Wednesday, February 8, 2023
হোম রাজনীতিবুদ্ধিজীবী হত্যার সঙ্গে যুক্তরাই এখন বিএনপির প্রধান সহযোগী: তথ্যমন্ত্রী

বুদ্ধিজীবী হত্যার সঙ্গে যুক্তরাই এখন বিএনপির প্রধান সহযোগী: তথ্যমন্ত্রী

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

প্রধানমন্ত্রী পাসের হারে মেয়েরা এগিয়ে, ছেলেদের আরও মনোযোগী হতে হবে

বার্তাকক্ষ ,,২০২২ সালের উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের অভিনন্দন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ...

ঢাকা বোর্ডে পাসের হার ৮৭ দশমিক ৮০

বার্তাকক্ষ ,,উচ্চমাধ্যমিক (এইচএসসি) ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। এইচএসসি পরীক্ষায় ঢাকা শিক্ষা...

আনন্দ-উচ্ছ্বাসে ভাওয়াল রাজবাড়ি মাঠে জিপিএ-৫ উৎসব শুরু

বার্তাকক্ষ ,,গাজীপুরে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত কৃতী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা শুরু হয়েছে। আজ...

পাকিস্তানে বাস-কার সংঘর্ষে নিহত ৩০

বার্তাকক্ষ ,,পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশে বাস ও কারের সংঘর্ষে অন্তত ৩০ জন নিহত হয়েছেন।...

বার্তাকক্ষ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, একাত্তরে জামায়াতে ইসলামী ও আলবদরের নেতৃত্বে বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ড পরিচালিত হয়েছিল। দুঃখজনক হলেও সত্য, বুদ্ধিজীবী হত্যার সঙ্গে যুক্তরাই এখন বিএনপির প্রধান সহযোগী, তাদের অনেকেই এখন বিএনপির নেতা
বুধবার (১৪ ডিসেম্বর) রাজধানীর রায়েরবাজারে বধ্যভূমি বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।
ড. হাছান বলেন, একাত্তরের ১০ ডিসেম্বর বুদ্ধিজীবী হত্যার প্রক্রিয়াটা শুরু হয়েছিল। সেই দিনই বিএনপি ঢাকায় গণসমাবেশ ডাকে, এটি অত্যন্ত দুঃখজনক। দলটির পাকিস্তানপ্রীতি, পাকিস্তানের প্রতি অনুরক্তির বিষয়টি বারবার প্রকাশ পাচ্ছে।
তিনি বলেন, যারা দেশের স্বাধীনতা চায়নি, যারা বুদ্ধিজীবী হত্যার সঙ্গে যুক্ত ছিল, তারা এখন স্বাধীন বাংলাদেশে রাজনীতি করে। তাদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিচ্ছে বিএনপি। এই অপশক্তির প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও লালন-পালনকারী এই দলটি। স্বাধীনতার ৫১ বছর পর এটি আসলে সমীচীন নয়।
জামায়াতে ইসলামীকে নিষিদ্ধ করার প্রশ্নে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বলেন, তারা অনেক আগেই জনগণের কাছে প্রত্যাখ্যাত হয়েছে। জনগণের কাছ থেকে তারা ইতোমধ্যে নিষিদ্ধ হয়ে গেছে। আইনগত কিছু প্রক্রিয়া আছে, সেগুলো নির্বাচন কমিশনসহ সংশ্লিষ্টরা দেখছে।
শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের বিষয়ে তিনি বলেন, ১৯৭১ সালের এই দিনে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের হত্যা করা হয়। পাকিস্তানিরা তাদের আসন্ন পরাজয় বুঝতে পেরে স্বাধীন হতে যাওয়া বাঙালি জাতিকে পঙ্গু করে দিতে বুদ্ধিজীবী, শিক্ষক, আইনজীবী, চিকিৎসক, প্রকৌশলীদের হত্যা করে।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

‘রাষ্ট্রপতি প্রার্থী মনোনয়নের ক্ষমতা শেখ হাসিনাকে দেওয়া হয়েছে’

বার্তাকক্ষ ,,দলের রাষ্ট্রপতি প্রার্থী মনোনয়নের দায়িত্ব আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের নেতা দলটির সভাপতি প্রধানমন্ত্রী...

আগামী নির্বাচনে আ.লীগ আবারও ক্ষমতায় আসবে: কাজী নাবিল

বার্তাকক্ষ ,,দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ আবারও ক্ষমতায় আসবে, এমন আশা প্রকাশ করে...

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা যুবলীগের আংশিক কমিটি ঘোষণা

বার্তাকক্ষ ,,চট্টগ্রাম উত্তর জেলা যুবলীগের ৩২ সদস্যবিশিষ্ট আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। সোমবার (৬...