Thursday, December 1, 2022
হোম জাতীয়কক্সবাজারে ২৮ হাজার মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে, নিরাপদে গবাদিপশু

কক্সবাজারে ২৮ হাজার মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে, নিরাপদে গবাদিপশু

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

পুতিনের রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধবিরতির সম্ভাবনা দেখছে না ইউক্রেন

বার্তাকক্ষ রাশিয়া ও ইউক্রেনের নেতারা একটি কূটনৈতিক আলোচনার মাধ্যমে ৯ মাস দীর্ঘ যুদ্ধের অবসান...

পাপড়ি-করামত আলী সাহিত্য পুরস্কার পেলেন তানভীর সিকদার

পাপড়ি-করামত আলী সাহিত্য পুরস্কার পেয়েছেন তরুণ কবি তানভীর সিকদার। তার দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ ‘সেফটিপিনে গেঁথে...

১১২ বছরের রেকর্ড ভেঙে দিলো ইংল্যান্ড

বার্তাকক্ষ সব শঙ্কাকে পাশ কাঁটিয়ে নির্ধারিত সময়েই পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামে ইংল্যান্ড। বৃহস্পতিবার (১...

আইজিপির নেতৃত্বে আইনের শাসনের ক্ষেত্র প্রস্তুতের আশা বিএনপি মহাসচিবের

বার্তাকক্ষ ‘রাজনৈতিক নিপীড়নমূলক বেআইনি, মিথ্যা ও গায়েবি মামলা দায়ের বন্ধ করা এবং দায়েরকৃত সব...

বার্তাকক্ষ
কক্সবাজার উপকূলের বাসিন্দাদের নিরাপদে সরিয়ে নিয়েছে জেলা প্রশাসন। সোমবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ২৮ হাজার ১৫৫ জন এবং দুই ৭৩৬টি গবাদি পশুকে নিরাপদ আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি প্রস্তুত রাখা হয়েছে ৫৭৬টি আশ্রয়কেন্দ্র।
সন্ধ্যায় জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘প্রয়োজনে নিরাপদ আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহারের জন্য নিকটবর্তী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহকেও প্রস্তুত রাখা হয়েছে। জনগণের জানমাল রক্ষায় নিরাপদ আশ্রয়কেন্দ্রে স্থানান্তরের কাজ চলমান। এখন পর্যন্ত বড় ধরনের কোনও দুর্ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।’
এদিকে যেকোনো প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার বা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নিয়ন্ত্রণ কক্ষে (ফোন নম্বর: ০৩৪১-৬২২২২, মোবাইল ফোন নম্বর: ০১৮৭২৬১৫১৩২) যোগাযোগ করার জন্য বলেছে জেলা প্রশাসন।জেলা প্রশাসক বলেন, সবার সচেতনতা আমাদের ক্ষয়ক্ষতির ঝুঁকি কমাতে সহায়তা করবে। নিজে নিরাপদ থাকুন, অন্যকে নিরাপদ আশ্রয়ে নিতে সহায়তা করুন।
এর আগে রবিবার বিকালে ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং মোকাবিলায় ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করে জেলা প্রশাসন। দুর্যোগের সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি কমাতে জেলায় ৫৭৬টি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়। যেখানে ছয় লাখ ৫ হাজার ২৭৫ জন মানুষ আশ্রয় নিতে পারবে। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে খোলা হয়েছে ৯টি নিয়ন্ত্রণ কক্ষ। প্রস্তুত রাখা হয়েছে ১০৪টি মেডিক্যাল টিম। এছাড়া মজুত আছে ৩২৩ মেট্রিক টন চাল, ৮ লাখ ২৫ হাজার নগদ টাকা ও এক হাজার ১৯৮ প্যাকেট শুকনো খাবার, ৩৫০ কার্টন ড্রাই কেক, ৪০০ কার্টন ডাইজেস্টিভ বিস্কুট।
সভায় জেলা প্রশাসক মো. মানুনুর রশীদ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের ঝড়ের পূর্বেই মানুষকে নিরাপদে আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেন। প্রত্যেক ইউনিয়নে মেডিক্যাল টিম প্রস্তুতকরণ, পর্যাপ্ত শুকনো খাবার ও খাওয়ার পানি মজুত রাখা, দুর্যোগকালীন ও ঘূর্ণিঝড় পরবর্তী সময়ে উদ্ধার কার্যক্রম চালানোর জন্য ফায়ার সার্ভিস, অ্যাম্বুলেন্স ও স্বেচ্ছাসেবক প্রস্তুত রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে উপকূলের ঝুঁকিপূর্ণ বেড়িবাঁধ পর্যবেক্ষণে রাখা ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেওয়া হয়।
জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় সার্বক্ষণিক পর্যাপ্ত সংখ্যক স্বেচ্ছাসেবক দল, কোস্টগার্ড সদস্য, নৌ-পুলিশ সদস্য, দুই হাজার ২০০ জন রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির স্বেচ্ছাসেবক এবং আট হাজার ৬০০ জন সিপিপি সদস্য প্রস্তুত রয়েছেন
সাইক্লোন শেল্টারে সম্ভাব্য আশ্রয়গ্রহীতাদের জন্য শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা করা হয়েছে। নারী, পুরুষ, অন্তঃসত্ত্বা নারী, শিশু ও প্রতিবন্ধীদের জন্য পৃথক ব্যবস্থা করা হয়েছে।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগের পদ সংখ্যা বাড়ছে

বার্তাকক্ষ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে পদ সংখ্যা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক ও...

বিশেষ ক্ষেত্রে বিদ্যুৎ-জ্বালানির দাম নির্ধারণের ক্ষমতা পেলো সরকার

বার্তাকক্ষ বিশেষ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) নয়, ভোক্তাপর্যায়ে জ্বালানি তেল, বিদ্যুৎ ও...

ডিসেম্বরে শৈত্যপ্রবাহের আশঙ্কা, সাগরে হতে পারে দুটি লঘুচাপ

বার্তাকক্ষ তাপমাত্রা ক্রমেই কমে ডিসেম্বর মাসের শেষার্ধে দেশে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে...