Thursday, October 6, 2022
হোম জাতীয়সাগরে নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও নদীতে ইলিশ নেই

সাগরে নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও নদীতে ইলিশ নেই

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

সংশ্লিষ্টদের দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে হবে

কিছু উন্নয়ন প্রকল্প ধীর গতির কারণে জনভোগান্তি চরমে উঠেছে। এছাড়া অপরিকল্পিত খোঁড়াখুঁড়ি তো চলছে।...

কেশবপুরে কৃষকলীগের পূজা মণ্ডপ পরিদর্শন

সোহেল পারভেজ, কেশবপুর কেশবপুর উপজেলার বিভিন্ন পূজা ম-প পরিদর্শন করেছেন কৃষকলীগে নেতৃবৃন্দ। মঙ্গলবার সংগঠনের উপজেলা,...

দেবহাটায় জাতীয় কন্যা শিশু দিবস উদ্যাপন

দেবহাটা প্রতিনিধি : ‘সময়ের অঙ্গীকার কন্যা শিশুর অধিকার’ প্রতিপ্রাদ্য নিয়ে দেবহাটায় জাতীয় কন্যাশিশু দিবস উদ্যাপন...

শার্শায় ভুল মানুষের দ্বারা রাজনীতি পরিচালিত হওয়ায় প্রকৃত নেতাকর্মীরা অত্যাচার জুলুম নির্যাতনের শিকার : আশরাফুল আলম লিটন

বেনাপোল প্রতিনিধি : যশোর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বেনাপোল পৌরসভার সাবেক মেয়র আশরাফুল...

বার্তাকক্ষ
মৎস্য অধিদপ্তরের ঘোষণা অনুযায়ী গত ১ জুলাই থেকে নদীতে ইলিশ ধরতে শুরু করেছেন জেলেরা। তবে সাগরে ইলিশ ধরার ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা এখনো চলছে, যা শেষ হবে আগামী ২৩ জুলাই।
অনুকূল পরিবেশ ও নদীর পানি বাড়লেও আষাঢ়ের শুরুতে জালে উঠছে না ইলিশ। মৎস্যজীবীদের দাবি, কালেভদ্রে দু-একটা ইলিশ মিলছে নদীর মোহনা থেকে।
কিন্তু অন্য বছর এই সময়ে বেশ ভালো ইলিশ উঠতে শুরু করে।
জেলেরা বলছেন, বর্ষার বৃষ্টি আর সিলেটের বন্যার কারণে দক্ষিণাঞ্চলের নদ-নদীতে ইলিশের বিচরণ বাড়ার কথা। বরিশালসহ পুরো উপকূলীয় অঞ্চলে এখন বৃষ্টি। এই ‘ইলশেগুঁড়ি’ বৃষ্টিতেও ইলিশ নেই নদীতে।
স্থানীয় মৎস্যজীবীদের রুটিরুজির ঠিকানা বলতে মেঘনাসহ আশপাশের নদী। সারা বছরই কিছু মাছ মেলে এই নদী থেকে। ইলিশ ধরায় নিষেধাজ্ঞা থাকলে জেলেরা থাকেন সংকটে। সে সময় সরকারি সহায়তা থাকলেও তা অপ্রতুল। কিন্তু বর্ষাকালে ইলিশের দৌলতেই তাঁদের সারা বছরের পুঁজির জোগানটা হয়।
মেঘনা পারের পাতারহাতের বাসিন্দা মৎস্যজীবী আলী আহমেদ বলেছেন, ‘বছরের অন্য সময় মাছ ধরে কোনোক্রমে পেটের ভাতটা হয়ে যায় আমাদের। আর ইলিশের মৌসুমে ইলিশ ধরে মহাজনের ঋণ শোধের পরও পরিবারের সদস্যদের মুখে হাসি ফোটাতে পারি। এ বছর সেখানেই ঘাটতি পড়েছে। ’
কিন্তু অনুকূল পরিবেশ থাকা সত্ত্বেও ইলিশের দেখা নেই কেন? মেঘনা পারের আরেক মৎস্যজীবী হোসেন আলীর কথায়, ‘সত্যিই আমরা কিছুই বুঝতে পারছি না। কেউ বলছেন, জাটকা (১০ ইঞ্চির কম সাইজের ইলিশ) ধরার বিধি-নিষেধ না মানার ফলেই ভুগতে হচ্ছে। ’
মৎস্য অধিদপ্তর বলছে, মা ইলিশের প্রজনন নিরাপদ করতে প্রতিবছর আশ্বিনের পূর্ণিমার আগে ও পরে মোট ২২ দিন (সেপ্টেম্বরের শেষ সপ্তাহ থেকে অক্টোবরের শেষ সপ্তাহ) ইলিশ ধরা পুরোপুরি নিষিদ্ধ থাকে। এ কর্মসূচির অংশ হিসেবে প্রতিবছর ১ নভেম্বর থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত আট মাস জাটকা ধরা নিষেধ। একই সময়ে ইলিশের ছয়টি অভয়াশ্রমের মধ্যে একটিতে ডিসেম্বর ও জানুয়ারি এবং অন্য পাঁচটিতে মার্চ ও এপ্রিল মাসে ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ করা হয়।
মৎস্য অধিদপ্তরের বিভাগীয় পরিচালক আনিচুর রহমান তালুকদার জানান, ১ জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অভ্যন্তরীণ নদ-নদীতে ইলিশ ধরায় কোনো বিধি-নিষেধ থাকে না। বর্ষা মৌসুমের এ সময়েই নদ-নদীতে সবচেয়ে বেশি ইলিশ ধরা পড়ে।
তিনি আরো বলেন, উপকূলের জেলেপাড়া ও ইলিশ মোকামগুলো এ সময়ে থাকে মুখর। মাছ ধরার জন্য জুনের মধ্যভাগ থেকে প্রস্তুতি নিতে শুরু করেন জেলেরা। তবে সাগরে ইলিশ ধরার ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষ হবে আগামী ২৩ জুলাই। তখন সাগর-নদী উভয় স্থানেই ইলিশ ধরা যাবে।
বরিশালের মৎস্য সম্প্রসারণ কর্মকর্তা (ইলিশ) বিমল চন্দ্র দাস বলেন, সাগরে বেশির ভাগ ইলিশের পেটে এখন ডিম। আগামী মাস থেকে ডিম ত্যাগ করতে নোনাপানি ছেড়ে ইলিশ মিঠাপানি, অর্থাৎ নদীর দিকে ছুটবে। তখনই নদ-নদীতে বেশি ইলিশ পাওয়া যাবে।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

জাতীয় গ্রিডে বিপর্যয়, বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন ঢাকা-চট্টগ্রামসহ ৪ বিভাগ

বার্তাকক্ষ জাতীয় গ্রিডের একটি সঞ্চালন লাইনে বিভ্রাট দেখা দেওয়ায় ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট ও খুলনার আংশিক...

হাইকোর্টে ডেথ রেফারেন্সের দ্বিতীয় দিনের শুনানি আজ

বার্তাকক্ষ একুশে পদকপ্রাপ্ত প্রবীণ ফটো সাংবাদিক আফতাব আহমেদকে হত্যার ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় ডেথ রেফারেন্স...

পুলিশে গ্রুপিং থাকলে তথ্য দিন: আইজিপি

বার্তাকক্ষ পুলিশের নতুন মহাপরিদর্শক (আইজিপি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন বলেছেন, ‘পুলিশের মধ্যে কোনও গ্রুপিং থাকলে...