Wednesday, October 5, 2022
হোম আজকের পত্রিকারাশিয়ার কৃষি ও চিকিৎসাপণ্যে নিষেধাজ্ঞা নেই: যুক্তরাষ্ট্র

রাশিয়ার কৃষি ও চিকিৎসাপণ্যে নিষেধাজ্ঞা নেই: যুক্তরাষ্ট্র

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

সংশ্লিষ্টদের দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে হবে

কিছু উন্নয়ন প্রকল্প ধীর গতির কারণে জনভোগান্তি চরমে উঠেছে। এছাড়া অপরিকল্পিত খোঁড়াখুঁড়ি তো চলছে।...

সিলেটের উইকেট নিয়ে বাংলাদেশ কোচের ক্ষোভ

বার্তাকক্ষ শিরোপার স্বপ্ন নিয়েই নারী এশিয়া কাপে খেলছে বাংলাদেশ। তাও আবার ঘরের মাঠে। প্রথম ম্যাচ...

‘আপনারা হয়তো মনে করছেন আমি এক চোখ নিয়েই খেলতে পারব’

বার্তাকক্ষ ২০২৩ আইপিএল মৌসুমে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুতে ফিরছেন, নিশ্চিত করলেন এবি ডি ভিলিয়ার্স। কিন্তু খেলোয়াড়...

অদ্ভুত কারণে দল থেকে বাদ পড়া আরও ৫ খেলোয়াড়

বার্তাকক্ষ টুর্নামেন্ট বা সিরিজের আগে চোটের কারণে খেলোয়াড়দের দল থেকে ছিটকে পড়ার ঘটনা নতুন কিছু...

সংবাদকক্ষ :

রাশিয়ায় উৎপাদিত কৃষি ও চিকিৎসাপণ্য আমদানিতে কোনো নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়নি বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেজারি বিভাগ। বাংলাদেশে দেশটির দূতাবাসের মাধ্যমে পাঠানো একটি ফ্যাক্ট শিটের মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়। এতে বলা হয়, ‘আমেরিকা রাশিয়া ফেডারেশন সংশ্লিষ্ট সারসহ কৃষিপণ্যের উৎপাদন, বিক্রয়, পরিবহন, কৃষি খাতে ব্যবহৃত যন্ত্রাংশ অথবা ওষুধের ওপর কোনো নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেনি। বরং কৃষিপণ্য, কৃষি যন্ত্রাংশ, ওষুধ এবং চিকিৎসা খাতে ব্যবহৃত যন্ত্রাংশের ক্ষেত্রে লেনদেনের সুবিধার্থে ট্রেজারি বিভাগের ফরেইন অ্যাসেট কন্ট্রোল জেনারেল লাইসেন্স ইস্যু করেছে।’
রাশিয়ায় উৎপাদিত বা রাশিয়া হয়ে আসা সারের ক্ষেত্রেও কোনো নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়নি বলেও জানানো হয়েছে। গত ২৪ এপ্রিল সাবেক রুশ ফেডারেশনভুক্ত ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরু করে রাশিয়া। গত এক দশকেরও বেশি সময় ধরে ইউক্রেন পশ্চিমা শক্তিগুলোর সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা বাড়িয়েছে। তারা পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোতে অন্তর্ভুক্তির আলোচনাও চালিয়ে যাচ্ছিল। এই পরিপেক্ষিতে রুশ অভিযানের তীব্র প্রতিক্রিয়া জানায় যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্ররা। সঙ্গে সঙ্গে রাশিয়ার ওপর জারি হয় অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা। এর আওতায় জ্বালানিও আছে। তবে ইউরোপ আবার রাশিয়ার গ্যাসের ওপর ভীষণভাবে নির্ভরশীল। ইউরোপের দেশগুলোও এই নিধেধাজ্ঞা মানছে না। রাশিয়া থেকে তেল কিনছে ভারতও। রাশিয়া ও ইউক্রেন থেকে বিশেষ করে গম কিনে থাকে বাংলাদেশ। বিপুল পরিমাণ সারও আমদানি হয় রাশিয়া থেকে। যুদ্ধের কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে গমের দাম অনেকখানি বেড়ে যাওয়ার কারণে বাংলাদেশ ভীষণভাবে চিন্তিত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, রাশিয়াকে শায়েস্তা করতে গিয়ে সারা বিশ্বকে কষ্ট দেয়ার মানে হয় না। যুক্তরাষ্ট্রের এই বিবৃতি নিঃসন্দেহে বাংলাদেশের এই উদ্বেগ লাঘবে সহায়তা করবে। এতে বলা হয়, ‘রাশিয়া ও ইউক্রেনের শস্য বিশ্ববাজারে আনার পাশাপাশি যুদ্ধের প্রভাবে বিশ্বের খাদ্যপণ্যের সরবরাহ ও দাম ঠিক রাখতে জাতিসংঘের নেয়া উদ্যোগকে সমর্থন করে যুক্তরাষ্ট্র। কৃষি এবং চিকিৎসা খাতের ব্যবসা আমেরিকার নিষেধাজ্ঞার লক্ষ্যবস্তু নয়।’
তবে রাশিয়া থেকে মাছ ও সি ফুড আমেরিকায় আমদানির ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা দেয়া আছে বলে জানানো হয় দেশটির পক্ষ থেকে। এও বলা হয়, আমেরিকার বাইরে অন্য কোনো দেশে এই পণ্যগুলো আমদানির ক্ষেত্রে বাধা নেই।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

মাতৃপূজা

সুন্দর সাহা মা দুর্গা জ্যোতির্ময়ী জগন্মাতা। তিনি এক কিন্তু বিভিন্নরূপে প্রকাশমানা। ব্রহ্মাদি দেবগণ তাঁর স্বরূপ...

এক জনমেই জন্মান্তর

ড. পরেশ চন্দ্র মণ্ডল : জন্মান্তরবাদ’ হিন্দুধর্মের অন্যতম প্রধান ধারণ স্তম্ভ (জন্মান্তরবাদ ও কর্মফল ওতোপ্রোতভাবে...

মা গো আনন্দময়ী

শ্রী তিলককান্তি সেন দুর্গাপূজা তথা দুর্গোৎসবের আবেদন। বাঙালি হিন্দুর সমাজজীবনে চিরকালীন। তা সে যেখানেই থাকুক...