৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ  । ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ 

দেশের বাইরে কখনো ফাইনাল খেলেনি ইংল্যান্ড, শিরোপা জেতে না ৫৮ বছর

প্রতিদিনের ডেস্ক॥
ইংল্যান্ডের এই প্রজন্মের ফুটবল ভক্তরা দেখেনি দেশটিকে বড় কোনো আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট জিততে। দেখবে কি করে? ১৯৬৬ সালে ঘরের মাঠে বিশ্বকাপ জেতার পর আর তো কখনো চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি তারা! ৫৪ বছর পর ইংলিশদের সেই আক্ষেপ মেটানোর দারুণ সুযোগ এসেছিল আগের ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপে। হ্যারি কেইনদের হৃদয় ভেঙ্গে দিয়ে তাদের অপেক্ষা লম্বা করে দিয়েছিল ইতালি। ফাইনালে ওয়েম্বলির গ্যালারি স্তব্ধ করে দিয়ে লন্ডন থেকে ট্রফি রোমে উড়িয়ে নিয়েছিল আজ্জুরিরা। ৫৪ বছরের আক্ষেপ এখন ৫৮ বছরে। জার্মানিতে চলমান ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপ এক ফাইনালিস্ট পেয়ে গেছে আগের রাতে। স্মরণীয় ও চোখ ধাঁধানো এক সেমিফাইনালে এমবাপের ফ্রান্সকে হারিয়ে একযুগ পর ফাইনালে মোরাতা-ইয়ামালদের স্পেন। বুধবার রাতে দ্বিতীয় সেমিফাইনালে নেদারল্যান্ডসের মুখোমুখি হবে ইংল্যান্ড। একমাত্র স্পেন ছাড়া এই ইউরোতে বাকিরা চলেছে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে। ইংল্যান্ড এ পর্যন্ত আসার পথে সমালোচনার তীরে বিদ্ধ হয়েছেন কোচ গ্যারেথ সাউথগেট। সেমিফাইনাল জিতলে সমালোচনার বোঝা কমবে তার মাথা থেকে। আর পরপর দুই ম্যাচ জিতলে তো কথাই নেই। এতদিন সাউথগেটের মুন্ডুপাত করা সমর্থকরাই যে তাকে মুন্ডুতে চড়িয়ে নাচবেন! ইংল্যান্ডের সামনে দুটি আক্ষেপ শেষ করার হাতছানি। ৫৮ বছর পর মেজর কোনো টুর্নামেন্ট জিততে হলে তার আগে ইংলিশদের করতে হবে ইতিহাস। সেই ইতিহাস প্রথমবারের মতো বিদেশে ফাইনালে ওঠার। আর সেজন্যই ডাচদের বিপক্ষে সেমিফাইনাল জিতে ইতিহাস গড়তে পুরোপুরি প্রস্তুত সাউথগেটের দল। ইংলিশ কোচ বলেছেন, ‘ইতিহাস গড়ার সুযোগটি খেলোয়াড়রাও অনুভব করছে। এবার তারা প্রথমবারের মতো বিদেশের মাটিতে বড় কোনো টুর্নামেন্টের ফাইনালে পৌঁছানো এবং একটি বড় টুর্নামেন্ট জেতার জন্য ৫৮ বছরের অপেক্ষার অবসান ঘটাতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।’ টুর্নামেন্ট সামনে রেখে দলের বড় তারকা হ্যারি কেইন ক্যারিয়ারে প্রথম বড় ট্রফি জয়ের লক্ষ্য নির্ধারণ করেছিলেন; কিন্তু কেইন জার্মানিতে তার মতো করে নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি। জার্মান লিগে বায়ার্ন মিউনিখে খেলেন ৩০ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড। এই টুর্নামেন্টে ইংল্যান্ডের পাঁচ গোলের মধ্যে দুটি করেছেন। পিঠের চোটের কারণে ক্লাব মৌসুমের শেষের দিকের ম্যাচগুলোয় ক্লান্ত ছিলেন কেইন। অনেকেই মনে করেন, মাঠে ইংল্যান্ডের সংগ্রাম করে এগিয়ে চলার একটি কারণ কেইনের দুর্বল পারফরম্যান্স। তারকায় ভরা ইংল্যান্ড দল নিয়ে সাউথগেট ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য জার্মানিতে। কোচ বিশ্বাস করেন, তার খেলোয়াড়রা টুর্নামেন্টের প্রথম দিকে প্রত্যাশার সাথে মানিয়ে নিতে লড়াই করেছিল। আস্তে আস্তে সে অবস্থা বদলেছে। ‘গত ৮ বছরে আমাদের অর্জিত শক্তিগুলোর মধ্যে একটি হলো- কম ভয়, কম বাধা। শুরুতে যা ছিলো। এখন আমরা টুর্নামেন্টের দারুণ একটা মুহুর্তে রয়েছি। খোলোয়াড়দের কাছে এটা আলাদা কিছু। ইতিহাস গড়ার এটাই সুযোগ। ইংল্যান্ডের বিদেশে প্রথম ফাইনাল খেলার’- বলেছেন সাউথগেট।

আরো দেখুন

Advertisment

জনপ্রিয়