Friday, December 2, 2022
হোম শহর-গ্রামযশোরঅভয়নগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স: নেই নাইট গার্ড, ডাক্তারদের বেতনে পোষা হচ্ছে পরিচ্ছন্নতা কর্মী,...

অভয়নগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স: নেই নাইট গার্ড, ডাক্তারদের বেতনে পোষা হচ্ছে পরিচ্ছন্নতা কর্মী, দালালে সয়লাব

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

বাংলাদেশিদের নিয়ে কটূক্তি, তোপের মুখে বলিউড অভিনেতা পরেশ রাওয়াল

বার্তাকক্ষ বাংলাদেশি ও বাঙালিদের নিয়ে কটূক্তি করে তোপের মুখে পড়েছেন বলিউড অভিনেতা পরেশ রাওয়াল।...

এত নেতা স্টেজে, কর্মী কোথায়: ছাত্রলীগের সম্মেলনে কাদেরের প্রশ্ন

বার্তাকক্ষ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ও উত্তর ছাত্রলীগের যৌথ বার্ষিক সম্মেলনে বক্তব্য দেওয়ার সময় নেতাকর্মীদের...

দ্য ইকোনমিস্টের প্রতিবেদন কার্বন নিরপেক্ষতার প্রতিশ্রুতি ধরে রাখতে পারছে না কাতার

বার্তাকক্ষ ২০০৯ সালে কাতার যখন বিশ্বকাপ ফুটবল স্বাগতিকের খাতায় নাম লিখিয়েছিল তখনই প্রতিশ্রুতি দেয়...

ক্যামেরুনের বিপক্ষে ১০ পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নামবে ব্রাজিল!

বার্তাকক্ষ আগে থেকেই ইনজুরিতে আক্রান্ত নেইমার, দানিলো। সেই তালিকায় যোগ দিয়েছেন অ্যালেক্স সান্দ্রো। গ্রুপ...

হারুন-অর-রশীদ, নিজস্ব প্রতিবেদক
অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ার উপক্রম হয়েছে। হাসপাতালে বেডের সংখ্যা বাড়লেও সে অনুপাতে জনবল না বাড়ায় এবং কতিপয় চিকিৎসকের অমানবিকতায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। ৫০ শয্যার এ হাসপাতালটিতে একজনও নৈশ প্রহরী না থাকায় অরক্ষরিত হয়ে পড়েছে হাসপাতালটি। গভীর রাত অবধি চলছে মাদকসেবি ও বখাটেদের আনাগোনা। ৯ জন পরিচ্ছনতাকর্মী থাকার কথা থাকলেও হাসপাতালটিতে পরিচ্ছন্নতা কর্মী রয়েছে মাত্র ২ জন। বাধ্য হয়ে ৫ জন চিকিৎসক তাদের পকেটের টাকায় ৫ জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী নিয়োগ দিয়ে রেখেছেন। এদিকে কতিপয় চিকিৎসকদের অমানবিক টেস্ট বাণিজ্যের অভিযোগে শাস্তিমূলক বদলি করলেও ক্ষমতার জোরে তারা স্ব-স্থানে বহাল রয়েছেন। অভিযোগ রয়েছে, ক্ষমতাসীন দলের ২ জন শীর্ষ জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় কতিপয় নেতার অব্যাহত তদবিরে তাদের বহাল রাখতে বাধ্য হয়েছেন জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। এদিকে সরেজমিনে অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ঘুরে দেখা গেছে প্রতিটি ডাক্তারের চেম্বারের ভিতরে ও বাইরে ৩/৪ জন করে দালাল নিয়োজিত রয়েছে। ডাক্তারদের এ্যাসিস্ট্যান্ট পরিচয়ে এরা হাসপাতালে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। যদিও এদের প্রত্যেকে কোন না কোন ডায়াগনস্টিক সেন্টারের নিয়োগকৃত বলে সূত্র দাবি করেছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, হাসপাতালটিকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা নওয়াপাড়ার ৮ টি ডায়াগনস্টিক সেন্টারের প্রত্যেকটির সাথে একজন থেকে একাধিক ডাক্তার সংশ্লিষ্ট রয়েছেন। কেউ কেউ হাসপাতালের ডিউটি শেষে এসকল ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চেম্বার করেন আবার কেউ কেউ এসকল প্রতিষ্ঠানের সাথে সরাসরি মালিকানা অংশিদারও রয়েছেন। ফলে রোগীদের ইচ্ছেমত স্ব-স্ব ডায়াগনস্টিক সেন্টারে যেতে বাধ্য করা হচ্ছে বলে অভিযোগ। এমনকি একদিনের জ্বর কিংবা ডায়ারিয়ার রোগী হাসপাতালে আসলেও তাদের প্রথমেই ২ থেকে ৪ হাজার টাকার টেস্ট ধরিয়ে দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ। জানাগেছে, হাসপাতালের প্যাথলজিতে সরকারিভাবে ২৫ প্রকারের টেস্টের সুযোগ থাকলেও এসকল টেস্ট গুলো করাতেও বাইরের ডায়াগনস্টিক সেন্টারে পাঠাচ্ছেন কতিপয় চিকিৎসক। এমনকি ভর্তি রোগীদেরও হাসপাতালে টেস্টের সুযোগ থাকা সত্ত্বেও বাইরের ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে করাতে হচ্ছে। আর এসকল ডায়াগনস্টিক সেন্টার গুলোর নির্দিষ্ট কোন রেট চার্ট না থাকায় যে যার ইচ্ছেমত রোগীদের গলা কাটছে। গত ৮ জুলাই ২১ মাস বয়সী মুস্তাকিন নামে এক শিশু জ্বর ও কাশিতে আক্রান্ত হলে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করেন তার অসহায় মা। হাসপাতালে ভর্তি অবস্থায় তার চিকিৎসা চললেও একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারের প্যাডে লেখা হাসপাতালের জনৈক চিকিৎসকের প্রেসক্রিপশনে তার চিকিৎসা চলতে দেখা যায়। ওই চিকিৎসক শিশুটির জন্য এক্সরে, সিবিসি এণ্ড ইএসআর, ইউরিন আর/এম/ই, ওয়াইডাল টেস্টের পরামর্শ দেন। হাসপাতালে ভর্তি থাকা অবস্থায় তিনি চারটি পরীক্ষাই প্রেসক্রিপশনের প্যাডে উল্লেখিত ডায়াগনস্টিক সেন্টারে করিয়েছেন। যদিও এর মধ্যে তিনটি পরীক্ষার সুযোগ হাসপাতালের প্যাথলজিতে রয়েছে যেখানে তার খরচ হতো মাত্র ২শ’ ৫০ টাকা। অথচ তাকে ২ হাজার টাকা খোয়াতে হয়েছে। এছাড়া তাকে ২শ’৫০ টাকা মূল্যের সেফটন ইঞ্জেকশনসহ অনেক দামি দামি ওষুধ বাইরে থেকে কিনতে হয়েছে। তথাপি ৬ দিনেও তার বাচ্চার জ্বর ভালো না হওয়ায় তিনি মনের দুঃখে রিলিজ নিয়ে মঙ্গলবার সকালে বাড়ি চলে যান। এ অবস্থা মোস্তাকিনের মতো হাজারও রোগীর। যা দেখার কেউ নেই। সার্বিক বিষয়ে অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ ওয়াহিদুজ্জামানের সাথে কথা বললে তিনি এসকল অভিযোগ হাসপাতালটিতে বিদ্যমান রয়েছে যার অনেক কিছু তিনি ওয়াকিবহাল বলে স্বীকার করে অনেকটা অসহায়ত্ব প্রকাশ করেন। তিনি দাবি করেন, এসকল বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার কারনে তিনি নানাভাবে ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছেন। এবং এখনও তাকে নানামুখি বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে। এক প্রশ্নে এ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বলেন, তিনি সকল বিষয় জেলা সিভিল সার্জনকে জানিয়েছেন।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

যশোর মনিরামপুরে কাভার্ডভ্যানের চাপায় ৫ জন নিহত:  তিনঘন্টা যান চলাচল বন্ধ 

জি এম ফারুক আলম/শামমি হোসনে,মণিরামপুর যশোর-সাতক্ষীরা সড়কের মণিরামপুর বেগারীতলা নামক বাজারে এক সড়ক দূর্ঘটনায়...

যশোরে অজ্ঞান পার্টির চার সদস্য আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরে অজ্ঞান পার্টির চার সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাব-৬ যশোরের সদস্যরা। এ সময় তাদের...

সাতক্ষীরায় স্বর্ণের ১৬ বারসহ পাচারকারী আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ সাতক্ষীরার কলারোয়া সীমান্ত দিয়ে ভারতে পাচারকালে ১৬টি স্বর্ণের বারসহ এক যুবককে আটক করেছে...