Friday, October 7, 2022
হোম আন্তর্জাতিকরাশিয়া-ইউক্রেন চুক্তি সই, ফের চালু হচ্ছে শস্য রপ্তানি

রাশিয়া-ইউক্রেন চুক্তি সই, ফের চালু হচ্ছে শস্য রপ্তানি

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

বাসচাপায় যুবলীগ নেতা নিহত: চালক কারাগারে

বার্তাকক্ষ ঢাকা: রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে বাসচাপায় যুবলীগ নেতা ফারুক নিহত হওয়ার ঘটনায় গ্রেফতার বিলাস পরিবহনের চালক...

পদ্মা সেতু দিয়ে টুঙ্গিপাড়ায় গেলেন রাষ্ট্রপতি

বার্তাকক্ষ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাতে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ার উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন...

স্নায়ুযুদ্ধের পর প্রথমবার পারমাণবিক বিপর্যয়ের ঝুঁকিতে বিশ্ব: বাইডেন

বার্তাকক্ষ ইউক্রেনে পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার নিয়ে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ‘তামাশা’ করছেন না বলে সতর্ক...

রাবি অধ্যাপক তাহের খুন: আসামির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর স্থগিত

বার্তাকক্ষ ঢাকা: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ভূ-তত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. এস তাহের হত্যা মামলায়...

বার্তাকক্ষ
কৃষ্ণসাগরের বন্দরগুলো দিয়ে শস্য রপ্তানি ফের চালু করতে চুক্তি করেছে রাশিয়া ও ইউক্রেন। শুক্রবার (২২ জুলাই) ইস্তাম্বুলে তুরস্ক ও জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় সই হয়েছে বহুল প্রত্যাশিত এই চুক্তি। এর ফলে আন্তর্জাতিক বাজারে শস্য সরবরাহে সাম্প্রতিক সংকট কাটবে বলে আশা করা হচ্ছে। এদিন চুক্তি করলেও যুদ্ধরত দুই দেশের প্রতিনিধিরা কেউ কারও সামনাসামনি হননি। বরং পৃথকভাবে চুক্তিপত্রে সই করেছেন তারা। খুব সতর্কতার সঙ্গে এক টেবিলে বসা কিংবা হাত মেলানোর মতো সৌজন্যগুলো এড়িয়ে গেছেন রাশিয়া-ইউক্রেনের প্রতিনিধিরা।
ইউক্রেন বলেছে, তারা শস্য রপ্তানির বিষয়ে রাশিয়ার সঙ্গে কোনো চুক্তি করেনি, করেছে জাতিসংঘের সঙ্গে। তারা আরও জানিয়েছে, চুক্তির অন্যতম শর্ত হলো, জাহাজগুলোতে যখন তল্লাশি চালানো হবে, সেটি যেন তুরস্কের জলসীমায় হয়।এদিন চুক্তির অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান এবং জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। এরদোয়ান বলেছেন, এই চুক্তি বিশ্বের কোটি কোটি মানুষকে দুর্ভিক্ষের মুখে পড়া থেকে বাঁচাবে।জাতিসংঘ প্রধানের মতে, এটি একটি আশার আলো। বলেছেন, রাশিয়া-ইউক্রেনের সম্মতিতে এই চুক্তি বিশ্বকে স্বস্তি দেবে। যুদ্ধরত দুই দেশকে চুক্তিতে রাজি করাতে সহযোগিতায় করায় তুরস্কের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান গুতেরেস। তিনি বলেন, এই প্রক্রিয়ার প্রতিটি পদক্ষেপে আঙ্কারার ভূমিকা ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। জাতিসংঘ প্রধান জানান, এই চুক্তি ইউক্রেনের তিনটি প্রধান বন্দর- ওডেসা, চেরনোমর্স্ক এবং ইউঝনি দিয়ে বিপুল পরিমাণ খাদ্যশস্য রপ্তানির দুয়ার খুলে দিয়েছে। চুক্তি ঠিকভাবে বাস্তবায়িত হচ্ছে কি না তা পর্যবেক্ষণে জাতিসংঘ একটি সমন্বয় কেন্দ্র খুলবে বলেও জানান তিনি।
সূত্র: ব্লুমবার্গ, আল জাজিরা

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

পদ্মা সেতু দিয়ে টুঙ্গিপাড়ায় গেলেন রাষ্ট্রপতি

বার্তাকক্ষ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাতে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ার উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন...

স্নায়ুযুদ্ধের পর প্রথমবার পারমাণবিক বিপর্যয়ের ঝুঁকিতে বিশ্ব: বাইডেন

বার্তাকক্ষ ইউক্রেনে পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার নিয়ে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ‘তামাশা’ করছেন না বলে সতর্ক...

ছোট হচ্ছে প্রশান্ত মহাসাগর, জন্ম নিচ্ছে সুপার মহাদেশ ‘অ্যামেসিয়া’

বার্তাকক্ষ প্রশান্ত মহাসাগর ধীরে ধীরে ছোট হচ্ছে, ফলে জন্ম নিতে চলেছে ‘অ্যামেসিয়া’ নামে একটি নতুন...