Tuesday, September 27, 2022
হোম চিত্র বিচিত্রব্যবহৃত কটনবাড, থুতু বিক্রি করে কোটিপতি তরুণী!

ব্যবহৃত কটনবাড, থুতু বিক্রি করে কোটিপতি তরুণী!

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

শিক্ষার্থীদের পার্টটাইম চাকরির সুযোগ দেবে জবি

বার্তাকক্ষ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি): শিক্ষার্থীদের পার্টটাইম চাকরির সুযোগ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি)...

শ্রমিকদের নিরাপত্তা ছাড়াই শাবিপ্রবিতে চলছে নির্মাণ কাজ!

বার্তাকক্ষ বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবিপ্রবি) চলছে কয়েকটি বহুতল ভবনের নির্মাণের কাজ। এসব ভবনে কাজ করছেন শতাধিক নির্মাণ...

নতুন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা কার্যক্রমে নীতিমালা করছে ইউজিসি

বার্তাকক্ষ দেশে নতুন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের পর শিক্ষা কার্যক্রম শুরুর বিষয়ে নীতিমালা করছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয়...

সামাজিক মাধ্যম ব্যবহারে প্রাথমিক শিক্ষকদের যা অনুসরণ করতে হবে

বার্তাকক্ষ জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা ‘সরকারি প্রতিষ্ঠানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার নির্দেশিকা’ অনুসরণের জন্য...

বার্তাকক্ষ
রিসাইকেলিংয়ের ব্যাপারে এখন সবাই কমবেশি জানেন। ফেসবুক-ইনস্টাগ্রামসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পুরোনো বা অব্যবহৃত কাপড় বা আসবাবপত্র বিক্রি করেন। তাতে অন্যরাও অল্পদামে প্রয়োজনীয় কিছু কিনতে পারছেন আবার অনেকে ঘরের অপ্রয়োজনীয় জিনিস বিক্রি করে কিছুটা আয়ও করছেন। তবে এসবের সব কিছু ছাড়িয়েছে গেছেন নথ ক্যারোলাইনার বাসিন্দা ২৮ বছর বয়সি রেবেকা ব্লু। তিনি বেছে নিয়েছেন অদ্ভুত এক পেশা। পেশা না বলে ব্যবসা বলেও ঠিক মানিয়ে যাবে। অব্যবহৃত নয় বরং ব্যবহৃত নোংরা জিনিসপত্র বিক্রি করে কোটিপতি বনে গেছেন এই তরুণী। নিজের পায়ের নখ বিক্রি করেই প্রতি মাসে রোজগার করেন প্রায় ৭-৮ লাখ টাকা। এছাড়াও তার বিক্রির তালিকায় আছে- গোসলের পানি, থুতু, চিবানো খাবার, ব্যবহৃত কটনবাড, প্যান্ট, বগলের লোম, ময়লা জামাকাপড়, আন্ডারওয়্যার পোশাক। এসব তিনি লাখ লাখ টাকায় বিক্রি কর ইনস্টাগ্রামে রেবেকা অত্যন্ত পরিচিত মুখ। জনপ্রিয়ও। তার অনুরাগীর সংখ্যাও অগুণতি। সামনে থেকে দেখতে, তাকে এক বার ছুঁয়ে দেখতে মুখিয়ে থাকেন তার অনুরাগীরা। আর এই জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগিয়েছেন এই তরুণী। সামনে থেকে তিনি ধরা দেন না। কিন্তু তার ব্যবহৃত জিনিস অনুরাগীদের মধ্যে অর্থের বিনিময়ে পৌঁছে দেন তিনি।গৃহকর্মীদের প্রতি রেবেকার কড়া নির্দেশ যাতে এই জিনিসগুলো তারা ফেলে না দেন। মাঝেমাঝে নিজেও গুছিয়ে সযত্নে তুলে রাখেন এই দ্রব্যগুলো। রেবেকা নতুন পোশাক কেনার আগে পুরোনোগুলো বিক্রি করে দেন। তবে বেশিরভাগ সময় সেই পোশাকগুলো থাকে নোংরা। এসব বিক্রি করে যে অর্থ তিনি পান, তা মোটেই নিজের কাজে লাগান না। রাস্তার বিড়াল, সারমেয়দের জন্য সেই অর্থ তিনি খরচ করেন। তিনি বেশ কয়েকটি অবহেলিত কুকুর ও বিড়ালের ফাউন্ডেশন চালান। তাদের পেছনেই ব্যয় করেন এসব অর্থ।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

৯৮ বছর বয়সী গ্র্যাজু্য়েট

বার্তাকক্ষ বলা হয়— শিক্ষার কোনো বয়স নাই। যদিও প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার ক্ষেত্রে একটি নির্দিষ্ট বয়সেই গ্র্যাজুয়েশন...

পানি কি আসলেই আকাশে ওঠে?

বার্তাকক্ষ ভরা বিল থেকে পানি আকাশে উঠে যাচ্ছে! পানি বাষ্প হয়ে শূন্যে মিলিয়ে যায়। সে...

গোঁফ নিয়ে গর্বিত এই নারী

বার্তাকক্ষ গোঁফকে মনে করা হয় পুরুষের গর্ব। তবে শরীরে হরমোনের তারতম্যের কারণে অনেক নারীরও গোঁফ...