বিনা প্রশ্নে কালো টাকা বিনিয়োগের সুযোগ চায় রিহ্যাব

0
13

প্রতিদিনের ডেস্ক
আগামী ১০ বছরের জন্য বিনা প্রশ্নে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে আবাসন খাতের ব্যবসায়ীদের সংগঠন রিয়েল (রিহ্যাব)। পাশাপাশি সংগঠনটি ফ্ল্যাট কেনার ক্ষেত্রে অর্থের উৎস সম্পর্কে কোনো প্রশ্ন না করারও আহ্বান জানিয়েছে।রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সম্মেলন কক্ষে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রাক-বাজেট আলোচনা সভায় এ দাবি জানানো হয়।
বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম। সভায় আরও কয়েকটি সংগঠনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।
এরমধ্যে দূষণরোধ ও কার্বন নিঃসরণ কমানোর লক্ষ্যে পরিবেশ সারচার্জ বৃদ্ধির অনুরোধ জানিয়েছে ইনস্টিটিউট অব চার্টাড সেক্রেটারিস অব বাংলাদেশ (আইসিএসবি)। পাশাপাশি স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে ও রাজস্ব আদায় বাড়াতে কর অব্যাহতি নীতিমালা প্রণয়ন, রিটার্ন প্রদান সহজীকরণে মোবাইল অ্যাপের প্রস্তাব দিয়েছে সংগঠনটি।
সংগঠনটির অন্যান্য দাবির মধ্যে রয়েছে রিটার্ন জমার প্রমাণপত্র ঠিক মতো সংগৃহীত হচ্ছে কি না তা কঠোরভাবে নজরদারি করা, ব্যক্তির অর্জিত ডিভিড্যান্ড আয়ের ওপর ট্যাক্স শূন্য করা, নিট পরিসম্পদের মূল্যমান ১০ কোটি টাকা পর্যন্ত সারচার্জহার শূন্য করা ইত্যাদি।
অন্যদিকে সরবরাহ বিক্রির ওপর উৎসে কর কমানোর প্রস্তাব দিয়েছে বাংলাদেশ রেডিমেইড মিক্স কনক্রিট অ্যাসোসিয়েশন। সিমেন্টের কাঁচামাল ক্লিংকারে কাস্টমস ডিউটি ৭০০ টাকা থেকে কমিয়ে ২০০ টাকা করার প্রস্তাব দিয়েছে বাংলাদেশে সিমেন্ট ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন।
সভায় রিহ্যাবের অ্যাডমিনিস্ট্রেটর জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, অর্থপাচার কমাতে ও সরকারের রাজস্ব বাড়াতে কোনো প্রকার প্রশ্ন না করা সংক্রান্ত আগের যে সুবিধাটি ছিল, তা বহাল করা প্রয়োজন।
বিদেশে অনেকেই সেকেন্ড হোম করছে জানিয়ে তিনি বলেন, দেশের প্রচুর অর্থ বিদেশে চলে যাচ্ছে। ওইসব দেশের ফ্ল্যাট-অ্যাপার্টমেন্ট ক্রয়ে অর্থের উৎসের বিষয়ে প্রশ্ন করা হয় না। অপ্রদর্শিত অর্থ দেশে বিনিয়োগের সুযোগ করে দেওয়ার ফলে ভবিষ্যতে ওই সব বিনিয়োগকারী করের আওতায় চলে আসবে, যা সরকারের রাজস্ব বাড়াতে সহায়তা করবে। এসময় তিনি ফ্ল্যাট ও প্লট রেজিস্ট্রেশনে বিদ্যমান ফি ১২ শতাংশ থেকে কমিয়ে সাত শতাংশ নামানোসহ আটটি প্রস্তাব তুলে ধরেন।
নির্মাণশিল্পের উন্নয়নে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড কাজ করছে বলে জানান এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রাহমাতুল মুমিন।
তিনি বলেন, সংগঠনগুলোর প্রস্তাবগুলো আমরা আমলে নেবো। রাষ্ট্র ও শিল্পের স্বার্থ রক্ষায় আমরা আপনাদের প্রস্তাবগুলো বিবেচনায় রাখবো।