Wednesday, February 8, 2023
হোম খেলাসাগরিকায় সাকিব-মুশফিকদের অসহায় আত্মসমর্পণ

সাগরিকায় সাকিব-মুশফিকদের অসহায় আত্মসমর্পণ

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

প্রধানমন্ত্রী পাসের হারে মেয়েরা এগিয়ে, ছেলেদের আরও মনোযোগী হতে হবে

বার্তাকক্ষ ,,২০২২ সালের উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের অভিনন্দন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ...

ঢাকা বোর্ডে পাসের হার ৮৭ দশমিক ৮০

বার্তাকক্ষ ,,উচ্চমাধ্যমিক (এইচএসসি) ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। এইচএসসি পরীক্ষায় ঢাকা শিক্ষা...

আনন্দ-উচ্ছ্বাসে ভাওয়াল রাজবাড়ি মাঠে জিপিএ-৫ উৎসব শুরু

বার্তাকক্ষ ,,গাজীপুরে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত কৃতী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা শুরু হয়েছে। আজ...

পাকিস্তানে বাস-কার সংঘর্ষে নিহত ৩০

বার্তাকক্ষ ,,পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশে বাস ও কারের সংঘর্ষে অন্তত ৩০ জন নিহত হয়েছেন।...

বার্তাকক্ষ নিজেদের মাঠ, চেনা কন্ডিশন সঙ্গে সেই পুরনো বাংলাদেশ। ওয়ানডে সিরিজের মতো চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম ইনিংসেও একই পরিণতি। টপ অর্ডারের ব্যর্থতার পরও লেটঅর্ডারে মিরাজের দৃঢ়তায় ওয়ানডে সিরিজ জেতা গেলেও চট্টগ্রাম টেস্টের দ্বিতীয় দিনেই হার চোখ রাঙাচ্ছে।
দ্বিতীয় দিনের পুরোটা সময়ে ব্যাটিং-বোলিং-ফিল্ডিংয়ে ভারতের কাছে পরাস্ত বাংলাদেশ। দিনের প্রথম তিন ঘন্টায় লেট অর্ডার ব্যাটাররা মিলে স্কোরবোর্ডে তুলে ফেলেন ৪০৪ রান। বাকি তিন ঘন্টায় বাংলাদেশের ব্যাটারদের নিয়ে ছেলে খেলায় মেতে উঠেন মোহাম্মদ সিরাজ ও কুলদীপ যাদবরা। দিনশেষে ৮ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশের সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৩৩।
ঢাকার চেয়ে চট্টগ্রামের উইকেট কিছুটা বাড়তি সুবিধা পেয়ে থাকে ব্যাটাররা। কিন্তু ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে দুই দিন পেরিয়ে গেলেও ব্যাটারদের সহায়তা খুব একটা দেখা যায়নি। দুই দলের ব্যাটারদেরই রান করতে সংগ্রাম করতে হয়েছে। ভারতীয় ব্যাটাররা লড়াইয়ের মানসিকতা দেখিয়ে সাফল্য পেলেও বাংলাদেশ দলের ব্যাটারদের সেই মানসিকতা ছিল না। দ্রুত উইকেট হারিয়ে ফলোঅনের শঙ্কায় বাংলাদেশ। ১৩৩ রানে দিন শেষ করা মিরাজ-এবাদতদের ফলোঅন এড়াতে করতে হবে আরও ৭১ রান। ব্যাটিংয়ে বাকি আছে কেবল খালেদ আহমেদ। সবমিলিয়ে তাই ফলোঅন এড়ানো বড় চ্যালেঞ্জ স্বাগতিকদের সামনে।
বৃহস্পতিবার নতুন সকালে দারুণ কিছুর প্রত্যাশা নিয়ে মাঠে নেমেছিল বাংলাদেশ। ৬ উইকেটে ২৭৮ রান নিয়ে ব্যাটিং করতে নামা ভারতের লেট অর্ডার সকালটা বাংলাদেশের হতে দেয়নি। যদিও শুরুতে শ্রেয়াস আয়ারকে সেঞ্চুরি বঞ্চিত করে দারুণ কিছুর ইঙ্গিত দিয়েছিল বাংলাদেশ। কিন্তু অষ্টম উইকেটে কুলদীপ যাদব ও রবীচন্দ্রন অশ্বীনের ৮৭ রানের জুটি বিপদে ফেলে দেয় স্বাগতিকদের। ওই জুটির পর উমেশ যাদবের ১০ বলে ১৫ রানের ইনিংসে ৪০৪ রান তুলে ফেলে সফরকারীরা। অশ্বিনের ব্যাট থেকে ৫৮ ও কুলদীপের ব্যাট থেকে আসে ৪০ রানের ইনিংস। একাধিক জীবন পাওয়া শ্রেয়াস আইয়ার ৮৬ ও চেতশ্বর পূজারা খেলেন ৯০ রানের ইনিংস। প্রথম দিনে দারুণ বোলিং করলেও দ্বিতীয় দিনের শুরুর কয়েক ওভার বাদে বাকি সময়টাতে প্রচুর আলগা বোলিং করতে দেখা গেছে স্বাগতিক বোলারদের। নখদন্তহীন বোলিংয়েরে সঙ্গে বাজে ফিল্ডিংয়ের সুযোগ নিয়ে স্কোরবোর্ড সমৃদ্ধ করেছে ভারত। ফলে মিরাজ-তাইজুলরা চারটি করে উইকেট নিলেও প্রভাব বিস্তার কমই করতে পেরেছেন।
ভারতের দেওয়া কঠিন লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা ভালো হওয়া জরুরি ছিল। কিন্তু ইনিংসের প্রথম বলেই গোল্ডেন ডাক মেরে দলকে অথৈ সাগরে ভাসিয়ে দিয়ে গেছেন নাজমুল হোসেন শান্ত। মোহাম্মদ সামির ইনিংসের প্রথম বল, সেটি আবার অফস্ট্যাম্পের বাইরে ; শান্ত সেটাই খেলার চেষ্টা করলেন-ফলশ্রুতিতে বল উইকেটকিপার ঋষভ পান্তের গ্লাভসে। স্কোরবোর্ডে ৫ রান যোগ হতে এবার উমেশ যাদবের আঘাত। ইয়াসির আলী শরীর থেকে বেশ দূরের বল খেলতে গিয়ে বলটাকেই টেনে নিয়ে এলের স্ট্যাম্পে। ৫ রানে ২ উইকেট হারিয়ে কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে পড়া দলটাকে টেনে তোলার দায়িত্ব পড়ে লিটন দাস ও অভিষিক্ত জাকির হাসানের কাঁধে।
কিন্তু ৩২ রানের জুটি গড়ে চার বিরতিতে যাওয়া লিটন ফিরেই ভুল করে বসলেন। আরও ২ রান যোগ হতেই সিরাজের ‘ফাঁদে’ পা দিয়ে বসেন। লিটনের মনোযোগ নাড়িয়ে দিতেই তাতিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে সফল হন। নিচু হওয়া বল ডিফেন্স করতে গিয়ে মিস করে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন ২৪ রানে। টপ অর্ডার ব্যাটারদের দেখাদেখি মিডল অর্ডারে সাকিব আল হাসান ও নুরুল হাসান সোহানের পথটাও একই হয়। দুইজনই অস্তস্তি নিয়ে ব্যাটিং করেছেন। শেষ ঘন্টায় দায়িত্বহীন শটে সাকিব ২৫ বলে ৩ রান করে আউট হয়েছেন। নুরুলের রান ২২ বলে ১৬। কিছুটা স্থিরভাবেই খেলছিলেন মুশফিকুর রহিম। কিন্তু দিনের খেলা শেষ হওয়ার ১০ ওভার বাকি থাকতে কুলদীপের বলে এলবিডব্লিউর শিকার হন মুশফিক। সর্বোচ্চ ২৮ রান আসে তার ব্যাট থেকে।
৩৫তম ওভারের শেষ বলে তাইজুল ফিরে যাওয়ার পর অলআউট হওয়ার শঙ্কায় পড়ে বাংলাদেশ। তবে এবাদতকে সঙ্গে নিয়ে ওয়ানডে সিরিজ জয়ের নায়ক মেহেদি হাসান মিরাজ ৩১ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়ে দিনটি পার করেন। তাতে বাংলাদেশের স্কোর দাঁড়ায় ৮ উইকেটে ১৩৩। পিছিয়ে আছে ২৭১ রানে। শুক্রবার বিজয় দিবসের নতুন সকালে মিরাজ-এবাদত জুটি কতটা প্রতিরোধ গড়তে পারে-সেটিই দেখার।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

ভয়াবহ ভূমিকম্পে মারা গেছেন তুর্কি গোলরক্ষক আহমেত ইয়ুপ

বার্তাকক্ষ ,,তুর্কি গোলরক্ষক আহমেত ইয়ুপ তুর্কাসলান মারা গেছেন। গত ৬ ফেব্রুয়ারি তুরস্কে ভয়াবহ ভূমিকম্পের...

নারী ‘আইপিএলের’ নিলামে বাংলাদেশের ৯ ক্রিকেটার

বার্তাকক্ষ ,,ভারতে প্রথমবারের মতো আয়োজন করা হচ্ছে আইপিএলের আদলে উইমেন্স প্রিমিয়ার লিগ (ডব্লিউপিএল)। পাঁচ...

শামসুন্নাহারের হ্যাটট্রিকে ফাইনালে বাংলাদেশ

বার্তাকক্ষ ,,শুরুর দিকে ভুটান কিছুটা প্রতিরোধ গড়ে তোলার চেষ্টা করে। ২১ মিনিট পর্যন্ত বাংলাদেশকে...