Wednesday, February 8, 2023
হোম মুক্ত ভাবনাগ্যাসের রেকর্ড মূল্যবৃদ্ধি এবং সমগ্র অর্থনীতি

গ্যাসের রেকর্ড মূল্যবৃদ্ধি এবং সমগ্র অর্থনীতি

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

বেসরকারি কলেজ উন্নয়ন প্রকল্প বারবার মেয়াদ বাড়ায় অসন্তোষ, কঠোর হচ্ছে আইএমইডি

বার্তাকক্ষ ,,শিক্ষার মানোন্নয়নে নির্বাচিত দেড় হাজারের বেশি বেসরকারি কলেজকে প্রযুক্তিগত সুবিধার আওতায় আনতে চায়...

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় পাসের হার ৮৫.৯৫

বার্তাকক্ষ: এবারের উচ্চ-মাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমান পরীক্ষায় গড় পাসের হার ৮৫ দশমিক ৯৫ শতাংশ।...

ইতিহাস গড়ে ক্লাব বিশ্বকাপের ফাইনালে আল-হিলাল

বার্তাকক্ষ: সৌদি আরবের ফুটবল যে দিন দিন উন্নতি করছে তার প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে কাতার বিশ্বকাপেই।...

বিচারকের সঙ্গে দুর্ব্যবহার হাইকোর্টে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইলেন নীলফামারীর বার সভাপতি

বার্তাকক্ষ ,,আদালতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি, আইন-আদালতের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন এবং বিচারকের সঙ্গে অপেশাদার, আক্রমণাত্মক ও...

সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা
একটি অর্থনীতিকে তখনই ঠিক পথের পথিক বলা যায় যখন সেখানে কর্মসংস্থান বাড়ে আর বেকারত্বের হার কমে। একটি অর্থনীতিকে তখনই স্বাস্থ্যবান বলা যায় যখন মানুষের মাঝে আর্থিক বৈষম্য কমে আসে।এই দুই প্রশ্নেই বাংলাদেশ বহুবছর যাবৎ হোঁচট খাচ্ছে। টানা অনেক বছর ধরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ও মাথাপিছু আয়ের উচ্চহার বেকার সমস্যার সুরাহা করতে পারেনি, পারেনি মানুষে মানুষে অসাম্য দূর করতে। আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার হিসেবে ২০২৩ সালে বাংলাদেশের ৩.৫ মিলিয়ন বেকার হবে।
দেশের ব্যাংক ও আর্থিক খাত দুর্বল নজরদারি, খেলাপি ঋণের উচ্চ হার, ঋণ জালিয়াতির খবর অনেক দিনের। এমনকি ব্যাংক দখলের খবরও এসেছে গণমাধ্যমে। খেলাপি ঋণ ১ লাখ ৩৪ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। আইএমএফের হিসাবে, প্রকৃত খেলাপি ঋণ আরও অনেক বেশি। এসব খবর কতটা বাস্তব আর কতটা আতংক তার একটা যুৎসই জনধারণা তৈরি করতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও অর্থমন্ত্রণালয় ব্যর্থ হয়েছে।
করোনার দুই বছরের মধ্যে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার প্রচেষ্টা একটা জায়গায় না আসতেই শুরু হয়েছে ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধ। ফলে সরবরাহ ব্যবস্থায় ব্যাঘাত ঘটায় ২০২২ সালের প্রায় পুরোটাই বাংলাদেশের অর্থনীতির গতি ঠিক ছিল না।
একদিকে জ্বালানি তেলের দাম বেড়েছে অত্যধিক, মূল্যস্ফীতির কারণে সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়েছে, অন্যদিকে চরম ডলার সংকটে আমদানি এবং ব্যাংকিং খাতেও ছিল সংকট। তবে যুদ্ধ শুরুর আগেও যে অর্থনীতি খুব ভালো অবস্থায় ছিল সেটা দাবি করা হয়তো ঠিক হবে না। দুর্বলতাগুলো ত্বরিৎ আকারে প্রকাশিত হয়েছে, এই যা।
এই লেখার আগের দিনই সরকার গ্যাসের রেকর্ড দাম বাড়িয়েছে। সাত মাস পর এবার গ্যাসের দাম বাড়ল ৮২ শতাংশ। শিল্প, বিদ্যুৎ ও বাণিজ্যিক খাতের গ্রাহকেরা দেবেন বাড়তি এ দাম। নতুন দাম ফেব্রুয়ারি থেকে কার্যকর হবে। আর্থিক চাপ সামলাতে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে একের পর এক দাম বাড়াচ্ছে সরকার।
মাত্র কিছুদিন আগে বিদ্যুতের দাম ৫ শতাংশ বাড়িয়েছে সরকার। এর আগে গত আগস্টে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে রেকর্ড পরিমাণে। নতুন করে শিল্পখাতে গ্যাসের দাম বৃদ্ধি উৎপাদন খরচ বাড়াবে যা মুল্যস্ফীতিকে আরেক দফা উসকে দিবে।এমনিতেই চরম গ্যাস সংকটে আছে সব শিল্প, এখন এই অস্বাভাবিক বাড়তি দাম কার্যকর হলে অনেক শিল্পকারখানাই লোকসানে চলে যাবে। অনেকেই হয়তো, বিশেষ করে ছোট-মাঝারি শিল্প মালিকরা, কারখানা বন্ধ করে দিতেই বাধ্য হবে।
আমরা সহজেই বুঝতে পারছি, মূল্যস্ফীতি এবং জ্বালানিসংকটের প্রভাবে অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি সংকুচিত হবে, মন্দাও দেখা দিতে পারে। বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের প্রধান দুটি খাতে উজ্জ্বলতার লক্ষণ নেই।
ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্র দীর্ঘস্থায়ী মন্দায় থাকলে বাংলাদেশের পোশাক খাতের জন্য দুশ্চিন্তার বিষয়। সামগ্রিক রপ্তানি খাতই একটা ভাবনার মধ্যে থাকবে। মধ্যপ্রাচ্য থেকে প্রবাসী আয় বাড়ার সম্ভাবনা আছে বলে একটা ধারণা আছে যেহেতু সেখানে মন্দা অতটা নেই। তবে ডলারের হার বাজারমুখী করতে না পারলে হুন্ডিই ভরসা হবে মানুষের। আর পাচারও অব্যাহত থাকবে।
যে কথাটি বলছিলাম যে, করোনা এবং ইউক্রেন যুদ্ধের আগে থেকেই অর্থনৈতিক অবস্থা সঙ্গিন হয়ে পড়ছিল। রপ্তানি আয়ে কোন গতি ছিলনা ২০১৯ সাল থেকেই, আমদানিতেও একই অবস্থা। রাজস্ব আয়ের বড় ঘাটতিতো চিরসঙ্গী।
একমাত্র স্বস্তির সূচক ছিল প্রবাসী আয়। এছাড়া অর্থনীতির আর কোনো সূচকই ইতিবাচক পথে ছিল না। আর এর মধ্যেই করোনার হানা এবং রাশিয়ার ইউক্রেন আক্রমণ পুরো বিশ্বের অর্থনীতির গতি স্থবির করে দেয় যা আমাদেরও প্রভাবিত করে।২০১৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাণিজ্যযুদ্ধ শুরু হলে চীন ব্যাপকভাবে তাদের মুদ্রার অবমূল্যায়ন করে। চীনকে অনুসরণ করে আরও অনেক দেশ নিজেদের মুদ্রার অবমূল্যায়ন করে। কিন্তু বাংলাদেশ সে পথে যায়নি। জোর করে টাকা ডলারের সেই বিনিময় হার নিয়ে বিপাকে পড়ে বাংলাদেশ।
বিশ্বব্যাপী ডলারের দর বেড়ে যাওয়ায় বেশি দরে পণ্য আমদানি করতে হয়েছে বাংলাদেশকে। এতে মূল্যস্ফীতি বাড়তে শুরু করে। বিনিময় হার কম থাকায় প্রবাসী আয়ও বৈধ পথে আসা কমে যায়। ফলে বাংলাদেশ ব্যাংক বাধ্য হয়েই ২০২২ সালে টাকার অবমূল্যায়ন করে, কিন্তু সেটা হয়েছে আনেক দেরি করে।
বাংলাদেশেওর অর্থনীতির একটা অদ্ভূত অবস্থা এই যে – একদিকে উচ্চ প্রবৃদ্ধি, আরেক দিকে নিম্ন কর-জিডিপি অনুপাত। বাংলাদেশের কর-জিডিপি অনুপাত এখন ১০ শতাংশের কিছু বেশি। আর নেপালে এ অনুপাত ২৪ শতাংশের ওপরে। এমনকি সাবসাহারান আফ্রিকান দেশগুলোতেও এর চেয়ে বেশি কর-জিডিপি অনুপাত আছে।এই নিম্ন রাজস্ব আদায়ের কারণে কোভিডের সময় প্রণোদনা ছিল ব্যাংক ঋণ নির্ভর। রাজস্ব ব্যবস্থা প্রত্যক্ষ করের ওপর নির্ভরশীল না হয়ে পরোক্ষ কর নির্ভর হয়ে একটা নিবর্তনমূলক ব্যবস্থা জিইয়ে রেখেছে। কর-জিডিপি অনুপাতে পিছিয়ে থাকায় বড় মাশুল দিতে হয়েছে শ্রীলঙ্কাকে। উন্নয়নের সাথে দুর্নীতি ও টাকা পাচারের কথাও ব্যাপকভাবে উচ্চারিত।
বৈদেশিক মুদ্রার উচ্চ রিজার্ভ নিয়েও ধরে রাখা যায়নি। বিপজ্জনকভাবে অবকাঠামো খাতে বিনিয়োগ করা হয়েছে। শেষ পর্যন্ত আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) আপত্তির মুখে রিজার্ভ গণনার পদ্ধতিরও পরিবর্তন আনতে বাধ্য হয়েছে সরকার।
দেশের ব্যাংক ও আর্থিক খাত দুর্বল নজরদারি, খেলাপি ঋণের উচ্চ হার, ঋণ জালিয়াতির খবর অনেক দিনের। এমনকি ব্যাংক দখলের খবরও এসেছে গণমাধ্যমে। খেলাপি ঋণ ১ লাখ ৩৪ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। আইএমএফের হিসাবে, প্রকৃত খেলাপি ঋণ আরও অনেক বেশি। এসব খবর কতটা বাস্তব আর কতটা আতংক তার একটা যুৎসই জনধারণা তৈরি করতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও অর্থমন্ত্রণালয় ব্যর্থ হয়েছে।
লেখক: প্রধান সম্পাদক, গ্লোবাল টেলিভিশন।

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

রাজনীতির বিশৃঙ্খলা সড়কেও

মোনায়েম সরকার দেশের রাজনীতিতে শৃঙ্খলা নেই, এটা বললে অনেকে হয়তো কিছুটা হকচকিয়ে যাবেন। ভাববেন- আরে,...

অর্থনীতিতে সুবাতাস, তবে…

প্রভাষ আমিন হঠাৎ গত বছরের মাঝামাঝি সময় থেকে একটা গেল গেল রব উঠেছিল। অর্থনীতি ধ্বংস...

আন্তর্জাতিক মেলা হিসেবে গড়ে তুলতে হবে বইমেলাকে

ড. মাহবুব হাসান বাংলা ভাষাকে যেমন মায়ের মতো ভালোবাসি, বইমেলাকেও সেই মতো ভালোবাসতে শিখেছি। এটা...