Wednesday, February 8, 2023
হোম আইটিফোন রিসাইকেলিং করার দিন আজ

ফোন রিসাইকেলিং করার দিন আজ

Published on

সাম্প্রতিক সংবাদ

বেসরকারি কলেজ উন্নয়ন প্রকল্প বারবার মেয়াদ বাড়ায় অসন্তোষ, কঠোর হচ্ছে আইএমইডি

বার্তাকক্ষ ,,শিক্ষার মানোন্নয়নে নির্বাচিত দেড় হাজারের বেশি বেসরকারি কলেজকে প্রযুক্তিগত সুবিধার আওতায় আনতে চায়...

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় পাসের হার ৮৫.৯৫

বার্তাকক্ষ: এবারের উচ্চ-মাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমান পরীক্ষায় গড় পাসের হার ৮৫ দশমিক ৯৫ শতাংশ।...

ইতিহাস গড়ে ক্লাব বিশ্বকাপের ফাইনালে আল-হিলাল

বার্তাকক্ষ: সৌদি আরবের ফুটবল যে দিন দিন উন্নতি করছে তার প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে কাতার বিশ্বকাপেই।...

বিচারকের সঙ্গে দুর্ব্যবহার হাইকোর্টে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইলেন নীলফামারীর বার সভাপতি

বার্তাকক্ষ ,,আদালতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি, আইন-আদালতের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন এবং বিচারকের সঙ্গে অপেশাদার, আক্রমণাত্মক ও...

বার্তাকক্ষ ,, পরিবেশ রক্ষায় ই-বর্জ্য নিয়ে বেশ কয়েক বছর ধরেই সতর্ক হতে বলছেন পরিবেশবিদরা। প্রযুক্তির কল্যাণে একদিকে যেমন বাড়ছে ইলেক্ট্রনিক ডিভাইসের ব্যবহার, তেমনি বাড়ছে এর বর্জ্য। ই-বর্জ্য সম্পর্কে অনেকেই ঠিক বুঝে উঠতে পারছেন না। আসলে এসব ডিভাইস অনেকদিন ব্যবহার করার পর এক সময় নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এরপর সেই শখের ফোন বা এর আনুষাঙ্গিক জিনিস যেমন-চার্জারের তার, ভাঙা স্ত্রিন, ভেতরের অন্যান্য পার্সপাতি পরিণত হচ্ছে পরিবেশ দূষণকারী ই-বর্জ্যে।
বিশ্বের প্রায় সব দেশেই বাড়ছে ই-বর্জ্য আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে যাওয়ায় তা রোধ করতে উদ্যোগ নিয়েছে বিভিন্ন সংস্থা। ই-বর্জ্য নিয়ন্ত্রণের জন্য মোবাইল ফোন রিসাইকেলিংয়ের কথা বলছেন বিশেষজ্ঞরা। এমনকি ২০১৭ সাল থেকে ২৪ জানুয়ারি বিশ্বের সব দেশে পাতিল হচ্ছে ফোন রিসাইকেলিং দিবস। যদিও ২০১৫ এবং ২০১৬ সালে এই দিবস পালিত হয় ২৬ জানুয়ারি।
এই দিবসটির মূল উদ্দেশ্য ছিল বন্যপ্রাণী এবং বন রক্ষা করা। ডা. জেন গুডাল এই দিবসের সূচনা করেন। তিনি একজন প্রাইমাটোলজিস্ট। ১৯৬০ সাল থেকে তানজানিয়ার বন্য শিম্পাঞ্জীদের উপর তার যুগান্তকারী গবেষণা শুরু করেন। তার গবেষণায় জানা যায় স্মার্টফোনের বর্জ্য বন্যপ্রাণীদের উপর কতটা নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে।
১৯৭৭ সালে ডা. গুডাল প্রাইমেট সংরক্ষণ এবং এদের প্রজাতির সুরক্ষার জন্য এই দিবসের পালনের কথা জানান। তবে তা কার্যকর হতে লেগে যায় কয়েক দশক। যদিও বেশিরভাগ মানুষ তার এই চিন্তাকে খুব ভালোভাবেই গ্রহণ করেছিল। বর্তমানে বিশ্বের প্রায় সব দেশেই ফোন রিসাইকেলিং করা হয়। শুধু স্মার্টফোন নয় সঙ্গে এর অন্যান্য বর্জ্য রিসাইকেলিং করে পরিবেশকে রক্ষা করছে বিভিন্ন সংস্থা।
বিশ্বের প্রথম পোর্টেবল সেল ফোন উদ্ভাবন হয় ১৯৭৩ সালে। মার্টিন কুপার সেই মটোরোলা ফোনটি ডিজাইন করেছেন। যার দাম ছিল সেসময় ১০ হাজার ডলার। বিশ্বের প্রথম পাঠানো মেসেজ ছিল ‘মেরি ক্রিসমাস’। এরপর ২০০৭ সালে আসে অ্যাপলের আইফোন। বর্তমানে বিশ্বের জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক এখন একটি সেল ফোনের মালিক।
সূত্র: ইন্ডিয়া টুডে

spot_img
spot_img

এধরণের সংবাদ আরো পড়ুন

ইউরোপে র‍্যানসমওয়্যার আক্রমণের আশঙ্কা

বার্তাকক্ষ ,,ইউরোপে র‍্যানসমওয়্যার আক্রমণের আশঙ্কা প্রকাশ করেছে সাইবার সিকিউরিটি প্রতিষ্ঠানগুলো। ইতালিতে ব্যাপক আকারে র‍্যানসমওয়্যার...

ওয়ানপ্লাস ট্যাবে ম্যাগনেটিক কি-বোর্ড ও পেন থাকবে

বার্তাকক্ষ ,,আনুষ্ঠানিকভাবে বিশ্ববাজারে ওয়ানপ্লাস প্যাডের যাত্রা হয়েছে। ট্যাবলেট ডিভাইস ক্যাটাগরিতে প্রবেশের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি তাদের...

সৌদিতে ১৫০ কোটি ডলার বিনিয়োগ করবে ওরাকল

বার্তাকক্ষ ,,ক্লাউড ফুটপ্রিন্ট তৈরির পাশাপাশি রিয়াদে তৃতীয় পাবলিক ক্লাউড অঞ্চল তৈরিতে সৌদি আরবে ১৫০...