Thursday, December 1, 2022
হোম আজকের পত্রিকাপ্রথম পাতাপ্রধানমন্ত্রীর আগমনে উৎসব আর প্রাপ্তির প্রত্যাশায় যশোরবাসী

প্রধানমন্ত্রীর আগমনে উৎসব আর প্রাপ্তির প্রত্যাশায় যশোরবাসী

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

পুতিনের রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধবিরতির সম্ভাবনা দেখছে না ইউক্রেন

বার্তাকক্ষ রাশিয়া ও ইউক্রেনের নেতারা একটি কূটনৈতিক আলোচনার মাধ্যমে ৯ মাস দীর্ঘ যুদ্ধের অবসান...

পাপড়ি-করামত আলী সাহিত্য পুরস্কার পেলেন তানভীর সিকদার

পাপড়ি-করামত আলী সাহিত্য পুরস্কার পেয়েছেন তরুণ কবি তানভীর সিকদার। তার দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ ‘সেফটিপিনে গেঁথে...

১১২ বছরের রেকর্ড ভেঙে দিলো ইংল্যান্ড

বার্তাকক্ষ সব শঙ্কাকে পাশ কাঁটিয়ে নির্ধারিত সময়েই পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামে ইংল্যান্ড। বৃহস্পতিবার (১...

আইজিপির নেতৃত্বে আইনের শাসনের ক্ষেত্র প্রস্তুতের আশা বিএনপি মহাসচিবের

বার্তাকক্ষ ‘রাজনৈতিক নিপীড়নমূলক বেআইনি, মিথ্যা ও গায়েবি মামলা দায়ের বন্ধ করা এবং দায়েরকৃত সব...

সুন্দর সাহা
প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে যশোরজুড়ে যেন উৎসবের রঙ লেগেছে। সড়কের প্রবেশমুখে সুবিশাল তোরন নেই, তবুও সর্বত্রই উৎসবের আমেজ । সড়কের মোড়গুলোতে নেই কোন ফেস্টুন। তবে যশোরবাসীর হৃদয় জুড়ে আছে প্রাপ্তির প্রত্যাশা। ৫ বছর পর একদিনের সফরে আগামী ২৪ নভেম্বর যশোর আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সরকারের চলতি মেয়াদের শেষ মুহূর্তের এ জনসভাকে ঘিরেই যেন নির্বাচনী বৈতরণী পার কারতে চায় আওয়ামী লীগ। তাই প্রস্তুতির যেন কোনো শেষ নেই। প্রতিদিনই আওয়ামী লীগ ও তার বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের উদ্যোগে জেলার বিভিন্ন উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ডে বের হচ্ছে প্রচার মিছিল আর প্রস্তুতি সভা। স্থানীয় আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা অংশ নিচ্ছেন সেই সব মিছিল-সভায়। ‘শেখ হাসিনার আগমন, শুভেচ্ছা স্বাগতম’, ‘নেত্রী আছে রে আছে- কোনো সেই নেত্রী শেখ হাসিনা’ ইত্যাদি কোরাস, স্লোগান আর নিনাদ প্রতিধ্বণিত করছে প্রতিটি পাড়া-মহল্লার অলিগলি।
আগামী ২৪ নভেম্বর যশোর সফরকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কোন কোন উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন সেটা এখনও জানা যায়নি। তবে, ইতিমধ্যেই বিভিন্ন দাবির সমর্থনে যশোর জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবরা স্মারকলিপি দিয়েছেন এবং দিচ্ছেন বিভিন্ন সংগঠণ। মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত, ধীরাজ ভট্টাচার্য্য, মনোজ বসু, মানকুমারী বসু, দিলারা হাশেম, কবি আজিজুল হক, রফিকুজ্জামানসহ কবি-সাহিত্যিকদের লালন ভূমি খ্যাত এই যশোর। সেই যশোরের মানুষের প্রত্যাশা যশোরের সাগরদাঁড়িতে একটি সাংস্কৃতিক বিশ^বিদ্যালয় স্থাপনের ঘোষণা দেবেন প্রধানমন্ত্রী। যশোরের মানুষ সাংস্কৃতিক বিশ^বিদ্যালয় বাস্তবায়নের জন্য ইতিমধ্যে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে স্মরকলিপি দিয়ে প্রাপ্তির প্রত্যাশায় প্রহর গুণছেন। দীর্ঘ আড়াই যুগ ধরে জেলাবাসীর দাবি যশোরকে বিভাগ ঘোষণা করা হোক। কিন্তু এতোদিনে সেটিও বাস্তবায়িত হয়নি। এবার প্রধানমন্ত্রী কাছে প্রতাশা তিনি যশোরকে বিভাগ ঘোষণা করুন। যশোরে মেডিক্যাল কলেজ হয়েছে। কিন্তু নেই কোন মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। শিক্ষক-শিক্ষার্থী-অভিভাবকসহ যশোরবাসীর দাবি মেডিক্যাল কলেজের সাথে মেডেকেল কলেজ হাসপাতাল তৈরির দিক নির্দেশনা দেয়া হোক। গতকাল প্রধানমন্ত্রী বরাবর জনউদ্যোগ যশোরের পক্ষ থেকেও জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। জনউদ্যোগ যশোরের দাবির মধ্যে রয়েছে, যশোর মেডিকেল কলেজে ৫০০ শয্যা হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা ও যশোর বিমান বন্দরকে আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে উন্নীতকরণ। অতিদ্রুত এই অঞ্চলে গ্যাস সংযোগ দেওয়ার দাবি সব মহলের। এদিকে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের প্রাণকেন্দ্র যশোর সবচেয়ে পিছিয়ে পড়া অঞ্চল। অথচ ব্যবসা-বাণিজ্যে এশিয়ার প্রবেশদ্বার দেশের বৃহত্তম স্থলবন্দর বেনাপোল। দেশের সর্ববহৎ এই স্থলবন্দরের ব্যাপক কর্মযজ্ঞের মাধ্যমে ব্যবসায়ীদের সমস্যা লাঘবের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন বলে সকলের প্রত্যাশা। একই সাথে নওয়াপাড়া নৌবন্দরের উন্নয়নের বিষয়টিও প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টির মধ্যে থাকবে বলেই মনে করছেন ব্যবসায়ীরা।
সামনের বছর শেষ নাগাদ বা ২০২৪ সালের প্রারম্ভে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। তাই ২৪ নভেম্বরের জনসভাকে টার্নিং পয়েন্ট হিসেবেই দেখছেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। এই জনসভা থেকেই দেশনেত্রী আগামী দিনের দিক নির্দেশনা দেবেন বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগ নেতারা। এ বিষয়ে জানতে চাইলে যশোর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক, বেনাপোল পৌরসভার সাবেক সফল মেয়র আশরাফুল আলম লিটন দৈনিক প্রতিদিনের কথাকে বলেন,“ গত তিন দশকে বিশ্ব যে সব মহাসংকটের সম্মুখীন হয়েছিল, তাতে বাংলাদেশের ভূমিকা ও অর্জন আজ বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত। প্রথমটি হলো দারিদ্র্যবিমোচন। বাংলাদেশ এ ক্ষেত্রে অনেক দেশের তুলনায় এগিয়ে আছে। আমাদের দেশে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর সংখ্যা দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে। জনগণের অর্থনৈতিক উন্নয়ন আজ সুস্পষ্টভাবে দৃশ্যমান। সহস্রাব্দ উন্নয়নসূচক অর্জনে বাংলাদেশ প্রতিবেশী দেশগুলোর তুলনায় অনেক এগিয়ে। নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশের অগ্রগতি আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভ করেছে। পরিবেশ উন্নয়নসহ জলবায়ু সমস্যা নিরসনে বিশ্বব্যাপী উচ্চকিত সংলাপে আমাদের প্রধানমন্ত্রীর কণ্ঠস্বর ও ভূমিকা আজ সর্বত্র প্রশংসিত। একইভাবে করোণা বিস্তারে সারা পৃথিবী যখন ধুঁকছে বাংলাদেশের মানুষকে বাঁচাতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তখন সর্বাত্বক চেষ্টা করেছেন। যা এখনও চলমান। যে কারণে জাতিসংঘসহ সারা বিশে^র প্রশাংসা কুড়িয়েছেন তিনি। একইভাবে ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে সৃষ্ট ক্রাইসেস থেকেও দেশের মানুষকে রক্ষায় তিনি কার্যকরী ভূমিকা রেখে যাচ্ছেন।” এদিকে, প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় যশোর জনসমূদ্রে রূপ নেবে বলে জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ মনে করছেন। যশোরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভায় মানুষের ঢেউ নামবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভা হবে যশোরের ইতিহাসে স্মরণকালের সর্ববৃহৎ জনসমূদ্র। যে জনসমূদ্রের অংশিদার যশোরবাসী উৎসবের আমেজের পাশাপাশি প্রাপ্তির প্রত্যাশায় দিন গুণছেন।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগের পদ সংখ্যা বাড়ছে

বার্তাকক্ষ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে পদ সংখ্যা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক ও...

ডিসেম্বরে শৈত্যপ্রবাহের আশঙ্কা, সাগরে হতে পারে দুটি লঘুচাপ

বার্তাকক্ষ তাপমাত্রা ক্রমেই কমে ডিসেম্বর মাসের শেষার্ধে দেশে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে...

করোনায় শনাক্ত নামলো শূন্য দশমিক ৪৫ শতাংশে

বার্তাকক্ষ দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে কারো মৃত্যু হয়নি। তবে, মহামারির শুরু থেকে এ...