নতুন বছরে কোনটি কিনবেন ডেস্কটপ না মিনি কম্পিউটার

0
25

প্রতিদিনের ডেস্ক
ব্যক্তিগত কিংবা প্রাতিষ্ঠানিক কাজের প্রয়োজনে কম্পিউটার ব্যবহার করতে হয়। ক্ষেত্রবিশেষে এ কম্পিউটারের বিভিন্ন ধরন রয়েছে। ডেস্কটপ থেকে শুরু করে ল্যাপটপ, মিনি কম্পিউটার ইত্যাদি। তবে বহনের সুবিধার্থে বর্তমানে মিনি কম্পিউটার জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। প্রযুক্তির উন্নয়নের সঙ্গে মিনি কম্পিউটারের যন্ত্রাংশ ও সক্ষমতাও বাড়ছে। এছাড়া ডেভেলপাররাও তাদের গেমগুলোকে আরো অপ্টিমাইজড করছে। সবদিক বিবেচনায় প্রযুক্তিবিদদের মতে, ২০২৪ সালে মিনি কম্পিউটার এগিয়ে রয়েছে। মেক ইউজ অব সূত্রে আরো কিছু বিষয় তুলে ধরা হয়েছে।
পারফরম্যান্স বা কাজ সম্পাদনের সক্ষমতা: পারফরম্যান্সের দিক থেকে মিনি কম্পিউটারের তুলনায় ডেস্কটপ বরাবরই এগিয়ে। কেননা এতে ভালো কুলিং সিস্টেম ও পূর্ণ আকৃতির গ্রাফিকস কার্ড রয়েছে। তবে এএমডির এপিইউকেও ছোট বা কম শক্তিশালী ভাবার কারণ নেই। এতে ইন্টিগ্রেটেড গ্রাফিকস রয়েছে। এছাড়া ল্যাপটপ, হ্যান্ডহেল্ড গেমিং পিসিসহ মিনি পিসির কার্যক্ষমতা বাড়াতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে এএমডি। এসব চিপ ডিভাইসের সক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করছে।
উৎপাদনশীলতা ও সহজ ব্যবহার: মিনি কম্পিউটার কাজের দিক থেকে ডেস্কটপের মতোই। তবে মিনি কম্পিউটার ব্যবহার তুলনামূলক সহজ। এতে সাধারণ ডেস্কটপের মতো একাধিক কেবলের প্রয়োজন হয় না এবং টেবিলে থাকায় সহজেই যেকোনো অপশনে যাওয়া যায়। এছাড়া ইনপুট-আউটপুট পোর্টের দিক থেকেও মিনি পিসি সমৃদ্ধ। ডেস্কটপের মাদারবোর্ডে পোর্ট সীমিত থাকে। এছাড়া কেবল ছোট থাকায় ইউএসবি-সি হাব ব্যবহার কষ্টসাধ্য। মিনি কম্পিউটার এদিক থেকে সহজে হাব ব্যবহারের সুবিধা দেবে।
ডেস্কটপের মতো মিনি কম্পিউটার আপডেট সম্ভব নয়: কাজের দিক থেকে মিনি কম্পিউটার ডেস্কটপের কাছাকাছি হলেও এটি আপডেট করা সম্ভব নয়। ব্যবহারকারীরা চাইলে লম্বা সময় ডেস্কটপের বিভিন্ন যন্ত্রাংশ পরিবর্তন বা আপডেট করতে পারবে। এর মধ্যে সিপিইউ থেকে শুরু করে গ্রাফিকস কার্ড, র‍্যাম, স্টোরেজ, পাওয়ার সাপ্লাই রয়েছে। মিনি পিসির সিপিইউ পরিবর্তন করতে না পারলেও র‍্যাম ও এসএসডি পরিবর্তন করা যায়। এছাড়া এতে এক্সটার্নাল জিপিইউ ব্যবহার করা যায়।
মিনি ও ডেস্কটপ কম্পিউটারের দাম: ল্যাপটপের মতো মিনি কম্পিউটারের ওপর আলাদা কোনো কর নেই। যে কারণে এ ডিভাইস ডেস্কটপ কম্পিউটারের সমকক্ষ। যদিও এতে ল্যাপটপের মতো ট্র্যাকপ্যাড, ডিসপ্লে বা কি-বোর্ড নেই। রাইজেন ৭ ৫৭০০ইউ প্রসেসর, ১৬ জিবি র‍্যাম ও ৫০০ জিবি এসএসডিযুক্ত বিলিঙ্ক এসইআর৫ মিনি পিসির দাম ৩৫৯ ডলার। একই কনফিগারেশনের ডেস্কটপের দাম প্রায় ৫০০ ডলারের কাছাকাছি। মূলত মিনি কম্পিউটারে বিল্ট ইন মাদারবোর্ড থাকে, যেখানে আলাদা ফ্যানের প্রয়োজন হয় না এবং বেশি সক্ষমতার পাওয়ার সাপ্লাইও লাগে না।
মিনি নাকি ডেস্কটপ কম্পিউটার: ব্যবহারকারীর প্রয়োজনভেদে এ দুটি কম্পিউটার কেনা নির্ভর করে। যদি খুব বেশি পারফরম্যান্স প্রয়োজন না হয় এবং কম্পিউটার আপডেটের ইচ্ছা কম থাকে তাহলে মিনি কম্পিউটার কেনা ভালো সিদ্ধান্ত। এর মাধ্যমে দ্রুত যেকোনো জায়গায় কাজ করা সম্ভব এবং ছোট ব্যাগেই এটি বহন করা যায়। তবে কম্পিউটারের বিভিন্ন যন্ত্রাংশ আপডেট করার পরিকল্পনা থাকলে ডেস্কটপ কম্পিউটার নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন প্রযুক্তিবিদরা।