Friday, September 30, 2022
হোম মুক্ত ভাবনারিকশাচালক রাকিব ও হান্নানের প্রতি শ্রদ্ধা

রিকশাচালক রাকিব ও হান্নানের প্রতি শ্রদ্ধা

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

চাকরির নামে ভুয়া কাগজপত্র তৈরী করায় ৩ জন গ্রেফতার

শাহিনুর রহমান, পাটকেলঘাটা পাটকেলঘাটায় কোয়েষ্ঠ ফার্মা নামে একটি কোম্পানিতে চাকরি দেয়ার নাম করে ভুয়া কাগজপত্র...

মাত্র দু বছরে মৃত্যুর মুখে নদী : খরস্রোতা শোলমারি এখন ৩-৪ মিটারের সরু নালা

খুলনা সংবাদদাতা খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলার বুক চিরে বয়ে গেছে শোলমারি নদী। এর স্রোত ও গভীরতা...

জনগণের ক্ষমতায়নের জন্য দুর্নীতি দূর করতে হবে : বিভাগীয় কমিশনার

খুলনা সংবাদদাতা ‘তথ্য প্রযুক্তির যুগে জনগণের তথ্য অধিকার নিশ্চিত হোক’ এই প্রতিপাদ্য নিয়ে বৃহস্পতিবার (২৯...

তালায় দুধে ভেজাল প্রতিরোধ শীর্ষক আলোচনা

শিরিনা সুলতানা, তালা : সাতক্ষীরার তালায় সামাজিক সম্প্রীতি ও দুধে ভেজাল প্রতিরোধ শীর্ষক আলোচনা সভা...

লীনা পারভীন
চারদিকে এতো এতো অন্ধকারের সংবাদ যে কোথাও কারও জন্য সুন্দর কথা বলার সুযোগটুকু আসে না সহজে। মিথ্যা ফেসবুক স্ট্যাটাস দিয়ে ধর্মীয় অনুভূতির নামে মানুষের ওপর চালানো হচ্ছে আদিম কায়দায় নির্যাতন। ধর্মীয় পরিচয়ে একজন আরেকজনকে ছোট করছে হরহামেশাই। আজকাল আর কেউ কাউকে মানুষ হিসেবে বিবেচনা করতে পারছে না। একজনের বিপদে অন্যজন দূরে দাঁড়িয়ে দৃশ্য দেখে আর না হয় মোবাইলে ভিডিও করে। কারও ঘর জ্বালিয়ে দিলেও এক বালতি পানি নিয়ে এগিয়ে আসে না। এমন অমানিবকতার কালে চট্টগ্রামের রিকশাওয়ালা রাকিব ও হান্নান আমাদের জন্য এক মানবিকতার বার্তা নিয়ে এসেছে। আমরা চাই, সমাজে রাকিব ও হান্নানরা এগিয়ে আসুক। এমন হাজারো রাকিব, হান্নান জেগে উঠুক আমাদের পরিবার ও সমাজের হৃদয়ে যেখানে অপরাধীরা অপরাধ করে বিনা চ্যালেঞ্জে পার পেয়ে যাবে না। আমরা হতাশ হতে চাই না। মানুষের ওপর এখনও বিশ্বাস রাখতে চাই।
জানা যায়, চট্টগ্রাম শহরের বুকে জিইসি মোড়ে মাঝরাতে একজন ৩০ বছর বয়স্ক নারীকে টেনে রিকশা থেকে নামিয়ে নিয়ে যায় একদল সন্ত্রাসী। অভিযোগ উঠেছে, সেখানে গণধর্ষণের শিকার হয় নারীটি। রিকশা থেকে নারীকে নামিয়ে নিয়ে রিকশাওয়ালাকে চলে যেতে বলে সন্ত্রাসীরা। রিকশাওয়ালার নাম রাকিব। রাকিবের মন এখনও পশু হয়ে ওঠেনি। মনুষ্যত্বের হৃদয় জেগে ওঠে রাকিবের কারণ সেও ওই সন্ত্রাসীদের দলে যোগ দেয়নি। বিপদের আশঙ্কা করেই সে সামান্য দূরে গিয়ে আরেকজন রিকশাওয়ালাকে ঘটনা খুলে বলে। জানা যায়, সেখানে কোনো লোকজন না থাকায় বা সন্ত্রাসীদের সাথে পারবে না জেনেই রাকিব নিজের জীবনের ঝুঁকি হয়তো নেয়নি কিন্তু মাথায় ভাবনা ঢুকে যায় কেমন করে উদ্ধার করা যায়।ঘটনা শুনেই আরেক রিকশাওয়ালা হান্নান তার নিজের ফোন থেকেই ৯৯৯ এ কল দিয়েছিল। আর সেই কলেই পাশ্ববর্তী থানা থেকে পুলিশ এসে ভিকটিমকে উদ্বার করে এবং উপস্থিত ছয়জনের মধ্যে তিনজনকে গ্রেফতার করে। বাকি তিনজন পালিয়ে গেলেও পরে তাদেরও গ্রেফতার করে বলে সংবাদে জানা গেছে। ঘটনা গণমাধ্যম মারফত আমরা কমবেশি সবাই জেনে গেছি। এই যে দুজন রিকশাওয়ালা এই দেশের উচ্চশিক্ষিত নাগরিকদের চেয়েও বেশি দায়িত্বের পরিচয় দিলো এ ঘটনাটি অনেকের কাছে কিছুই মনে না হলেও আমার কাছে অনেক বড় কিছু। প্রশ্ন যদি করেন কেন আমি এ ঘটনাকে বড় মনে করছি তাহলে চলেন একটু নিকট অতীতে ঘুরে আসি। বড় কোনো ঘটনায় হাঁটাবো না আপনাদের। মনে করেন তো, ২০১৯ সালের এই জুলাই মাসেই উত্তর বাড্ডায় পিটিয়ে মেরে ফেলা রেনুর কথা। কী ঘটেছিল, কারা ঘটিয়েছিল। আশপাশের মানুষ তখন কী করছিল বা স্কুলের শিক্ষকরাই বা কী ভূমিকা রেখেছিল সেদিন। ভুলে গেলে আবার বলি। সেদিন রেনু তার সন্তানদের ভর্তির বিষয়ে খোঁজখবর নিতে গিয়েছিল। কিন্তু গুজব ছড়ানো হলো সে একজন ছেলেধরা। স্কুল কর্তৃপক্ষ তাকে পুলিশে না দিয়ে বা পুলিশকে খবর না দিয়ে স্কুলের ভিতরে আটকে রেখে দিল এবং পরে জনতার মাঝে ছেড়ে দিয়ে মেরে ফেললো। এখানে স্কুলের দায়ও আছে কারণ তারা ঘটনাটি প্রাথমিক পর্যায়েই রুখে দিতে পারতো কিন্তু সে ভূমিকা রাখেনি। আশপাশে মানুষজন দাঁড়িয়ে দেখেছে, কেউ সেই পিটুনিতে অংশ নিয়েছে আবার কেউ ভিডিও করে সামাজিক মাধ্যমে পোস্ট করেছে। এমন অনেক ঘটনা আছে উদাহরণ হিসেবে দাঁড় করানো যাবে, যেখানে মানুষ তার ন্যূনতম মনুষ্যত্বকে কাজে লাগায়নি। প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে অন্যায়ের সাথী হয়েছে।
প্রকাশ্যে নারী নির্যাতন, নারী ধর্ষণের ঘটনাও নেহায়েত কম নয়, যেখানে অন্তত কিছু মানুষ জাগ্রত হলেই বিপদ কাটানো সম্ভব হতো। হয়নি। হয় না। আমাদের সামনে উদাহরণ সৃষ্টি হয় না আজকাল। তাই তো এই আকালের কালে রাকিব ও হান্নানরা আমাদের শিক্ষা দিয়ে যায়। মনে করিয়ে দিয়ে যায় যে চোখের সামনে অন্যায় দেখে যে মেনে নেয় সে মানুষ নয়। উপায় থাকা সত্ত্বেও যে মানুষ অপরাধীকে থামায় না সে সৃষ্টির সেরা জীবের দাবিদার হতেই পারে না। পুলিশের ইমার্জেন্সি নাম্বারটির বিষয়ে কিন্তু আমাদের শিক্ষিত সচেতন মানুষের মাঝেও অজ্ঞতা আছে। তারা নিজেরাও সঠিক জানেন না এই নাম্বারটির ব্যবহার প্রণালি বা জানলেও আছে আস্থাহীনতা। এই আস্থাহীনতা এসেছে পুলিশ বাহিনীর প্রতি আস্থাহীনতা থেকে। কোন বিপদে সহজেই পুলিশ এগিয়ে আসে না বা কেউ কোনো অভিযোগ নিয়ে গেলে নানা রকম হেনস্তার শিকার হতে হয় বলেই সাধারণ একটা ধারণা আছে। আছে পুলিশের দায়িত্বহীনতার উদাহরণও। এই তো কদিন আগেই নওগাঁয় একজন শিক্ষকের গলায় জুতার মালা পরানো হয়েছিল একদল পুলিশের উপস্থিতিতেই। আমাদের সমাজে নারীরা ঘরে বাইরে নানা ধরনের নিগ্রহের শিকার হচ্ছে প্রতিনিয়ত কিন্তু এর কয়টিতেইবা তারা আইনের আশ্রয় নেয়। নিতে চায় না। এর কারণ কী? কারণ হচ্ছে তারা থানায় গেলেই যে সঠিক বিচারটি পাবে তার নিশ্চয়তার উদাহরণ খুব কম।
তবে এই ৯৯৯ নাম্বারটি নিয়ে এখন পর্যন্ত নেতিবাচক কথা শোনা যায়নি কোথাও। কল করে সাহায্য পাওয়া যায়নি এমন উদাহরণ এখনও সংবাদ মাধ্যমে আসেনি। বরং যারাই যোগাযোগ করেছে তারাই সাহায্য পেয়েছে। কক্সবাজারের সেই নারী ধর্ষণের ঘটনাটিতেও কিন্তু ৯৯৯ এর মাধ্যমেই অপরাধীরা গ্রেফতার হয়েছিল।তাই আমরা চাই, সমাজে রাকিব ও হান্নানরা এগিয়ে আসুক। এমন হাজারো রাকিব, হান্নান জেগে উঠুক আমাদের পরিবার ও সমাজের হৃদয়ে যেখানে অপরাধীরা অপরাধ করে বিনা চ্যালেঞ্জে পার পেয়ে যাবে না। আমরা হতাশ হতে চাই না। মানুষের ওপর এখনও বিশ্বাস রাখতে চাই। বিশ্বাস করতে চাই এই সমাজ অমানুষদের দখলে চলে যায়নি। এখনও কিছু মানুষ আছে যারা মাথা উঁচু করে অন্যায়কে প্রতিরোধ করে।
লেখক: অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট, কলামিস্ট।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

ইডেন কলেজ পরিস্থিতি তারুণ্যের ভাষা বুঝতে ব্যর্থ হয়েছে ছাত্র রাজনীতি

লীনা পারভীন রাজনীতি না থাকলেও দুদিন পরপর আলোচনায় আসে ছাত্র রাজনীতি। আবারও আলোচনায়। এবার প্রেক্ষিত...

নীলকণ্ঠ বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা

আবদুল মান্নান এ’ বছর ২৮ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী, বঙ্গবন্ধুকন্যা ৭৬ বছরে পা রাখবেন। তাঁকে জন্মদিনের...

শেখ হাসিনার জন্মদিন ও বাংলাদেশের পুনর্জন্ম

নাসির আহমেদ বছর ঘুরে কালের প্রবাহে আবার ক্যালেন্ডারের পাতায় উদ্ভাসিত ২৮ সেপ্টেম্বর। প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ...