Monday, February 6, 2023
হোম বিশেষ প্রতিবেদনমুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের সাক্ষী অপু চৌধুরীর কাঠের বাড়িটি

মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের সাক্ষী অপু চৌধুরীর কাঠের বাড়িটি

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

নিপাহ ভাইরাস : সতর্ক হোন

নিপাহ ভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ছে। ইতোমধ্যে দেশের ২৮ জেলায় এই ভাইরাসের সংক্রমণ পাওয়া গেছে বলে...

ফাত্তাহ তানভীর রানার গল্প: প্রেমিকরা-প্রেমিকারা

শিয়া মসজিদ থেকে তাজমহল রোড ধরে একটু সামনে এগোলে রাস্তার ধারে অনেকগুলো বাড়ির মধ্যে...

মাথাপিছু আয় কমে ২৭৯৩ ডলার

বার্তাকক্ষ ,,দেশের মানুষের মাথাপিছু আয় কমে দুই হাজার ৭৯৩ ডলারে নেমে এসেছে। চূড়ান্ত হিসাবে...

৫ মেডিক্যাল কলেজের কার্যক্রম স্থগিত, একটি বাতিল

বার্তাকক্ষ ,,আইন ও নীতিমালা অনুসারে মানসম্পন্ন শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা না করায় পাঁচটি বেসরকারি মেডিক্যাল...

বার্তাকক্ষ চলছে বিজয়ের মাস। এই মাস আমাদের মনে করিয়ে দেয় মুক্তিযুদ্ধের সময় কাটানো সেই ভয়ঙ্কর দিনগুলোর কথা। এদেশের আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস। তেমনি একটি ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে ফেনীর অপু চৌধুরীর কাঠের তৈরি বাড়ি।
মুক্তিযুদ্ধের ক্ষত চিহ্ন নিয়ে আজও দাঁড়িয়ে আছে ব্রিটিশ আমলে তৈরি এই বাড়িটি। ইতিহাস, ঐতিহ্যে ভরপুর এ বাড়িটি ফেনীর ফুলগাজী উপজেলায় অবস্থিত।
মহান মুক্তিযুদ্ধে স্মৃতিবিজড়িত পুরনো এই বাড়িটি দেখতে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে ছুটে আসেন ঐতিহ্যপ্রেমীরা। দোতলা এই বাড়ির ভেতরে রয়েছে অপূর্ব কারুকাজ। প্রাচীন এই বাড়ির দেওয়ালের আনাচে-কানাচে আছে সৌন্দর্যের ছোঁয়া। মিয়ানমার থেকে আনা মালামাল দিয়ে নির্মিত হয়েছিল বাড়িটি।
এ বাড়ির উত্তরাধিকারী অপু রঞ্জন চৌধুরী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় তৎকালীন আমজাদহাট ইউনিয়নের মধ্যে এই বাড়িটা সবচেয়ে বেশি বিধ্বস্ত হয়েছিল। মুক্তিযোদ্ধাদের অবস্থানের কারণে পাক হানাদার ও রাজাকাররা বাড়িটিকে টার্গেট করে হামলা চালিয়েছিল। হামলার ঘটনার আগে টের পেয়ে সবাই সরে গিয়েছিল। ফলে হতাহতের কোনো ঘটনা ঘটেনি। এত বছর পেরিয়ে গেলেও বাড়িটির পুনর্বাসন বা পুনর্নির্মাণের কোনো কাজ করা হয়নি। দোতলা বিশিষ্ট এই বাড়িটির ঘরে এখনো মানুষ বসবাস করে।
তিনি আরও বলেন, স্থাপনাটির বয়স দুইশো বছরেরও বেশি। আমার বাবা-চাচারা ছয় ভাই ছিলেন। তাদের মধ্যে পাঁচ ভাই মিয়ানমারে কাঠের ব্যবসা করতেন। বাকি একজন দেশে থাকতেন। সেখান থেকে নদীপথে এই সমস্ত কাঠ এনে আমার বাবা এই স্থাপনা নির্মাণ করেন।স্থাপনা দেখতে আসা আরিফুর রহমান বলেন, মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত এই স্থাপত্যটি আমজাদহাট ইউনিয়নের মধ্যে আছে, তা অনেকের অজানা। এই বাড়িতে প্রাচীন দুটি স্থাপনা খুবই চমৎকার।স্থানীয় বাসিন্দা শাহেদ হোসেন বলেন, প্রাচীন স্থাপত্যটি আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের সাক্ষী হয়ে আছে। বাড়িটিকে সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি।
খেজুরিয়া মমতাজ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক জসিম উদ্দিন বলেন, আমাদের দাবি, এ বাড়িটি ফেনী জেলার প্রাচীন স্থাপত্যগুলোর তালিকার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করা হোক। তরুণ প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস সম্পর্কে জানুক
ফেনী জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আব্দুল মোতালেব বলেন, এ বাড়ির সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি জড়িয়ে আছে। বাড়িটিকে সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণ করলে নতুন প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধে পাক হানাদারদের হাতে বিধ্বস্ত বাড়িটি সম্পর্কে জানবে।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

গুম ও নির্যাতনের সাম্প্রতিক অভিযোগগুলো তদন্তের আহ্বান এইচআরডব্লিউর

বাংলাদেশে সাম্প্রতিক সময়ে গুম ও ধরে নিয়ে নির্যাতনের যেসব অভিযোগ উঠেছে, সেগুলো তদন্ত করতে...

দ্য ইকোনমিস্টের বিশ্লেষণ ‘বেলুন’ নিয়ে চীন-যুক্তরাষ্ট্রের বাড়াবাড়ি

২০১৮ সালের পর মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রথম চীন সফরের সমস্ত সম্ভাবনা উবে গেছে ‘গুপ্তচর’ বেলুনকাণ্ডের...

দ্য ইকোনমিস্টের প্রতিবেদন গণতন্ত্র সূচকে বাংলাদেশের উন্নতি

বৈশ্বিক গণতন্ত্র সূচকে দুই ধাপ এগোলো বাংলাদেশ। ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের হিসাব অনুযায়ী, এ তালিকায়...