Friday, December 2, 2022
হোম জাতীয়রাস্তায় পশু জবাই বন্ধ হবে কবে?

রাস্তায় পশু জবাই বন্ধ হবে কবে?

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

অস্ত্রোপচার শেষে ভালো আছেন রুক্ষ্মিণী

বার্তাকক্ষ হাসপাতালে ভর্তি অভিনেত্রী রুক্ষ্মিণী মৈত্র। বুধবার রাতে আচমকাই নায়িকার পোস্ট। হুইলচেয়ারে বসে অভিনেত্রী।...

মেসির নামে গোল…

বার্তাকক্ষ মেসিকে নিয়ে চিত্রনায়িকা পরীমনির পাগলামি নতুন কিছু নয়। এবারো মেসিকে নিয়ে নানা কাণ্ড...

লুকোচুরি খেলার সময় ১০তলা ভবন থেকে পড়ে গেলো শিশু

বার্তাকক্ষ ভারতের পশ্চিমবঙ্গে লুকোচুরি খেলার সময় ১০তলা ভবন থেকে পড়ে অণ্বেষা ঘোষ (৮) নামে...

ব্রাজিলে হঠাৎ বন্যা, পানিবন্দি হাজার হাজার মানুষ

বার্তাকক্ষ প্রবল বৃষ্টিপাতের জেরে ব্রাজিলে আকস্মিক বন্যা দেখা দিয়েছে। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে শত...

রাশেদুল হাসান
প্রতিবছর ঈদুল আজহায় ঢাকার রাস্তা ও অলিগলিতে প্যান্ডেল খাটিয়ে পশু জবাই করা এক নিয়মিত দৃশ্য। এবারের ঈদেও একই দৃশ্য দেখা গেছে। ঈদ ছাড়াও মাংস ব্যবসায়ীরা রাস্তার ওপর কিংবা দোকানের সামনে পশু জবাই করে থাকেন।এতে যেমন একদিকে গরুর স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও স্বাস্থ্যসম্মত পরিবেশে জবাই হয় না, বর্জ্য অপসারণে অসুবিধা হয়, পশুর মূল্যবান অবশিষ্টাংশ যেমন শিং, হাড় সংরক্ষণ হয় না, অপরদিকে রাস্তায় মানুষের চলাচলে ব্যাঘাত ঘটে। ঈদের দিন রবিবার রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করে দেখা যায়, বেশিরভাগ এলাকায় গরু জবাই হচ্ছে রাস্তায় অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে। আর পশুর বর্জ্য রক্ত, গোবর ও প্রস্রাব ইত্যাদি পার্শ্ববর্তী ড্রেনে ফেলা হচ্ছে। এছাড়াও অনেক রাস্তার ওপর প্যান্ডেল খাটিয়ে পশু জবাই করা হয় ও পশুর চামড়া স্তূপ করে রাখা হয়—যা পথচারী ও যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন ঘটায়। জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলেন, পশু জবাইয়ের আগে স্বাস্থ্য পরীক্ষা, কোয়ারেন্টাইনে রাখা, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন পরিবেশে জবাই নিশ্চিত করা জরুরি। অসুস্থ পশুর মাংস খেলে ম্যাডকাউসহ বিভিন্ন রোগ হতে পারে।
রাস্তায় পশু জবাই কমিয়ে আনতে নগর পরিকল্পনাবিদরা চাহিদা মোতাবেক আধুনিক জবাইখানা নির্মাণ ও কোরবানির পশু জবাই করার নির্দিষ্ট স্থান ও জবাই নিশ্চিত করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। নগর পরিকল্পনাবিদ আদিল মুহাম্মদ খান বলেন, নাগরিকদের জন্য কোরবানির পশু জবাইয়ের সুবিধা সংবলিত কিছু জায়গা নির্ধারণ করে দেওয়া উচিত। যেখানে তারা পারিবারিক আবহে পশু জবাই করতে পারবেন।’ নগর পরিকল্পনাবিদ মুহাম্মদ আরিফুল ইসলাম বলেছেন, ‘রাজধানীতে কী পরিমাণ পশু জবাই হয় তার এলাকাভিত্তিক চাহিদা নিরূপণ করে সে মোতাবেক সিটি করপোরেশনের উচিত আধুনিক জবাইখানা নির্মাণ করা। এসব জবাইখানায় স্বাস্থ্য পরীক্ষা, পশুর কোয়ারেন্টিন, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও অন্যান্য সুবিধা থাকবে।’ সিটি করপোরেশন সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের আওতায় কাপ্তান বাজার, হাজারীবাগ, মিরপুর-১১, মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেট ও মহাখালীতে মোট পাঁচটি জবাইখানা আছে। এরমধ্যে কাপ্তান বাজার ও হাজারীবাগের জবাইখানা আধুনিকায়ন কাজের জন্য গত পাঁচ বছর ধরে বন্ধ। আর ২০১৮ সালে সংস্কারের পর চালুই হয়নি মহাখালীর জবাইখানাটি। আর মিরপুর-১১ ও মোহাম্মদপুরের জবাইখানা দুটি খুবই ছোট এবং এর সক্ষমতাও খুবই কম। এছাড়া, মিরপুর-১ ও গুলশান-১-এর জবাইখানা দুটি বন্ধ করে দিয়েছে সিটি করপোরেশন। এ বিষয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘গাবতলী পশুর হাটের পাশে কীভাবে আধুনিক জবাইখানা করা যায়—সে চিন্তা আছে। যারা জবাইখানা বিশেষজ্ঞ তাদের মাধ্যমে মিরপুর গরুর হাটের পাশে আধুনিক জবাইখানা তৈরি করা যায় কিনা—এটি নিয়েও ঈদের পর থেকে কাজ শুরু করবো। এখন সময় এসেছে আধুনিক জবাইখানা নির্মাণের।’ তিনি বলেন, মোহাম্মদপুর বা মিরপুরে যেটা আছে, সেটা আধুনিক জবাইখানা না, সেটি সেকেলের জবাইখানা। এই সেকেলে জবাইখানা দিয়ে বর্তমান যুগে টিকে থাকতে পারবো না। আমরা আউটসোর্সিং চাই। আমরা জায়গা দেবো, তারা স্পেশালিস্ট নিয়ে আসবে। এভাবে একটি আধুনিক জবাইখানা করতে চাই। বিশ্বে কী ধরনের জবাইখানা আছে সেসব জবাইখানা দেখে কতটুকু জায়গা লাগে সব দেখতে হবে। আধুনিক জবাইখানায় আগের দিন গরু নিয়ে এসে রাখতে হয়, সেই গরুর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে তারপর জবাইখানায় নিতে হয়। বিদেশে দেখেছি একটা গরুকে কমপক্ষে ৭২ ঘণ্টা জবাইখানায় রাখতে হয়। সবকিছু বিবেচনা করে আমাদের আধুনিক জবাইখানা করতে হবে।’ তবে নগরবাসী পশু জবাইয়ের আধুনিক সুবিধা কবে পারবেন সে বিষয়টি তিনি নিশ্চিত করতে পারেননি।
এ বিষয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস জানিয়েছেন, তারা রাজধানীর হাজারীবাগ ও কাপ্তান বাজার জবাইখানার আধুনিকায়ন শেষে চালু করার উদ্যোগ নিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘এই আর্থিক বছরের মধ্যেই আমরা হাজারীবাগের আধুনিক জবাইখানাটি চালু করার চিন্তা-ভাবনা করছি। এটা ইজারাভিত্তিক দেবো। সেই প্রক্রিয়া আমরা নিচ্ছি। ইজারা হয়ে গেলে হাজারীবাগেরটা চালু হয়ে যাবে। এরপর আমরা অঞ্চলভিত্তিক কার্যক্রম ত্বরান্বিত করবো।’ তিনি আরও বলেন, ‘কাপ্তান বাজারের আধুনিক জবাইখানা চালু হলে ঢাকার শহরের জবাইখানার চাহিদা পূরণ করা যাবে।’

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

রেমিট্যান্স অর্জনে সপ্তম বাংলাদেশ: বিশ্ব ব্যাংক

বার্তাকক্ষ: গত বছর প্রবাসী আয় থেকে বাংলাদেশ রেমিট্যান্স অর্জন করেছিল ২২ বিলিয়ন ডলার। চলতি বছর...

প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগের পদ সংখ্যা বাড়ছে

বার্তাকক্ষ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে পদ সংখ্যা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক ও...

বিশেষ ক্ষেত্রে বিদ্যুৎ-জ্বালানির দাম নির্ধারণের ক্ষমতা পেলো সরকার

বার্তাকক্ষ বিশেষ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) নয়, ভোক্তাপর্যায়ে জ্বালানি তেল, বিদ্যুৎ ও...