Friday, December 9, 2022
হোম শিক্ষাপরীক্ষার প্রশ্নপত্রে ‘নৈরাজ্য’ বন্ধে ২৪ বিশিষ্টজনের বিবৃতি

পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে ‘নৈরাজ্য’ বন্ধে ২৪ বিশিষ্টজনের বিবৃতি

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

দুরারোগ্য রোগে আক্রান্ত ‘টাইটানিক’ গায়িকা

বার্তাকক্ষ পাঁচবার গ্র্যামিজয়ী গায়িকা সেলিন ডিয়ন দুরারোগ্য রোগ ‘স্টিফ পারসন সিনড্রোম’-এ আক্রান্ত হয়েছেন। এটি...

মার্কিন নিষেধাজ্ঞায় থাকা চীনা হুয়াওয়ের সঙ্গে সৌদি আরবের চুক্তি

বার্তাকক্ষ চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সৌদি আরব সফরে বেইজিং ও রিয়াদ একাধিক কৌশলগত চুক্তি...

কোটচাঁদপুরে বেগম রোকেয়া দিবস পালিত

মঈন উদ্দিন খান, কোটচাঁদপুর মানববন্ধন ও আলোচনা সভার মধ্যদিয়ে কোটচাঁদপুরে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ...

মণিরামপুরে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে শীতবস্ত্র বিতরণ করলেন এস এম ইয়াকুব আলী

নিজস্ব প্রতিবেদক মণিরামপুরে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার পক্ষে নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে...

বার্তাকক্ষ পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে ‘নৈরাজ্য’ বন্ধ করার আহ্বান জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন ২৪ বিশিষ্টজন। শুক্রবার (১১ নভেম্বর) বিবৃতি দেন তারা। বিবৃতিতে বলা হয়, সম্প্রতি মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক ও কারিগরি স্তরের পাবলিক পরীক্ষার সৃজনশীল প্রশ্নপত্রে সাম্প্রদায়িক উসকানিমূলক, নারীর প্রতি অবমাননাকর এবং একজন লেখকের প্রতি বিদ্বেষপ্রসূত ও অবমাননাকর প্রশ্ন সংযোজনের ঘটনা ঘটেছে। এটি অনাকাঙ্ক্ষিত ও অনভিপ্রেত, কোনও অবস্থাতেই এসব মেনে নেওয়া যায় না।
বিবৃতিতে বলা হয়, সৃজনশীল শিক্ষাপদ্ধতিতে শিক্ষক-শিক্ষার্থী সবাইকে সৃজনশীল হয়ে উঠতে হবে। সম্প্রতি পাবলিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ, নারীর প্রতি অবমাননাকর, ব্যক্তির প্রতি বিদ্বেষমূলক প্রশ্নপত্র শিক্ষাব্যবস্থার প্রতিক্রিয়াশীল, সাম্প্রদায়িক ও আধুনিকতাবিরোধী প্রবণতার চিত্র উঠে এসেছে। একারণে শুধু প্রশ্নপত্র প্রণয়নকারী ও মডারেশন বোর্ডের সদস্যদের যোগ্যতা ও ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন করার পাশাপাশি সমগ্র শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে ভাবার সময়ও এসেছে। পাশাপাশি মৌলবাদী একটি গোষ্ঠী বিজ্ঞানশিক্ষার পঠনপাঠন থেকে চার্লস ডারউইনের যুগান্তকারী বিবর্তনবাদ তত্ত্ব বাদ দেওয়ার যে দাবি তুলেছে, তাও আমাদের বিচলিত করছে। এসব বিষয়ে বাংলাদেশে বিজ্ঞানশিক্ষা ও মুক্তচিন্তার প্রসার বাধাগ্রস্ত করবে এবং দীর্ঘমেয়াদে রাষ্ট্র ও সমাজকে অন্ধকার, সাম্প্রদায়িকতা আর কূপমণ্ডূকতায় ঠেলে দেবে।
বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ৩০ লাখ জীবনের বিনিময়ে অর্জিত বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধের ৫০ বছর পরও একটি সর্বজনীন, অসাম্প্রদায়িক, বিজ্ঞানভিত্তিক শিক্ষা ব্যবস্থা গড়ে ওঠেনি। হেফাজতের ১৩ দাবি মেনে নিয়ে এই শিক্ষাকে আরও পশ্চাৎপদ ও প্রতিক্রিয়াশীল করা হয়েছে। দেশের শিশুদের একটি বিরাট অংশ শিক্ষা নিচ্ছে সরকার নিয়ন্ত্রিত আলিয়া মাদ্রাসা ও সরকারের নিয়ন্ত্রণের বাইরে থাকা কওমি মাদ্রাসায়। অনেক বিতর্কের মধ্যে শিক্ষাক্ষেত্রে সৃজনশীল পদ্ধতি প্রবর্তনের পরও শিক্ষকরা নিজেদের এই পদ্ধতির উপযোগী করে গড়ে তুলতে পেরেছেন কিনা, তা নিয়ে এখনও প্রশ্ন আছে।
বিবৃতিদাতারা হলেন— পঙ্কজ ভট্টাচার্য, সুলতানা কামাল, সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, রাশেদা কে চৌধূরী, রামেন্দু মজুমদার, ডা. সারওয়ার আলী, নুর মোহাম্মদ তালুকদার, রানা দাশগুপ্ত, খুশী কবির, এম এম আকাশ, এস এম এ সবুর, রোবায়েত ফেরদৌস, সালেহ আহমেদ, পারভেজ হাসেম, আবদুল ওয়াহেদ, এম এ সামাদ, সেলু বাসিত, রনজিৎ কুমার সাহা, এ কে আজাদ, অলক দাসগুপ্ত, আবদুর রাজ্জাক, আবদুল আলীম, দীপায়ন খীসা ও গৌতম শীল।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

মানবাধিকার কমিশনের অবৈতনিক সদস্য হলেন অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ

বার্তাকক্ষ জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের অবৈতনিক সদস্য হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সদস্য...

একাদশে ভর্তি: ঘণ্টায় ২০ হাজার আবেদন

বার্তাকক্ষ একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন কার্যক্রম বৃহস্পতিবার (৮ ডিসেম্বর) শুরু হয়েছে। প্রথমদিন সাড়ে ৯...

শূন্যপদ ৬০ হাজারের বেশি যাচাই-বাছাইয়ে আটকা শিক্ষক নিয়োগ, অনিশ্চয়তায় গণবিজ্ঞপ্তি

বার্তাকক্ষ বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষকের শূন্যপদ ৬০ হাজারের বেশি। স্কুল পর্যায়ে ৮০ ও কলেজ পর্যায়ে...