Thursday, December 1, 2022
হোম আন্তর্জাতিকরাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ পুতিন ঘনিষ্ঠ ১৪ ব্যক্তি, ২৮ প্রতিষ্ঠানের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ পুতিন ঘনিষ্ঠ ১৪ ব্যক্তি, ২৮ প্রতিষ্ঠানের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

পুতিনের রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধবিরতির সম্ভাবনা দেখছে না ইউক্রেন

বার্তাকক্ষ রাশিয়া ও ইউক্রেনের নেতারা একটি কূটনৈতিক আলোচনার মাধ্যমে ৯ মাস দীর্ঘ যুদ্ধের অবসান...

পাপড়ি-করামত আলী সাহিত্য পুরস্কার পেলেন তানভীর সিকদার

পাপড়ি-করামত আলী সাহিত্য পুরস্কার পেয়েছেন তরুণ কবি তানভীর সিকদার। তার দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ ‘সেফটিপিনে গেঁথে...

১১২ বছরের রেকর্ড ভেঙে দিলো ইংল্যান্ড

বার্তাকক্ষ সব শঙ্কাকে পাশ কাঁটিয়ে নির্ধারিত সময়েই পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামে ইংল্যান্ড। বৃহস্পতিবার (১...

আইজিপির নেতৃত্বে আইনের শাসনের ক্ষেত্র প্রস্তুতের আশা বিএনপি মহাসচিবের

বার্তাকক্ষ ‘রাজনৈতিক নিপীড়নমূলক বেআইনি, মিথ্যা ও গায়েবি মামলা দায়ের বন্ধ করা এবং দায়েরকৃত সব...

বার্তাকক্ষ রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধে রাশিয়াকে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগে ১৪ ব্যক্তি ও ২৮ প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। স্থানীয় সময় সোমবার (১৪ নভেম্বর) ইন্দোনেশিয়ার বালিতে জি-২০ সম্মেলনের ফাঁকে দেওয়া এক বক্তব্যে মার্কিন অর্থমন্ত্রী জ্যানেট ইয়েলেন এ তথ্য জানান। যদিও এসব ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নাম উল্লেখ করেননি তিনি।ইয়েলেন বলেন, রাশিয়ার যুদ্ধ আরও দীর্ঘ করার পরিকল্পনা ব্যাহত করতে ও দেশটিতে অস্ত্র রপ্তানি নিয়ন্ত্রণ করতে এ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। কোন কোন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান এ তালিকায় রয়েছে তা মঙ্গলবার বিস্তারিত জানিয়ে দেওয়া হবে।
তিনি আরও বলেন, ইউক্রেনে অর্থ সহায়তা অব্যাহত রাখবে ওয়াশিংটন। এরই মধ্যে ইউক্রেনের নিরাপত্তা সহায়তা বাবদ এক হাজার ৯০০ কোটি ডলারের পাশাপাশি, অতিরিক্ত সাড়ে ৪০০ কোটি ডলারের বেসামরিক সহায়তার বিষয়টি কংগ্রেসের অনুমোদনের জন্য অনুরোধ করেছে বাইডেন প্রশাসন।
যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকেই রাশিয়ার ওপর একের পর এক নিষেধাজ্ঞা জারি করে আসছে যুক্তরাষ্ট্র। নিষেধাজ্ঞার এ তালিকায় রয়েছে- রাশিয়ায় অস্ত্র সরবরাহকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, এমনকি রাশিয়ার সামরিক অস্ত্রগুলোর কলকব্জা নির্মাণকারী মার্কিন কোম্পানিগুলো।মার্কিন অর্থমন্ত্রীর মতে, বর্তমানে বিশ্ব অর্থনীতির জন্য যে জিনিসটি সবার আগে দরকার, তা হলো- যুদ্ধের অবসান ঘটানো। যুদ্ধ সমাপ্ত ঘোষণা করা রাশিয়ার নৈতিক দায়িত্বের মধ্যে পড়ে।
গত সপ্তাহে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেছিলেন, যদি দখলকৃত জায়গাগুলো ফিরে পাওয়া যায় ও ক্ষতিপূরণের পাশাপাশি এ যুদ্ধের জন্য দায়ী ব্যক্তিদের শাস্তি নিশ্চিত হয়, তাহলে তিনি রাশিয়ার সঙ্গে শান্তি আলোচনায় বসতে রাজি আছেন।এদিকে, বালিতে ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের একটি সাক্ষাতকারে ইয়েলেন বলেছিলেন, শান্তি চুক্তির ক্ষেত্রে রাশিয়ার ওপর আরোপ করা নিষেধাজ্ঞাগুলো শিথিল করা যেতে পারে। তবে ইউক্রেন ও ‍পুরো বিশ্বের যে ক্ষতি রাশিয়া করেছে, তা বিবেচনায় কিছু নিষেধাজ্ঞা যুদ্ধ শেষ হওয়ার পরও অব্যাহত থাকা উচিত।
মঙ্গলবার শুরু হতে যাওয়া জি-২০ সম্মেলনের মূল আলোচ্যসূতে রয়েছে- ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে জ্বালানি, খাদ্যের দাম বৃদ্ধি ও সমাধানের উপায়।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

পুতিনের রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধবিরতির সম্ভাবনা দেখছে না ইউক্রেন

বার্তাকক্ষ রাশিয়া ও ইউক্রেনের নেতারা একটি কূটনৈতিক আলোচনার মাধ্যমে ৯ মাস দীর্ঘ যুদ্ধের অবসান...

প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগের পদ সংখ্যা বাড়ছে

বার্তাকক্ষ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে পদ সংখ্যা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক ও...

ডিসেম্বরে শৈত্যপ্রবাহের আশঙ্কা, সাগরে হতে পারে দুটি লঘুচাপ

বার্তাকক্ষ তাপমাত্রা ক্রমেই কমে ডিসেম্বর মাসের শেষার্ধে দেশে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে...