Friday, October 7, 2022
হোম আজকের পত্রিকাযশোর শহরে ১০৬ স্থাপনার বর্জ্যে ভৈরব নদ দূষণ

যশোর শহরে ১০৬ স্থাপনার বর্জ্যে ভৈরব নদ দূষণ

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

সুপ্রিম কোর্টের নতুন রেজিস্ট্রার জেনারেল গোলাম রব্বানী

বার্তাকক্ষ ঢাকা: সুপ্রিম কোর্টের নতুন রেজিস্ট্রার জেনারেল হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রার মো. গোলাম...

ঝিনাইদহে সুবির হত্যার প্রতিবাদ ও খুনদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন

ঝিনাইদহ সংবাদদাতা ঝিনাইদহ শহরের সেলুন কর্মী সুবির কুমার দাস হত্যার প্রতিবাদ ও খুনদের ফাঁসির দাবীতে...

ঝিনাইদহ জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থীর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আগুন

ঝিনাইদহ সংবাদদাতা ঝিনাইদহ জেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হারুন অর রশিদের ব্যাবসায়ী প্রতিষ্ঠানে আগুন...

যশোরে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত আহত ২

নিজস্ব প্রতিবেদক আজ শুক্রবার সকাল সাড়ে আটটার দিকে যশোর নড়াইল সড়কের হামকুরা ব্রিজের কাছে বেপরোয়া...

প্রতীক চৌধুরী :

ভৈরব নদ খনন কাজ শেষ। খননের পর চেহারা বদলে গেছে নদের। কিন্তু বন্ধ হয়নি নদ দূষণ। যশোর শহর অংশের ১০৬টি বিভিন্ন স্থাপনার বর্জ্য সরাসরি নদে পড়ছে। এতে নদের পানি দূষিত হচ্ছে। নদ দূষণে জড়িত এমন ১০৬টি ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান ও স্থাপনার তালিকা তৈরি করেছে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)। গত সপ্তাহে এই তালিকা পরিবেশ অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছে। দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত প্রক্রিয়া শুরু করবে পরিবেশ তদারকি প্রতিষ্ঠানটি।
পাউবো সূত্র জানায়, ভৈরব নদ দূষণে জড়িত ১০৬ ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান ও স্থাপনার তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। এরমধ্যে রয়েছে, শহরের কাঠেরপুল এলাকার রওশন আরা কাঠের পুল, সদর হাসপাতালের সামনে অসীম ডায়াগনসিন্টক সেন্টার, পপুলার ও ল্যাবজোন ডায়াগনস্টিক সেন্টার এবং কিংস হাসপাতালের সেপটিক ট্যাংক নেই সোয়ারেজ লাইন সরকারি নদীতে সংযুক্ত। গরীবশাহ মাজার সংলগ্ন পৌরসভার ড্রেন, দড়াটানার রাজধানী হোটেল সংলগ্ন পৌরসভার ড্রেন, বাবলাতলা ব্রীজ সংলগ্ন পৌরসভার ড্রেন, যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের পাশে পৌরসভার ড্রেন, লোন অফিস পাড়ার মোহাম্মদ হাবলু, লোন অফিসপাড়ার গরুর খামার, পৌরসভার ড্রেন, পৌরসভার ড্রেন, লিচুতলা ব্রীজ সংলগ্ন পৌরসভার ড্রেন, একই এলাকার জাহাঙ্গীর কাদের, মো. আসলাম, মোহাম্মদ আলী, হাসানুর রহমান, লিচুতলা ব্রীজ সংলগ্ন নদীর বাম পাশে বিস্কুট ফ্যাক্টরি, পৌরসভার ড্রেন, নীলগঞ্জ সাহাপাড়া এলাকার মো. সেলিম, আনিছুর রহমান, মো. নাসিম, সেলিম রেজা, আনোয়ার হোসেন, বাবুল হোসেন, জাহাঙ্গীর মোল্যা, বুলু গাজী, হাবীব, পান্নু শেখ, ফজলে আলী বাবু, মোঃ ইংশুল আলী, রাকিব হোসেন, দাউদ, নীলগঞ্জ সাহাপাড়া নুর মোহাম্মদ সড়কের পৌরসভার ড্রেন, একই এলাকার মহাসিন শেখ, বিকাশ বিশ^াস, পৌরসভার ড্রেন, মোল্লাপাড়ার রিনা, ফজলুর করিম টুটুল, মোল্লাপাড়ার ড্রেন, মোল্লাপাড়ার মাসুম খন্দকার, শফিয়ার, নীলগঞ্জের শাহেব আলী, মাসুম বিশ^াস, মফিজ, ছলেমান, হাফিজুর রহমান, ছাত্তার, ঝুমঝুমপুর নদীর পাড় এলাকার হাসানুর রহমান, আজবাহার মোল্লা, রাশিদা বেগম, ডা. শরিফুল ইসলাম, রনি সর্দ্দার, নারগিছ সামাদ, ফরিদা বেগম, ফারুখ হোসেন, পৌরসভার ড্রেন ঝুমঝুমপুর, ঝুমঝুমপুর নদীর পাড় এলাকার কাজী বুলবুল ঝুমঝুমপুর, বুদ্ধমিয়া হাজী, পৌরসভার ড্রেন, শফি, আলী হোসেন, মাসুদ, পৌরসভার ড্রেন, হেমায়েত শেখ, কাজী আবুল হোসেন, মিজানুর রহমান পৌরসভার ড্রেন, ঝুমঝুমপুর বালিয়াডাঙ্গার রুহুল আমিন, মনিরুজ্জামান, আকরাম হোসেন, শাহাদত ঝুমঝুমপুর, সুবল বাবুর মাছ ফ্যাক্টরি, লালন ভুঁইয়া, ফরিদা, সাইফুল ইসলাম, মাসুদ রানা, কালাম মিয়া আবদুল কাদের, ঝুমঝুমপুর বালিয়াডাঙ্গা মসজিদ, একই এলাকার রাশিদা বেগম, ইকবাল, মিলন হোসেন, সাইফু ইসলাম, ঝুমঝুমপুর বালিয়াডাঙ্গার স্থানীয় ড্রেন, মান্নান শেখ, পৌরসভার ড্রেন, কৃষ্ণ বিশ^াস, জাহাঙ্গীর খান, নীলগঞ্জ তাঁতিপাড়া এলাকার শহিদুল, আফিয়া বেগম, আসকার মুন্সি, সৈয়দ রাশেদুল, মুজিবর বেপারী, সোহেল, আমিরুল মোল্লা, শেখ আব্দুর রহিম, যশোর জেনারেল হাসপাতালের সামনে একতা হসপিটাল, মডার্ন হসপিটাল, রেঁনেসা হসপিটাল, অসীম ডায়াগনস্টিক সেন্টার, স্ক্যান হাসপাতাল, ঘোপ নওয়াপাড়া রোডের স্ক্যান ও ইউনিক হাসপাতালের মাঝের ড্রেন, আর্থোপেডিক্স হাসপাতাল, পপুলার, ল্যাবজোন, দেশ ক্লিনিক, কিংস হাসপাতাল, ঘোপ নওয়াপাড়া রোডের স্বপন সরকার ও মুনছুর আহম্মেদ। এই তালিকায় কয়েকটি হাসপাতালের নাম একাধিকবার উল্লেখ করা হয়েছে পরিবেশ দূষণের ভিন্ন ভিন্ন কারণ উল্লেখ করে।
এ বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড যশোরের নির্বাহী প্রকৌশলী তাওহিদুল ইসলাম বলেন, ভৈরব নদ খনন কাজ সমাপ্ত হয়েছে। বর্তমানে নদের তীরের সৌন্দর্য্যবর্ধন কাজ চলছে। ইতোমধ্যে ভৈরব নদ দূষণকারী ১০৬ ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান ও স্থাপনা চিহ্নিত করে তালিকা তৈরি করা হয়েছে। তালিকাটি পরিবেশ অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছে। পরিবেশ অধিদপ্তর নোটিশ দিয়ে সতর্ক করবে। এরপর নিষেধাজ্ঞা না মানলে পরিবেশ অধিদপ্তর অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। এটা তাদের এখতিয়ার। আমরা শুধু তালিকা প্রস্তুত করে দিয়েছি।
এ বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তর যশোরের উপপরিচালক মো. সাঈদ আনোয়ার বলেন, ভৈরব নদ দূষণকারী ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান ও স্থাপনার তালিকা আজ (রোববার) পেয়েছি। প্রথমে নোটিশ ইস্যু করে সতর্ক করা হবে। এরপর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

 

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

কেশবপুরে কৃষকলীগের পূজা মণ্ডপ পরিদর্শন

সোহেল পারভেজ, কেশবপুর কেশবপুর উপজেলার বিভিন্ন পূজা ম-প পরিদর্শন করেছেন কৃষকলীগে নেতৃবৃন্দ। মঙ্গলবার সংগঠনের উপজেলা,...

দেবহাটায় জাতীয় কন্যা শিশু দিবস উদ্যাপন

দেবহাটা প্রতিনিধি : ‘সময়ের অঙ্গীকার কন্যা শিশুর অধিকার’ প্রতিপ্রাদ্য নিয়ে দেবহাটায় জাতীয় কন্যাশিশু দিবস উদ্যাপন...

শার্শায় ভুল মানুষের দ্বারা রাজনীতি পরিচালিত হওয়ায় প্রকৃত নেতাকর্মীরা অত্যাচার জুলুম নির্যাতনের শিকার : আশরাফুল আলম লিটন

বেনাপোল প্রতিনিধি : যশোর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বেনাপোল পৌরসভার সাবেক মেয়র আশরাফুল...