Tuesday, September 27, 2022
হোম সম্পাদকীয়পানিবণ্টন চুক্তিতে তিস্তা গুরুত্ব পাক

পানিবণ্টন চুক্তিতে তিস্তা গুরুত্ব পাক

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

বিদ্যুৎ বিলে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের ইনভয়েস কর চালান হিসেবে গণ্য হবে

বার্তাকক্ষ ভ্যাটের চালান ব্যবহারে উৎসাহ দিলো জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। এখন থেকে গ্রাহকের পরিশোধিত বিদ্যুৎ...

রিসাইক্লিং প্রকল্পে সহায়তা করছে কোকা-কোলা ফাউন্ডেশন

বার্তাকক্ষ ঢাকা শহরের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা উন্নত করতে নানা উদ্যোগ হাতে নিয়েছে ‘দ্য কোকা-কোলা ফাউন্ডেশন’। এই...

সি পার্লের শেয়ারের দাম বাড়ছেই, কাজ হচ্ছে না সতর্কবার্তায়ও

বার্তাকক্ষ সার্বিক শেয়ারবাজারে মন্দাভাব বিরাজ করছে। তবে সাম্প্রতিক সময়ে কয়েকটি কোম্পানির শেয়ারের দাম অস্বাভাবিক হারে...

অনলাইনে ‘ইলিশ’ বিক্রি করে হান্নানের বাজিমাত!

বার্তাকক্ষ ফেনী: মো. আবদুল হান্নান ওরফে এমএ হান্নান। একজন আপাদমস্তক স্বেচ্ছাসেবক।বিপদকালে মানুষকে রক্ত দিয়ে সহায়তা...

অভিন্ন নদীর পানিবণ্টন বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে এক দীর্ঘমেয়াদি অমীমাংসিত ইস্যু। দুই দেশের মধ্যে ১৯৯৬ সালে একমাত্র গঙ্গা নদীর পানিবণ্টনের চুক্তি স্বাক্ষর হলেও তিস্তাসহ আলোচনায় থাকা ৮টি নদীর পানি ভাগাভাগির ব্যাপারে এখনো কোনো সুরাহা হয়নি। গঙ্গা চুক্তির পর আলোচনায় সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পায় তিস্তা নদীর পানি ভাগাভাগির ব্যাপারটি। ২০১১ সালে দুই দেশের মধ্যে তিস্তা চুক্তি স্বাক্ষরের ব্যাপারে সব প্রস্তুতি নেয়া হলেও পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বিরোধিতায় তা সম্পন্ন করা যায়নি। আন্তর্জাতিক নদী হিসেবে ন্যায্য হিস্যা পাওয়ার অধিকার থাকলেও শুকনো মৌসুমে তিস্তার পুরো পানিই ব্যবহার করছে ভারত। তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তিসহ ভারত ও বাংলাদেশের অন্য অমীমাংসিত বিষয়গুলোর দ্রুত সমাধান হবে বলে আশা প্রকাশ করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সূত্র ধরে গতকাল ভোরের কাগজের প্রধান প্রতিবেদনে বলা হয়, নতুন করে আরো ৮টি নদীর পানি ভাগাভাগি করতে আলোচনায় সম্মত হয়েছে বাংলাদেশ ও ভারত। এই ৮টি নদী হচ্ছে- সোনাই, বরদাল, মহানন্দা, হাওড়া, সোমেশ্বরী, যাদুকাটা ও ধলা। সদ্য সমাপ্ত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নয়াদিল্লি সফরে তা উত্থাপিত হলে দুই দেশের মধ্যে এই ৮টি নদীর পানি ভাগাভাগি নিয়ে আলোচনায় রাজি হয় প্রতিবেশী দেশ দুটি। এর ফলে এখন এই ৮টি নদীর পানির বিষয়ে কারিগরি দিক খতিয়ে দেখে পর্যাপ্ত তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে দুই দেশ নদীগুলোর পানি ভাগাভাগি নিয়ে চুক্তি করবে। বিগত বছরগুলোতে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কের ক্ষেত্রে আমূল পরিবর্তন এসেছে। গত ১০ বছরেরও বেশি সময়ে দুদেশের মধ্যে বহুল প্রত্যাশিত বিভিন্ন চুক্তির ফলে সম্পর্কের উচ্চতা ক্রমাগত বেড়েছে। ভবিষ্যতে ভারতের সঙ্গে অমীমাংসিত ইস্যুগুলোর সৌহার্দপূর্ণ সমাধান, নতুন আরো চুক্তি স্বাক্ষরসহ ঢাকা-দিল্লির ঐতিহাসিক বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় পৌঁছাবে বলে আমরা প্রত্যাশা রাখছি। খুব স্বাভাবিকভাবেই তিস্তা নদীর পানিবণ্টন নিয়ে প্রশ্ন আসছে বারবার। ভারতের চাওয়াগুলোর বেশিরভাগ পূরণ হলেও বাংলাদেশের কিছু অপ্রাপ্তি রয়ে গেছে। উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের পানির গুরুত্বপূর্ণ উৎস তিস্তা নদীর পানিবণ্টন চুক্তির অনিশ্চয়তা দূর হয়নি। এক দীর্ঘসূত্রতার পাকে পড়ে গেছে এটি। রাজনৈতিক কারণেই তিস্তা চুক্তিকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। তিস্তার পানি ভারতের একতরফাভাবে আটকে দেয়া আন্তর্জাতিক আইনের স্পষ্ট লঙ্ঘন। আর তিস্তার পানির ন্যায্য হিস্যা আমাদের কাছে করুণা নয় বরং অধিকার। এ অধিকার থেকে আমাদের আর কতদিন বঞ্চিত রাখবেন? ভারতের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও বাংলাদেশের বর্তমান সরকারপ্রধান শেখ হাসিনার আন্তরিক প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ ও ভারতের দীর্ঘদিনের অমীমাংসিত অনেক সমস্যার শান্তিপূর্ণ সমাধান হয়েছে। বিশেষ করে স্থলসীমান্ত ও সমুদ্র সীমানার মতো জটিল বিষয়গুলো বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশে সুষ্ঠু সমাধানের মাধ্যমে বাংলাদেশ ও ভারত প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সম্পর্কের ক্ষেত্রে বিশ্বে নতুন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। দুদেশের জনগণের প্রত্যাশা- তিস্তা চুক্তি সম্পাদনসহ অমীমাংসিত অন্য বিষয়গুলোরও দ্রুত সমাধান হবে। পারস্পরিক সম্মানের ভিত্তিতে দেশ দুটির মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক অটুট থাকুক। দুদেশের মধ্যে অর্থনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক তথা সব ধরনের যোগাযোগ ও সহযোগিতা ক্রমেই জোরদার হোক- এমন প্রত্যাশা করছি।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

কর্তৃপক্ষকেই এর দায় নিতে হবে

সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশের দুর্দান্ত জয়ের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ সর্বস্তরে সাবিনাদের উচ্ছ¡সিত প্রশংসা...

এ অবক্ষয় রোধ করতে হবে

দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের অধীনে চলমান এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের ঘটনায় কেন্দ্র সচিবসহ তিন শিক্ষকের গ্রেপ্তারের...

গ্যাসের দাম সহনীয় রাখুন

সরকার নির্ধারিত দামে বাজারে গ্যাসের সিলিন্ডার মিলছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। জাতীয় ভোক্তা অধিকার...