Thursday, December 1, 2022
হোম জাতীয়হত্যা-ধর্ষণসহ ২৬ মামলার আসামি ‘গাংচিল’ বাহিনীর প্রধান গ্রেফতার

হত্যা-ধর্ষণসহ ২৬ মামলার আসামি ‘গাংচিল’ বাহিনীর প্রধান গ্রেফতার

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

পুতিনের রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধবিরতির সম্ভাবনা দেখছে না ইউক্রেন

বার্তাকক্ষ রাশিয়া ও ইউক্রেনের নেতারা একটি কূটনৈতিক আলোচনার মাধ্যমে ৯ মাস দীর্ঘ যুদ্ধের অবসান...

পাপড়ি-করামত আলী সাহিত্য পুরস্কার পেলেন তানভীর সিকদার

পাপড়ি-করামত আলী সাহিত্য পুরস্কার পেয়েছেন তরুণ কবি তানভীর সিকদার। তার দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ ‘সেফটিপিনে গেঁথে...

১১২ বছরের রেকর্ড ভেঙে দিলো ইংল্যান্ড

বার্তাকক্ষ সব শঙ্কাকে পাশ কাঁটিয়ে নির্ধারিত সময়েই পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামে ইংল্যান্ড। বৃহস্পতিবার (১...

আইজিপির নেতৃত্বে আইনের শাসনের ক্ষেত্র প্রস্তুতের আশা বিএনপি মহাসচিবের

বার্তাকক্ষ ‘রাজনৈতিক নিপীড়নমূলক বেআইনি, মিথ্যা ও গায়েবি মামলা দায়ের বন্ধ করা এবং দায়েরকৃত সব...

বার্তাকক্ষ রাজধানীর কেরানীগঞ্জ থেকে হত্যা, সংঘবদ্ধ ধর্ষণ ও অস্ত্র মামলাসহ ২৬টির বেশি মামলার পলাতক আসামি এবং জলদস্যু গাংচিল-কবির বাহিনীর মূলহোতা মো. কবির হোসেনকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।
সোমবার (১৪ নভেম্বর) সকালে র‍্যাব-২ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) সিনিয়র এএসপি মো. ফজলুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
সিনিয়র এএসপি ফজলুল হক বলেন, গত বছরের গত ৩১ ডিসেম্বর রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকায় ছিনতাই, চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে কবির বাহিনীর মূলহোতা ও শীর্ষ সন্ত্রাসী মো. কবির হোসেন ওরফে জলদস্যু কবির ওরফে দস্যু কবির ওরফে গাংচীল কবিরকে অস্ত্র ও মাদকসহ গ্রেফতার করে র‍্যাব। পরবর্তীতে কবির ৫ মাস ১৬ দিন কারাগার থেকে চলতি বছরের ১৭ জুন জামিনে বের হন।
কারাগার থেকে বের হয়ে কবির আবার ছিনতাই, চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ও মাদক অপরাধে জড়িয়ে পরেন। গত কয়েকদিন ধরে মোহাম্মদপুর ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজি, ছিনতাই, আধিপত্য বিস্তারসহ বিভিন্ন অপরাধের মাত্রা বেড়ে যায়। এ ঘটনায় অপরাধীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসার লক্ষ্যে র‍্যাব-২ মোহাম্মদপুর ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় ছায়াতদন্ত শুরু করে এবং গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ায়।তিনি বলেন, এরই ধারাবাহিকতায় রোববার (১৩ নভেম্বর) রাতে কেরানীগঞ্জ এলাকায় অভিযান চালিয়ে কবির হোসেনকে গ্রেফতার করে র‍্যাব-২ এর একটি আভিযানিক দল। এসময় তার কাছ থেকে একটি মোবাইল ও নগদ এক লাখ টাকা জব্দ করা হয়।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে কবির বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে স্বীকার করেছেন। মোহাম্মদপুরের ঢাকা উদ্যান, বসিলা, চাঁদ উদ্যান এলাকায় চাঁদাবাজি, ছিনতাই, মাদক ব্যবসাসহ বিভিন্ন অপরাধে সম্পৃক্ত কবির বাহিনী। তার বিরুদ্ধে রাজধানীসহ বিভিন্ন থানায় হত্যা, সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, অস্ত্র, অগ্নিসংযোগ, চাঁদাবাজি, মারধরসহ মোট ২৬টি মামলা রয়েছে।
কবিরের বিরুদ্ধে ডিএমপির মোহাম্মদপুর থানায় দুইয়ের অধিক এবং বরগুনার পাথরঘাটা থানায় একাধিক গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে। এছাড়া তাকে জিজ্ঞাসাবাদে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য যাচাই-বাছাই করে র‍্যাব-২ এ ধরনের অপরাধে জড়িত পলাতক অপরাধীদের আইনের আওতায় নিয়ে আসার জন্য অভিযান অব্যাহত রাখবে বলেও জানান র‍্যাবের এ কর্মকর্তা।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগের পদ সংখ্যা বাড়ছে

বার্তাকক্ষ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে পদ সংখ্যা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক ও...

বিশেষ ক্ষেত্রে বিদ্যুৎ-জ্বালানির দাম নির্ধারণের ক্ষমতা পেলো সরকার

বার্তাকক্ষ বিশেষ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) নয়, ভোক্তাপর্যায়ে জ্বালানি তেল, বিদ্যুৎ ও...

ডিসেম্বরে শৈত্যপ্রবাহের আশঙ্কা, সাগরে হতে পারে দুটি লঘুচাপ

বার্তাকক্ষ তাপমাত্রা ক্রমেই কমে ডিসেম্বর মাসের শেষার্ধে দেশে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে...