Friday, September 30, 2022
হোম আজকের পত্রিকাযশোরে এক দশকে মাদক ছেড়ে সুস্থ জীবনে সহস্রাধিক যুবক

যশোরে এক দশকে মাদক ছেড়ে সুস্থ জীবনে সহস্রাধিক যুবক

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

চাকরির নামে ভুয়া কাগজপত্র তৈরী করায় ৩ জন গ্রেফতার

শাহিনুর রহমান, পাটকেলঘাটা পাটকেলঘাটায় কোয়েষ্ঠ ফার্মা নামে একটি কোম্পানিতে চাকরি দেয়ার নাম করে ভুয়া কাগজপত্র...

মাত্র দু বছরে মৃত্যুর মুখে নদী : খরস্রোতা শোলমারি এখন ৩-৪ মিটারের সরু নালা

খুলনা সংবাদদাতা খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলার বুক চিরে বয়ে গেছে শোলমারি নদী। এর স্রোত ও গভীরতা...

জনগণের ক্ষমতায়নের জন্য দুর্নীতি দূর করতে হবে : বিভাগীয় কমিশনার

খুলনা সংবাদদাতা ‘তথ্য প্রযুক্তির যুগে জনগণের তথ্য অধিকার নিশ্চিত হোক’ এই প্রতিপাদ্য নিয়ে বৃহস্পতিবার (২৯...

তালায় দুধে ভেজাল প্রতিরোধ শীর্ষক আলোচনা

শিরিনা সুলতানা, তালা : সাতক্ষীরার তালায় সামাজিক সম্প্রীতি ও দুধে ভেজাল প্রতিরোধ শীর্ষক আলোচনা সভা...

নিজস্ব প্রতিবেদক :
নাঈম হোসেনের বয়স তখন মাত্র ১২ বছর। বন্ধুদের পাল্লায় পড়ে এ বয়সেই ধুমপান শুরু করেছিলা। এরপর জড়িয়ে পড়ে মাদক সেবনে। মদ, গাঁজায় আসক্ত হয়ে এই তরুণ আর মাধ্যমিকের গন্ডি পার হতে পারেনি। পরবর্তীতে তার পরিবার চিকিৎসা করিয়ে অনেক চেষ্টার পর স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে এনেছেন। কিন্তু কিশোর বয়সেই থেমে যায় তার বড় হওয়ার স্বপ্ন।
মাদকের ছোবলে তছনছ হয়ে গিয়েছিল যশোরের রাজুর সংসার। প্রায় ২৫ বছর ধরে নেশায় আসক্ত হয়ে পরিবার-সমাজ থেকে দূরে ছিলেন। স্ত্রী ও সন্তানদের কাছ থেকে শুধু দূরেই ছিলেন না; ঈদ আনন্দও উপভোগ করতে পারেননি। এখন তিনি সুস্থ জীবনে। মাদককে নিজেই না বলেন। নাঈম, রাজুর মতো যশোরের খায়রুল, রুবেলসহ অনেকে তাদের স্বপ্নের পৃথিবী সাজিয়েছেন নতুন করে।
শুধু তারাই নন; গত এক যুগে সহ¯্রাধিক মাদকসেবীকে চিকিৎসা করিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে দিয়েছেন যশোরস্থ ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন মাদকাসক্তি চিকিৎসা ও পুনর্বাসন কেন্দ্র (আমিক)। পরিবারের সহায়তায় রিকভারি করা সম্ভব হয়েছে বলে দাবি করেন কেন্দ্রের ম্যানেজার আমিরুজ্জামান।
শনিবার যশোরে চিকিৎসারত মাদকাসক্ত ব্যক্তিদের পরিবারের সদস্যদের নিয়ে এক পারিবারিক সভায় কেন্দ্রের ম্যানেজার আমিরুজ্জামান বলেন, ছয় মাস চিকিৎসা শেষে মাদকমুক্ত জীবনযাত্রায় পরিবারের বিশেষ ভূমিকা থাকে। চিকিৎসার পাশাপাশি পরিবারের সচেনতায় এক দশকে তারা এক হাজার ৭২ জনকে মাদকমুক্ত জীবনে ফিরিয়ে আনতে পেরেছেন। এজন্য প্রতি মাসে তারা পারিবারিক সভার আয়োজন করেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন যশোর সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার ডা. মো. রেহেনাওয়াজ। তিনি বলেন, মাদকাসক্তি চিকিৎসায় পরিবারের ভূমিকা সব থেকে বেশি। চিকিৎসা কেন্দ্র একজন রোগী একটা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত থাকেন, তারপরে সে তার পরিবারে ফিরে যায়। সেখানে যদি রোগী ভালো পরিবেশ ফিরে না পায় তাহলে তার রিকভারি জার্নি দীর্ঘ হয় না। তাছাড়া যারা সমাজে এখন মাদকে আসক্ত বা মানসিক সমস্যাগ্রস্ত তাদেরকে দ্রুত চিকিৎসার আওতায় নিয়ে আসা জরুরি।
সভায় পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপনা করেন আমিক যশোর সেন্টারের মেডিকেল অফিসার ডা. মারুফুজ্জামান মারুফ। আলোচনা করেন যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক এইচআর তুহিন, কাউন্সেলর মাসুদ রানা ও প্রোগ্রামার হাফিজুর রহমান।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

চাকরির নামে ভুয়া কাগজপত্র তৈরী করায় ৩ জন গ্রেফতার

শাহিনুর রহমান, পাটকেলঘাটা পাটকেলঘাটায় কোয়েষ্ঠ ফার্মা নামে একটি কোম্পানিতে চাকরি দেয়ার নাম করে ভুয়া কাগজপত্র...

মাত্র দু বছরে মৃত্যুর মুখে নদী : খরস্রোতা শোলমারি এখন ৩-৪ মিটারের সরু নালা

খুলনা সংবাদদাতা খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলার বুক চিরে বয়ে গেছে শোলমারি নদী। এর স্রোত ও গভীরতা...

তালায় দুধে ভেজাল প্রতিরোধ শীর্ষক আলোচনা

শিরিনা সুলতানা, তালা : সাতক্ষীরার তালায় সামাজিক সম্প্রীতি ও দুধে ভেজাল প্রতিরোধ শীর্ষক আলোচনা সভা...