১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ  । ১৫ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ 

মোদীর মন্ত্রিসভায় সর্বকনিষ্ঠ মন্ত্রী ৩৬ বছরের, সর্বোচ্চ ৭৯

প্রতিদিনের ডেস্ক:
টানা তৃতীয়বার ভারতে কেন্দ্রীয় সরকার গঠন করেছেন নরেন্দ্র মোদী। আগের দু’বার একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেলেও এবার এনডিএ জোটের শরিকদের কাঁধে ভর করে প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন তিনি। গত রোববার শপথ নিয়েছেন মোদীসহ নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যরা। এই মন্ত্রিসভায় দেখা গেছে তরুণ ও বয়স্ক নেতাদের অনন্য সংমিশ্রণ। এদের মধ্যে বিশেষভাবে নজর কেড়েছেন রামমোহন নাইডু এবং জিতেন রাম মাঝি। কারণ, নতুন মন্ত্রিসভার সবচেয়ে কনিষ্ঠ ও সবচেয়ে বয়ঃজ্যেষ্ঠ সদস্য হলেন তারা।পুরো নাম কিঞ্জারাপু রাম মোহন নাইডু। বয়স মাত্র ৩৬ বছর। টিডিপির এই সংসদ সদস্য মোদীর তৃতীয় মন্ত্রিসভার সবচেয়ে কম বয়সী মন্ত্রী।
রাজনৈতিক পরিবার থেকে আসা রাম মোহন সাবেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ইয়েরান নাইডুর পুত্র। শ্রীকাকুলাম কেন্দ্র থেকে এ নিয়ে তৃতীয়বার সংসদ সদস্য হয়েছেন তিনি। ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনে গোটা রাজ্যে ওয়াইএসআরসিপির ঢেউ বয়ে গিয়েছিল। সেই সময়েও নিজের কেন্দ্র থেকে জিতেছিলেন রাম মোহন। একদিকে, টিডিপি প্রধান চন্দ্রবাবু নাইডুর অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ ইয়েরান নাইডুর পুত্র, অন্যদিকে যুবনেতা হিসেবেও অত্যন্ত জনপ্রিয়। তার ওপর, এবার এনডিএ সরকারের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ শরিক টিডিপি। সব মিলিয়ে মোদীর মন্ত্রিসভায় রাম মোহনের জায়গা পাওয়া অনেকটাই অনুমিত ছিল। নতুন সরকারে ভারতের বেসামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব সামলাবেন রাম মোহন নাইডু।মোদীর নতুন মন্ত্রিসভার আরেক তরুণ মন্ত্রী হলেন রক্ষা খড়সে। ৩৭ বছর বয়সী এ নেত্রী মহারাষ্ট্রের রাভার লোকসভা আসনে জয়ী হয়েছেন। তিনি রাজ্যটির প্রবীণ রাজনীতিবিদ একনাথ খড়সের পুত্রবধূ। কম্পিউটার সায়েন্সেসে ব্যাচেলর ডিগ্রি নিয়েছেন রক্ষা। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে সর্বকনিষ্ঠ প্রার্থী হিসেবে জয়লাভ করেছিলেন তিনি, জেতেন ২০১৯ সালের নির্বাচনেও। তিনবারের সংসদ সদস্য রক্ষা এর আগে সরপঞ্চ এবং জেলা পরিষদের সদস্য হিসেবে কাজ করেছেন। এবার কেন্দ্রীয় ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন তিনি।বিহারের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী জিতন রাম মাঝি মোদীর তৃতীয় মন্ত্রিসভার সবচেয়ে বয়স্ক সদস্য। তার বর্তমান বয়স ৭৯ বছর। ১৯৮০ সাল থেকে বিধায়ক নির্বাচিত হওয়া এই দলিত নেতা ২০১৪-১৫ সালে বিহারের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। হিন্দুস্তানি আওয়াম মোর্চার (এইচএএম) এ নেতা ছিলেন রাজ্যের মুসাহার সম্প্রদায়ের প্রথম মুখ্যমন্ত্রী। বিহারে তিনি বিভিন্ন দলের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন এবং একাধিক মুখ্যমন্ত্রীর অধীনে মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। মোদীর নতুন মন্ত্রিসভায় এমএসএমই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেয়েছেন তিনি।

আরো দেখুন

Advertisment

জনপ্রিয়