Friday, October 7, 2022
হোম অর্থনীতিবিশ্বজুড়ে কৃষিপণ্য উৎপাদন ব্যয় বেড়েছে ১০%

বিশ্বজুড়ে কৃষিপণ্য উৎপাদন ব্যয় বেড়েছে ১০%

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

আজ সব ভুল ক্ষমা করে সুখ উদযাপনের দিন

বার্তাকক্ষ ক্ষমা করা একটি মহৎ গুণ। কাউকে ক্ষমা করার মাঝেও কিন্তু সুখ থাকে। ৭ অক্টোবর...

হাসলেই কমবে ব্যথা, বাড়বে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা

বার্তাকক্ষ হাসলে মন ভালো থাকে, এ কথা সবারই জানা। তবে জানলে অবাক হবেন, হাসলে শুধু...

হেঁটেই হার্ট অ্যাটাক-ক্যানসারের ঝুঁকি কমাবেন যেভাবে

বার্তাকক্ষ শারীরিকি বিভিন্ন জটিল রোগের মধ্যে হার্ট অ্যাটাক, ক্যানসার কিংবা ডিমনেশিয়া অন্যতম। যদিও ভুল জীবনধারার...

স্মার্ট টিভি ব্যবহারে যেসব সতর্কতা মানতে হবে

বার্তাকক্ষ মাঝে মাঝেই বিভিন্ন জায়গায় স্মার্টফোন, হেডফোন এমনকি টিভি বিস্ফোরণের খবরও শোনা যায়। অনেক সময়...

বার্তাকক্ষ
কৃষিপণ্যের বৈশ্বিক বাজারকে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে রাশিয়া-ইউক্রেন সংঘাত। যুদ্ধের প্রভাবে প্রধান প্রধান কৃষিপণ্যের দাম বর্তমানে রেকর্ড সর্বোচ্চে অবস্থান করছে। সারসহ অন্যান্য উৎপাদন উপকরণ ব্যয় আকাশচুম্বী হয়ে উঠেছে। ইউরোস্ট্যাটের এক পরিসংখ্যানে এ তথ্য উঠে এসেছে।
ইউরোস্ট্যাটের দেয়া তথ্যে দেখা গেছে, চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ) কৃষি খাতে ব্যবহূত পণ্য ও সেবার গড় দাম ৯ দশমিক ৫০ শতাংশ হারে বেড়েছে। এর মধ্যে সার ও মাটির উর্বরতা বাড়ানোর উপকরণের দামই বেড়েছে ২১ দশমিক ২০ শতাংশ। এ খাতে ব্যবহূত জ্বালানি ও লুব্রিক্যান্টের দাম বেড়েছে ১৭ দশমিক ৪০ শতাংশ। অন্যদিকে পশুখাদ্যের দাম ৯ দশমিক ২০ শতাংশ বেড়েছে। প্রথম প্রান্তিকে উৎপাদিত কৃষিপণ্যের গড় দাম বেড়েছে ৬ শতাংশ।
রাশিয়া ও ইউক্রেন কৃষিপণ্যের নেতৃস্থানীয় রফতানিকারক দেশ। কিন্তু চলতি বছরের ২১ ফেব্রুয়ারি রাশিয়া ইউক্রেনে হামলা চালালে কৃষ্ণ সাগর দিয়ে সার ও ভোজ্যতেল রফতানি বাধাগ্রস্ত হয়। ফলে বছরের শুরুর দিকেই গম, সয়াবিন ও ভুট্টার আন্তর্জাতিক বাজারদর রেকর্ড সর্বোচ্চের কাছাকাছি পৌঁছে যায়। রাশিয়া বিশ্বের শীর্ষ সার রফতানিকারক দেশ। অন্যদিকে ইউক্রেন ভুট্টা ও সূর্যমুখী তেল রফতানিতে নেতৃস্থানীয়।
তথ্য বলছে, চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে সার ও মাটির উর্বরতা বর্ধকের দাম গত বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ বেড়েছে। অন্যদিকে জ্বালানি ও লুব্রিক্যান্টের দাম গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৫৫ দশমিক ৬০ শতাংশ বেড়েছে। দানাদার খাদ্যশস্য ও জ্বালানির ঊর্ধ্বমুখী দামের প্রতিফলন দেখা গিয়েছে পশুখাদ্যের দামেও। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় পশুখাদ্যের দাম ২২ দশমিক ৯০ শতাংশ বেড়েছে।
ইউরোস্ট্যাট বলছে, জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত তিন মাসে দানাদার খাদ্যশস্য, তেলবীজ, মাংস ও দুধসহ কৃষিপণ্যের দাম গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ২১ দশমিক ৪০ থেকে ৫১ দশমিক ৪০ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে।
এদিকে ২০২১-২২ মৌসুমে বৈশ্বিক খাদ্যশস্য উৎপাদন আগের মৌসুমের তুলনায় ৩ শতাংশ বাড়ার পূর্বাভাস মিলেছে। উৎপাদন বৃদ্ধিতে প্রধান ভূমিকা পালন করবে গম ও ভুট্টার ঊর্ধ্বমুখী উৎপাদন। সম্প্রতি ইন্টারন্যাশনাল গ্রেইনস কাউন্সিল (আইজিসি) কর্তৃক প্রকাশিত গ্রেইন মার্কেট প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।
আইজিসি বলছে, এ মৌসুমে সরবরাহ বৃদ্ধির হার খাদ্যশস্যের ব্যবহারকে ছাড়িয়ে যাবে। মৌসুমের শেষ নাগাদ প্রাক্কলিত মজুদের পরিমাণ দাঁড়াবে ৬০ কোটি ৭০ লাখ টনে, যা আগের মৌসুমের তুলনায় ১ শতাংশ বেশি। ২০১৬-১৭ মৌসুমের পর এবারই প্রথম মজুদ বাড়তে যাচ্ছে।
আইজিসির প্রাক্কলন অনুযায়ী, ২০২১-২২ মৌসুমে রেকর্ড খাদ্যশস্য উৎপাদন হবে। উৎপাদনের পরিমাণ দাঁড়াবে ২২৯ কোটি টনে, যা ২০২০-২১ মৌসুমে উৎপাদিত ২২২ কোটি টন খাদ্যশস্যের চেয়ে বেশি।
তবে উৎপাদন উপকরণ যে হারে বাড়ছে তাতে কৃষকরা লোকসানের আশায় উৎপাদন কমিয়ে দিতে পারেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে তারা বিকল্প পণ্যের দিকে ঝুঁকতে পারেন। পাশাপাশি খাদ্যশস্যের দাম আরো বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে। তবে এ পরিস্থিতি কত দিন স্থায়ী তা নির্ভর করছে যুদ্ধের ওপর।
২০২১-২২ মৌসুমে খাদ্যশস্যের বৈশ্বিক রফতানি পূর্বাভাস কমিয়েছে আইজিসি। সংস্থাটি বলছে, মৌসুম থেকে রফতানির পরিমাণ ৪১ কোটি ৭০ লাখ টনে উন্নীত হতে পারে, যা আগের মৌসুমের তুলনায় ২ শতাংশ কম। আইজিসির প্রক্ষেপণ অনুযায়ী, ২০২২-২৩ মৌসুমে খাদ্যশস্যের বাণিজ্য আরো কমে ৪০ কোটি ৫০ লাখ টনে নামতে পারে।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

চিনির দাম বাড়লেও কমেনি তেলের

বার্তাকক্ষ চিনিতে ৬ টাকা বাড়িয়ে ও পাম তেলে ৮ টাকা কমিয়ে নতুন দর নির্ধারণ করে...

দাম কমলো পাম তেলের, বেড়েছে চিনির

বার্তাকক্ষ পাম তেলে লিটারে কমলো ৮ টাকা, আর চিনি কেজিতে বাড়লো ৬ টাকা। আগামীকাল শুক্রবার...

গ্রাহকদের টাকা ফেরত দেওয়া নিয়ে যা জানালো ইভ্যালি

বার্তাকক্ষ আলোচিত ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালি প্রায় এক বছর বন্ধ থাকার পর তাদের কার্যক্রম আবার শুরু...