২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ  । ১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ 

পুলিশের সাথে সংঘর্ষ: বিএনপির ১৮ জনের কারাদণ্ড

প্রতিদিনের ডেস্ক:
২০১৯ সালে পুলিশের সাথে বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনায় করা মামলায় বিএনপির ঢাকা মহানগর দক্ষিণের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার পারভেজ বাদলসহ ১৮ বিএনপির নেতাকর্মীকে তিন বছরের কা আদেশ দিয়েছেন আদালত। কারাদণ্ডের পাশাপাশি তাদের পাঁচ হাজার টাকা অর্থদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। সোমবার (১ জানুয়ারি) ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট বেগম আফনান সুমী পৃথক দুই ধারায় এ কারাদণ্ড প্রদান করেন। দণ্ডবিধির ১৪৭ ধারায় একবছর সশ্রম কারাদণ্ড ও দুই হাজার টাকা জরিমার আদেশ দেন আদালত। তাছাড়া দণ্ডবিধি ৩৩২ ধারায় আসামিদের দুইবছরের সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়। এ ধারায় কারাদণ্ডের পাশাপাশি তিন হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দেন বিচারক। জরিমানা অনাদায়ে তাদের আরো এক মাসের কারাভোগ করতে হবে। দুই ধারার কারাদণ্ড একসাথে চলায় তাদের দুইবছর কারাভোগ করতে।
কারাদণ্ডপ্রাপ্ত অপর আসামিরা হলেন, যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মীর নেওয়াজ আলী নেওয়াজ, চকবাজার থানার যুবদলের আহ্বায়ক সাবা করিম লাকী শাহ, ৫৯ ওয়ার্ডের বিএনপির সভাপতি সাইদ হোসেন সোহেল, ২৪ নং ওয়ার্ডের বিএনপির সাধারণ সম্পাদক তাসাদ্দেক হোসেন বাবলু, বিএনপির নেতা শফিউদ্দিন আহম্মেদ সেন্টু, বিএনপি নেতা আমিনুল ইসলাম আমিন, আরমান আহম্মেদ, ফরহাদ হোসেন বান্টি, রিয়াজ উদ্দিন বাদশা, মো. রফিকুল ইসলাম রাসেল, নাজিমউদ্দিন নাজু, মনিউর রহমান মনির, টিপু সুলতান, রফিকুর ইসলাম, মো. লিটন ও মুহিন। এছাড়াও অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় মামলার অপর আসামি মীর আশরাফ আলী আজমকে খালাস দিয়েছেন আদালত।
মামলার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ২০১৯ সালের ৮ ডিসেম্বর চকবাজার থানা এলাকায় খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে মিছিল বের করে বিএনপি। এসময় পুলিশ বাধা দিলে উভয়পক্ষের মধ্যে শুরু হয় সংঘর্ষ। এ ঘটনায় চকবাজার মডেল থানায় বাদী হয়ে ১৯ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন এসআই মো. গিয়াস উদ্দিন। মামলাটি তদন্ত করে ২০২০ সালের ২৮ নভেম্বর আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মুন্সী আব্দুল লোকমান। এরপর ২০২৩ সালের ২০ সেপ্টেম্বর চার্জগঠনের মামলার আনুষ্ঠানিক বিচার শুরু করেন ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আফনান সুমী। মামলার বিচার চলাকালে ৪ জন আদালতে সাক্ষ্য দেন।

আরো দেখুন

Advertisment

জনপ্রিয়