Saturday, December 3, 2022
হোম আইন আদালতস্ত্রীর মরদেহ হাসপাতালে ফেলে পালালেন স্বামী

স্ত্রীর মরদেহ হাসপাতালে ফেলে পালালেন স্বামী

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

গাড়ির নিচে নারীকে টেনে নেওয়া: ঢাবির সাবেক শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা

বার্তাকক্ষ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) চাকরিচ্যুত শিক্ষকের প্রাইভেটকারে টেনে নেওয়া রুবিনা আক্তারের মৃত্যুর ঘটনায় শাহবাগ...

পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল নেতার বাড়িতে বিস্ফোরণ, নিহত ৩

বার্তাকক্ষ ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কাঁথিতে এক তৃণমূল নেতার বাড়িতে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার রাতের এ...

বাংলাদেশ কৃষক সংগ্রাম সমিতির নেতার মৃত্যুতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ

নিজস্ব প্রতিবেদক ৩ ডিসেম্বর বাংলাদেশ কৃষক সংগ্রাম সমিতি অভয়নগর থানার একতারপুর গ্রামতলা কমিটির সাবেক সভাপতি...

কোভিডের নতুন ভ্যারিয়েন্টের ঝুঁকি নিয়ে সতর্কতা ডব্লিউএইচওর

বার্তাকক্ষ কোভিড মোকাবিলায় মানুষের সতর্কতা কমে যাওয়া এই ভাইরাসের মারাত্মক নতুন ভ্যারিয়েন্ট তৈরি করতে...

বার্তাকক্ষ
গাজীপুরে স্ত্রীর মরদেহ হাসপাতালে ফেলে স্বামী পালিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ওই গৃহবধূর শ্বশুর রামনাথ রাজভরকে (৫৫) আটক করেছে পুলিশ। সোমবার (১১ জুলাই) রাতে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্ত্রীর মরদেহ রেখে পালিয়ে যায় স্বামী। গৃহবধূ বর্ষারাণী রাজভর (১৮) গাজীপুর মহানগরের পশ্চিম বিলাসপুর এলাকার বাদল রাজভরের মেয়ে এবং গাজীপুর বিজ্ঞান কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী। তার স্বামী দীপ্ত রাজভর (২৪) গাজীপুর মহানগরের উত্তর বিলাসপুর এলাকার রামনাথ রাজভরের (৫৫) ছেলে। ওই গৃহবধূর মা লক্ষী নারায়ণ রাজভর অভিযোগ বলেন, প্রেমের সম্পর্কের পর বর্ষারাণী ও দীপ্ত ২০২১ সালের মার্চে বিয়ে করে। বিয়ের পর থেকেই শ্বশুরবাড়ির লোকজন মেয়েকে আমাদের বাড়িতে তেমন আসতে দিতো না। এসএসসি পাসের পর ২০২২ সালে বর্ষাকে গাজীপুর বিজ্ঞান কলেজে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি করানো হয়। বর্ষা আরও লেখাপড়া করুক তা শ্বশুরবাড়ির লোকজন পছন্দ করতো না। বিভিন্ন সময় স্বামী-শাশুড়িসহ যৌতুকের জন্য বর্ষাকে চাপ দিতেন। সর্বশেষ দীপ্তর দাদিকে দিয়ে বর্ষার কাছে নগদ পাঁচ লাখ টাকা ও তিন ভরি স্বর্ণালংকার দিতে বলা হয়। এসব নিয়ে তাদের সংসারে বিভিন্ন সময় কলহ হতো। সোমবার রাত ৮টার দিকে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। আমার মেয়ের শ্বশুর রামনাথ রাত সাড়ে ১০টার দিকে মোবাইল ফোনে জানায় বর্ষা হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েছে। তাকে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে। তাকে দেখার জন্য হাসপাতালে যেতে বলেন তিনি। রাত ১১টার দিকে হাসপাতালে গিয়ে মেয়ের মরদেহ পড়ে থাকতে দেখি। এ সময় স্বামী দীপ্ত কাছে ছিল না। জয়দেবপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোশারফ হোসেন বলেন, বর্ষার কপাল ও গলার নিচে কালো দাগ রয়েছে। দীপ্তর বাবা রামনাথকে সোমবার রাতেই হাসপাতাল চত্বর থেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। স্বামী-শাশুড়িসহ পরিবারের লোকজন ঘরে তালা লাগিয়ে পালিয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন ছাড়া বলা যাবে না এটি হত্যা না আত্মহত্যা। হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক রফিকুল ইসলাম বলেন, মৃত অবস্থায় সোমবার রাত ১১টার দিকে দীপ্ত হাসপাতালে বর্ষার মরদেহ রেখে গেছে।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

গাড়ির নিচে নারীকে টেনে নেওয়া: ঢাবির সাবেক শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা

বার্তাকক্ষ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) চাকরিচ্যুত শিক্ষকের প্রাইভেটকারে টেনে নেওয়া রুবিনা আক্তারের মৃত্যুর ঘটনায় শাহবাগ...

অরিত্রী চলে যাওয়ার চার বছর বাবা-মায়ের হাহাকার, আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তির আশা

বার্তাকক্ষ পরীক্ষায় নকল করার অভিযোগে ডেকে পাঠানো হয় অভিভাবক। তারা স্কুলে গেলে করা হয়...

আদালত থেকে জঙ্গি ছিনতাই: ঈদী আমিন-মেহেদী ফের রিমান্ডে

বার্তাকক্ষ ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) কোর্টের সামনে থেকে দুই জঙ্গিকে ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনায়...