতে হবে এই সামাজিক অপরাধের বিরুদ্ধে

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

ইউক্রেনের ৪ অঞ্চলকে নিজের সঙ্গে যুক্ত করছে রাশিয়া

বার্তাকক্ষ রাশিয়া আনুষ্ঠানিকভাবে ইউক্রেনের চারটি অঞ্চলকে নিজের সঙ্গে যুক্ত করার ঘোষণা দিয়েছে। শুক্রবার এই অঞ্চলগুলোকে...

রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যার এক বছরে ক্যাম্পে আরও ২৭ খুন

বার্তাকক্ষ কক্সবাজারের আশ্রয় ক্যাম্পে রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যার এক বছর পূর্ণ হলো বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর)।...

মহেশপুরে ৪০ পিচ সোনার বারসহ ১জন আটক

আব্দুস সেলিম, মহেশপুর ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার যাদবপুর সীমান্ত থেকে ৪০ পিচ সোনার বারসহ শওকত আলী...

ডিমের উৎপাদন খরচ ৬ টাকা, দাম কেন ১৩: কৃষিমন্ত্রী

বার্তাকক্ষ ফার্মের মুরগির ডিমের উৎপাদন খরচ ৫ থেকে ৬ টাকা বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী আবদুর রাজ্জাক।...

স্কুলছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে (৩৫) জীবন দিতে হয়েছে একই স্কুলের বখাটে ছাত্রের হাতে। এ ঘটনা ঘটেছে আশুলিয়া এলাকায়। ঘটনাটি শুধু মর্মান্তিক নয়, উদ্বেগজনকও। জানা গেছে, নিহত উৎপল কুমার সরকার আশুলিয়ার চিত্রশাইল এলাকার হাজি ইউনুস আলী স্কুল এন্ড কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক। প্রতিষ্ঠানটির দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী আশরাফুল ইসলাম জিতুর বিরুদ্ধে এ অভিযোগ। গত শনিবার দুপুরে স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে ওই শিক্ষককে স্টাম্প দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে জিতু। গত সোমবার ভোরে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তিনি মারা যান। শিক্ষক উৎপল স্কুলের শৃঙ্খলা কমিটির সভাপতি ছিলেন। এ সুবাদে তিনি ছাত্রদের বিভিন্ন সময় আচরণগত সমস্যা নিয়ে কাউন্সেলিং করতেন। মেয়েদের ইভটিজিংসহ নানা উচ্ছৃঙ্খল আচরণের কারণে শিক্ষার্থীদের শাসন করতেন উৎপল। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, পূর্ব ক্ষোভ থেকেই এ ঘটনা ঘটতে পারে। ইদানীং বখাটে ছেলেদের বেপরোয়াপনা লক্ষ করা যাচ্ছে সর্বত্র। রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বড় শহরগুলোয় উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে কিশোর অপরাধী-সন্ত্রাসীর সংখ্যা। এসব অপরাধী মাদক ব্যবসা, ছিনতাই, যৌন হয়রানি, ধর্ষণসহ ভয়ংকর অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে। ইভটিজিং নামের সামাজিক ব্যাধিতে সমাজে অন্ধকারের বিস্তার ঘটছে। এ মারাত্মক সামাজিক ব্যাধিতে আক্রান্তরা কতটা নির্মমতার শিকার ও বখাটেরা কতটা নিষ্ঠুর ও নৃশংস হতে পারে, আশুলিয়ার ঘটনাটি সেটাই পুনর্বার স্পষ্ট করে দিয়েছে। অতীতে বখাটেদের উৎপাত থেকে পরিত্রাণ পেতে সিমি, তিথি, রুমা, তৃষা, পিংকিসহ আরো অনেকে বেছে নেয় আত্মহননের পথ। বখাটেদের উৎপাতে ইতোমধ্যে অনেক পরিবারই হারিয়েছে তাদের স্বজনকে। বখাটেরা শুধু মেয়েদের উত্ত্যক্তই করছে না, এরা তাদের মা-বাবা-ভাই, এমনকি শিক্ষককে পর্যন্ত হত্যা করে পৈশাচিক উল্লাস করার নজিরও আমাদের সামনে দাঁড় করিয়ে রেখেছে। ইতোমধ্যে দ্রুত বিচার আইনে ইভটিজিংয়ের অপরাধে কিছু অপরাধী দ-িতও হয়েছে। কিন্তু তারপরও বখাটেদের দৌরাত্ম্য থামছে না। বখাটেপনার এই দৌরাত্ম্য দূর করতে হলে আইনের যথাযথ প্রয়োগের বিকল্প নেই। ঢাকা মহানগর পুলিশ আইনের ৭৬ ধারা অনুযায়ী বখাটেপনার শাস্তি এক বছরের কারাদ- ও দুই হাজার টাকা জরিমানা। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ১০ নম্বর ধারায় যৌন নিপীড়ন ও শ্লীলতাহানির শাস্তি ১০ বছরের কারাদ-। কিন্তু এসব আইনের প্রয়োগ নেই বললেই চলে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দেখা যায়, বখাটেরা এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তিদের সন্তান। এ কারণে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করার সাহস অনেকে পান না। আবার অভিযোগ করলেও হুমকি কিংবা প্রশাসনের অসহযোগিতার কারণে অভিভাবকরা অনেক ক্ষেত্রে পিছিয়ে যান। এই সামাজিক অপরাধ ও অনাচারের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানের কোনো বিকল্প নেই।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

যশোরে ডিবি পুলিশের অভিযানে ফেনসিডিল ও ইয়াবাসহ আটক ৪

নিজস্ব প্রতিবেদক :  যশোরে ডিবি পুলিশের পৃথক অভিযানে ২৮ বোতল ফেনসিডিল ও ১শ ৫ পিস...

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এর ৭৬ তম জন্মদিন উপলক্ষে যশোর আ.লীগের দোয়া অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : বুধবার সকালে যশোর শহরের গাড়িখানা রোডস্থ জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রী...

বাংলাদেশ এখন ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সব মানুষের নিরাপদ আবাসভূমি: এমপি নাসির

নিজস্ব প্রতিবেদক, চৌগাছা : যশোর-২ (চৌগাছা-ঝিকরগাছা) আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর জেনারেল (অবঃ) অধ্যাপক...