Thursday, September 29, 2022
হোম লাইফ স্টাইলকমবয়সীদের মধ্যে বাড়ছে হঠাৎ মৃত্যুর প্রবণতা, যে লক্ষণে সতর্ক হবেন

কমবয়সীদের মধ্যে বাড়ছে হঠাৎ মৃত্যুর প্রবণতা, যে লক্ষণে সতর্ক হবেন

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

ইউক্রেনের ৪ অঞ্চলকে নিজের সঙ্গে যুক্ত করছে রাশিয়া

বার্তাকক্ষ রাশিয়া আনুষ্ঠানিকভাবে ইউক্রেনের চারটি অঞ্চলকে নিজের সঙ্গে যুক্ত করার ঘোষণা দিয়েছে। শুক্রবার এই অঞ্চলগুলোকে...

রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যার এক বছরে ক্যাম্পে আরও ২৭ খুন

বার্তাকক্ষ কক্সবাজারের আশ্রয় ক্যাম্পে রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যার এক বছর পূর্ণ হলো বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর)।...

মহেশপুরে ৪০ পিচ সোনার বারসহ ১জন আটক

আব্দুস সেলিম, মহেশপুর ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার যাদবপুর সীমান্ত থেকে ৪০ পিচ সোনার বারসহ শওকত আলী...

ডিমের উৎপাদন খরচ ৬ টাকা, দাম কেন ১৩: কৃষিমন্ত্রী

বার্তাকক্ষ ফার্মের মুরগির ডিমের উৎপাদন খরচ ৫ থেকে ৬ টাকা বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী আবদুর রাজ্জাক।...

বার্তাকক্ষ
একজন সুস্থ ও স্বাভাবিক অল্পবয়সী মানুষ হঠাৎ করেই রহস্যজনকভাবে ঢলে পড়লেন মৃত্যুর কোলে, হাসপাতালে নিতে নিতেই হয়তো তার মৃত্যু ঘটে। চিকিৎসকরাও ঠিক বুঝতে পারলেন না খীভাবে তার মৃত্যু ঘটেছে, তবে ধারণা করলেন, সাডেন কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয়েছে রোগীর।
বর্তমানে এমন ঘটনা প্রায়ই ঘটছে। অল্পবয়সীদের মধ্যে বাড়ছে সাডেন অ্যাডাল্ট ডেথ সিনড্রোম (এসএডিএস বা স্যাডস) এর প্রবণতা।
এ কারণে বিশেষজ্ঞরা ৪০ বছরের কমবয়সীদেরকে নিয়মিত হৃদযন্ত্র পরীক্ষার পরামর্শ দিচ্ছেন। ফিট ও স্বাস্থ্যকর জীবনধারা বজায় রাখা সত্ত্বেও স্যাডস এর কারণে মৃত্যু ঘটতে পারে যে কারো।
এসএডিএস কি? কারা ঝুঁকিতে আছেন?
রয়্যাল অস্ট্রেলিয়ান কলেজ অব জেনারেল প্র্যাকটিশনার্স ‘এসএডিএস’কে হঠাৎ মৃত্যুর কারণ হিসেবে সংজ্ঞায়িত করেছেন, যা যুবকদের মধ্যে অপ্রত্যাশিতভাবে ঘটে।
সাধারণত ৪০ বছরের কমবয়সীদের মধ্যে হঠাৎ মৃত্যু ঘটলে এই শব্দটি ব্যবহার করা হয়, যখন ময়নাতদন্ত মৃত্যুর কারণ জানা যায় না।
বিজ্ঞানী ও চিকিত্সকদের মতে, কমবয়সীদের জীবনযাত্রা যতই স্বাস্থ্যকর হোক না কেন তাদের হার্ট পরীক্ষা করা উচিত। অল্পবয়সী, সুস্থ ও সক্রিয় ব্যক্তিদের মধ্যেও ‘এসএডিএস’ এর প্রবণতা লক্ষ্য করা গেছে।
‘এসএডিএস’ এর লক্ষণগুলো কী কী?
পারিবারিক ইতিহাস বা পরিবারের সদস্যের হঠাৎ মৃত্যু, ব্যায়ামের সময় অজ্ঞান হয়ে যাওয়া বা খিঁচুনি, বা হঠাৎ উত্তেজিত হওয়া বা চমকে যাওয়া। এক্ষেত্রে সতর্কতা ছাড়াই হঠাৎ হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে যাওয়া সাধারণ ব্যাপার।
সতর্কীকরণ চিহ্নগুলো যখন দেখা দিলেও তা বেশিরভাগ মানুষেই সাধারণ ভেবে ভুল করেন। আকস্মিক কার্ডিয়াক মৃত্যুর লক্ষণগুলোর মধ্যে আছে- মূর্ছা যাওয়া (সিনকোপ), শ্বাসকষ্ট ও বুকে ব্যথা।
অল্পবয়স্কদের মধ্যে হঠাৎ কার্ডিয়াক মৃত্যু কতটা সাধারণ?
আকস্মিক কার্ডিয়াক মৃত্যুর বেশিরভাগই বয়স্ক প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে ঘটে, বিশেষ করে যাদের হৃদরোগ আছে। আর হঠাৎ কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট তরুণদের মৃত্যুর প্রধান কারণ।
৫ জনের মধ্যে অন্তত ১ জন হার্ট অ্যাটাকের রোগীর বয়স ৪০ বছরের কম হয়ে থাকে। এছাড়া ২০ বা ৩০ বছরের প্রথম দিকে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকিও বেশি থাকে।
যুবকদের হঠাৎ কার্ডিয়াক মৃত্যুর কারণ কী হতে পারে?
হৃৎপিণ্ডে একটি ত্রুটিপূর্ণ বৈদ্যুতিক সংকেত প্রায়ই হঠাৎ কার্ডিয়াক মৃত্যুর জন্য দায়ী। খুব দ্রুত হৃদস্পন্দনের সময়, হৃৎপিণ্ডের নিচের প্রকোষ্ঠগুলো (ভেন্ট্রিকল) রক্ত পাম্প করার পরিবর্তে অকেজোভাবে কাঁপতে থাকে। হৃৎপিণ্ডের অনিয়মিত ছন্দকে ভেন্ট্রিকুলার ফাইব্রিলেশন বলা হয়।
৩৫ বছরের কমবয়সী সুস্থ ব্যক্তির হঠাৎ কার্ডিয়াক অ্যারেস্টে মৃত্যু অত্যন্ত বিরল। এই অবস্থা নারীদের তুলনায় পুরুষদের মধ্যে বেশি দেখা যায়। যদিও অল্পবয়স্কদের মধ্যে আকস্মিক মৃত্যু বিরল, তবে যারা ঝুঁকিতে আছে তাদের অবশ্যই সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।
সূত্র: বোল্ডস্কাই

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

চিকেন পেঁয়াজু তৈরির রেসিপি

বার্তাকক্ষ মুরগির মাংস দিয়ে ঝটপট তৈরি করা যায় অনেক রকমের নাস্তা। চিকেন পেঁয়াজু তার মধ্যে...

পূজার ৫ জনপ্রিয় খাবার

বার্তাকক্ষ পূজা মানেই মজার সব খাবারের আয়োজন। খাবার ছাড়া কি আর উৎসবের আনন্দ গাঢ় হয়!...

কফি পানে শরীরে যা ঘটে

বার্তাকক্ষ সকালে ঘুম থেকে উঠেই চা বা কফির কাপে চুমুক দিতে পছন্দ করেন অনেকেই। আবার...