৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ  । ১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ 

সন্ত্রাসী কার্যকলাপ আর ভয়ভীতি দেখিয়ে ভোটে জয়ী হওয়ার স্বপ্ন হবে তার দুঃস্বপ্ন : আশরাফুল আলম লিটন

বেনাপোল প্রতিনিধি
দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে যশোর শার্শা-১ আসনে নির্বচনী গনসংযোগ করেন ট্রাক প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী যশোর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক বেনাপোল পৌরসভার সাবেক মেয়র আশরাফুল আলম লিটন। মঙ্গলবার সকালে গনসংযোগ করেন বেনাপোল পৌরসভার গ্রাম এলাকায়। এসময় কিছু কিছু জায়গায় পথসভায়ও তিনি নারী পুরুষের উপস্থিতিতে বক্তব্যও রাখেন। এসব পথ সভায় সাবেক মেয়র লিটন বলেন, ‘আমরা চাই সুষ্টু একটি নির্বাচন। যে নির্বাচনে আমাদের নতুন প্রজন্ম ভাল কিছু শিখবে। আমরা চাই সকল ভোটার ভোট কেন্দ্রে যাক এবং তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করুক। তাতে ভোটাররা যাকে বেশী ভোট দেবে সেই বিজয়ী হবে এবং আমরা তাকে মেনে নেব। কেউ যদি সন্ত্রাসী কার্যকলাপ আর কারচুপি-ভয়ভীতি দেখিয়ে ভোটে জয়ী হওয়ার স্বপ্ন দেখে তা হবে তার জন্য দুঃস্বপ্ন। যতই ভয়ভীতি দেখিয়ে অনৈতিক পন্থায় কেউ বিজয়ী হতে পারবে না। সে সুযোগ এবার শার্শাবাসীদেবে না।’ তিনি বলেন, ‘অত্যন্ত দুঃখের বিষয় যার সাথে আমার লড়াই করতে হচ্ছে, তিনি এই জনপদের পরপর তিনবারের সংসদ সদস্য। তিনি যদি এত ভাল কাজ করবেন তাহলে তার লোকজন আমার পোষ্টার ছিড়ছে কেন? ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে যেতে হুমকি ধামকি দেওয়া হচ্ছে কেন? আমার কয়েকটি ইউনিয়নে তার সমর্থকরা পোষ্টার ছিড়েছ। আমার সমর্থকদের নির্বাচনের পর দেখে নেওয়া হবে এরকম হুমকি দিচ্ছে। তাই আমি তার কাছে প্রশ্ন রেখে যাই কেন আপনি এসব লালন করছেন। আপনি তো তিনবার এই জনপদের এমপি। আসেন না আমরা জনগনকে এই সীমান্ত উপজেলা থেকে ভাল কিছু শিক্ষা দেই। এখানে আর কোন মারামারি হানাহানি অত্যাচার জুলুম হবে না। যে জয়ী হবে তাকে আমরা মালা পরাই।’
তিনি বলেন, ‘ভোটারদের নিকট থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে তিনি ভোটারদের কেন্দ্রে যেতে ভয় দেখাচ্ছেন। কেন ভোটাররা কেন্দ্রে যাবে না? তারা কি এদেশের লোক নয়? তারা এদেশের জমির খাজনা বাড়ির খাজনা, পৌরকরসহ সরকারের নিয়ম কানুনের প্রতি শ্রদ্ধাশি। এসব বাদ দেন ভোটে জিতে আনন্দ নেন। যারা কারচুপি ও ভয়ভিতি দেখিয়ে ভোটে জয়ী হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন, আপনারা বলেন তো যুদ্ধ করে জয় করার যে আনন্দ তা কি আপনি সন্ত্রাসী কার্যকলাপের মধ্যে পাবেন? আমি প্রতিটি ভোটারদের বলতে চাই আপনারা কোন প্রকার হুমকিতে ভয় পাবেন না। ভোট কেন্দ্রে যাবেন এবং আপনার পছন্দ মত প্রার্থীকে ভোট দিবেন। আপনারা মনে রাখবেন আগমী ৫বছর অনেক সময়। এসময় যদি আবার আপনারা নষ্ট করেন তবে উন্নয়ন থেকে পিছিয়ে যাবেন। আপনারা এপর্যন্ত শার্শায় যতটুকু সরকারী বরাদ্দ এসেছে তার বেশী পাননি। কারন আপনাদের নির্বাচিত সংসদ সদস্য তিনি মহান সংসদে আপনাদের কথা, এই ভুমির কথা আপনাদের সুখ দুঃখর কথা বলেননি। গত ১৫ বছর যদি শার্শার অবহেলিত জনপদের কথা সংসদে তুলে ধতেন তাহলে আজ এই জনপদের শিক্ষিত ছেলে মেয়েরা বেকার থাকত না। আজ এই নির্বাচন উপলক্ষে আপনারা বলেন আমার কোন সমর্থক আমার প্রতিদ্বন্দী কোন প্রাথীর সমর্থককে আঘাত করেছে? করেনি কারন আমি আমার সমর্থকদের সে শিক্ষা দেয়নি। আমি কারও গায়ে আঘাত করব না। এই জনপদের সকল ভাই সকল পিতা সকল বোন আমার এই জন্মভুমি একই উপজেলার মানুষ। সকালে ঘুম থেকে উঠে আমার তাদের সাথে দেখা হবে আমি কি এ অন্যায় করতে পারি। অথচ আপনারা দেখেন নির্বাচনের মনোনায়ন ঘোষনার পর থেকে তারা কত অত্যাচারী হয়ে উঠেছে তারা আমার বাড়ি, আমার আত্নীয়ের বাড়ি আমার সমর্থকদের বাড়ি বোমা হামলা করেছে। এখনো তার লালিত পোষা কুকুরগুলো তান্ডব চালিয়ে যাচ্ছে। এসব কি মানবিকতা। আপনারা তাই দেখে শুনে আপনাদের উন্নয়ন ও শান্তিতে থাকার মানুষকে বেছে নিন এবং তাকে ভোট দেন।’ ট্রাক প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী যশোর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক বেনাপোল পৌরসভার সাবেক মেয়র আশরাফুল আলম লিটন গতকাল পৌর এলাকার সাদিপুর, বড়আচঁড়া, ছোটআচড়া, ভবেরবেড়, দিঘিরপাড়, বেনাপোল, নামাজগ্রাম, গাজিপুর, আমড়াখালী, কাগজপুকুর গ্রামে গনসংযোগকালে শত-শত নারী পুরুষ ট্রাক প্রতীকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করার আশ্বাস দেন। এসময় ভবেরবেড় গ্রামে আসলে কিছু দুবৃত্ত নৌকা প্রতিকের সমর্থক স্বতন্ত্র প্রার্থী ট্রাক প্রতীকের আশরাফুল আলম লিটনের গনসংযোগে বাধা প্রদান করেন। জনতার জনরোষে তারা প্রত্যাখ্যাত হয়। এরপর ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে দুর্বৃত্তদের সাবধান করেন বলে জানা গেছে। সকাল থেকে ট্রাক প্রতীকের নির্বাচনী গনসংযোগে অংশ নেন বেনাপোল পৌর সভার সাবেক প্যানেল মেয়র সাহাবুদ্দিন মন্টু, শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আজিবর রহমান, বেনাপোল পৌর সভার ৯ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আশাদুজ্জামান আশা, সহ যুবলীগ, ছাত্রলীগ সহ বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মীরা।

 

আরো দেখুন

Advertisment

জনপ্রিয়