Friday, October 7, 2022
হোম আইন আদালতহত্যা মামলায় ১২ জনের যাবজ্জীবন

হত্যা মামলায় ১২ জনের যাবজ্জীবন

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

হাসলেই কমবে ব্যথা, বাড়বে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা

বার্তাকক্ষ হাসলে মন ভালো থাকে, এ কথা সবারই জানা। তবে জানলে অবাক হবেন, হাসলে শুধু...

হেঁটেই হার্ট অ্যাটাক-ক্যানসারের ঝুঁকি কমাবেন যেভাবে

বার্তাকক্ষ শারীরিকি বিভিন্ন জটিল রোগের মধ্যে হার্ট অ্যাটাক, ক্যানসার কিংবা ডিমনেশিয়া অন্যতম। যদিও ভুল জীবনধারার...

স্মার্ট টিভি ব্যবহারে যেসব সতর্কতা মানতে হবে

বার্তাকক্ষ মাঝে মাঝেই বিভিন্ন জায়গায় স্মার্টফোন, হেডফোন এমনকি টিভি বিস্ফোরণের খবরও শোনা যায়। অনেক সময়...

র‍্যানসমওয়্যার আক্রমণের আকর্ষণীয় মাধ্যম রিমোট সার্ভিস

বার্তাকক্ষ ক্রেডেনশিয়াল বা ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য হাতিয়ে নেয়ার মাধ্যমে কোনো প্রতিষ্ঠানের নেটওয়ার্কে র‍্যানসমওয়্যার হামলা চালানো...

বার্তাকক্ষ
শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলায় কৃষক সামাদ মাদবর হত্যা মামলায় ১২ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সোমবার (২২ আগস্ট) দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক শেখ মফিজুর রহমান এই রায় দেন।একই সঙ্গে প্রত্যেক আসামিকে ১০ হাজার টাকা করে আর্থিক জরিমানা, অনাদায়ে ছয় মাসের সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন বিচারক। রায়ের সময় আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।
যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন– আজিজুল মাদবর, রফিকুল মৃধা, লিটন মাদবর, মান্নান মৃধা, আবদুল আলিম মাদবর, মফিজ মৃধা, তারন ফরাজী, নুরুল হক মাদবর, জুলহাস মাদবর, আলাউদ্দিন ফকির, আবদুল বারেক মাদবর ও মনির মাদবর। তাদের সবার বাড়ি জাজিরা উপজেলার চরখোরাতলা গ্রামে।
মামলার নথি ও আদালত সূত্রে জানা যায়, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে উপজেলার চরখোরাতলা গ্রামে আজিজুল মাদবর ও মালেক ফকিরের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। তারই জেরে ২০১৪ সালের ১৩ এপ্রিল সংঘর্ষে মালেকের বাবা সাহেব আলী ফকির মারা যান। ১৫ এপ্রিল নিহত সাহেব আলীর ভাগনে মোতালেব মাদবর ৩৪ জনকে আসামি করে জাজিরা থানায় একটি মামলা করেন। এই ঘটনায় থানায় ৪৪ জনকে আসামি করে কাউন্টার মামলা করেন প্রতিপক্ষ আজিজুল মাদবর।
এদিকে, ১৫ সালের ১ অক্টোবর আজিজুলের সমর্থক সামাদ মাদবরকে কে বা কারা হত্যা করে ওই এলাকার ফসলি জমিতে ফেলে রেখে যায়। এ ঘটনায় জাজিরা থানার একটি মামলা হয়। সঠিক তদন্তের জন্য মামলাটি শরীয়তপুর সিআইডিতে হস্তান্তর করা হয়। পরে সিআইডি মামলাটির তদন্ত শেষে জানতে পারে, আসামি আজিজুল মাদবরসহ ১২ জন মিলে আগের মামলার সাক্ষী ও বাদীকে ফাঁসাতে নিজ দলের সমর্থক সামাদ মাদবরকে কুপিয়ে হত্যা করেন।
এ ঘটনায় নিহত সামাদের ছেলে শাহজালাল মাদবর বাদী হয়ে ১২ জনকে আসামি করে জাজিরা থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। ঘটনার সাত বছর পরে সিআইডি দুই বছর ছয় মাস তদন্ত শেষে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। পরে সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক এই রায় দেন।
রায়ের প্রতিক্রিয়ায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) মির্জা হজরত আলী বলেন, ‘আমি মনে করি, এরকম দৃষ্টান্তমূলক সাজা হলে এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি হবে না। আমরা এই রায়ে সন্তুষ্ট।’
আসামিপক্ষের আইনজীবী মো. শাহ আলম বলেন, ‘আমরা ন্যায়বিচার পাইনি বলে মনে করি। আসামিপক্ষ মহামান্য হাইকোর্টে আপিল করবে।’

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

চিনির দাম বাড়লেও কমেনি তেলের

বার্তাকক্ষ চিনিতে ৬ টাকা বাড়িয়ে ও পাম তেলে ৮ টাকা কমিয়ে নতুন দর নির্ধারণ করে...

ফিটনেসবিহীন গাড়ি: বিআরটিএ’র অভিযান নিয়ে প্রশ্ন

বার্তাকক্ষ দেশের এখন ফিটনেসবিহীন গাড়ির সংখ্যা কত এর সঠিক কোনও সংখ্যা নেই সরকারের হাতে। কয়েকটি...

স্নায়ুযুদ্ধের পর প্রথমবার পারমাণবিক বিপর্যয়ের ঝুঁকিতে বিশ্ব: বাইডেন

বার্তাকক্ষ ইউক্রেনে পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার নিয়ে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ‘তামাশা’ করছেন না বলে সতর্ক...